সমকালীন ইসলামপন্থার চেতনা-সংকট এবং নতুন বয়ান তৈরির প্রয়োজনীয়তা

মুফতী হারুন ইজহার চৌধুরী | লেখক, চিন্তক ও গবেষক


শাপলার নাস্তিকবিরোধি বিপ্লব কেন সফল হয়নি আল্লাহতাআলার পক্ষ থেকে তার সুদূরপ্রসারী ইতিবাচক কুদরতী ও গায়েবী কারণ ও ফলাফল সমূহ আসতে শুরু করেছে। থলের বিড়াল একটা একটা বের হতে শুরু করেছে। কোরাআনিক তত্ত্ব মতে ‘বিপর্যয়’ ইসলামি আন্দোলনের জন্য অপরিহার্য একটি অধ্যায়, এটা নেফাকের হৃদরোগ নির্ণয় করে দেয়।

আফসোস! সরকার উৎখাতের স্বপ্নে যারা একদিন বিভোর ছিল তারাই এখন সরকারের আস্থাভাজন মাওলানা…..। তাদের অনেকেই দ্বিচারীতার মাধ্যমে উভয়কূল নাকি রক্ষা করে চলছেন এমন তথ্যও আছে সচেতন মহলে।
কিন্তু যতসব নিপীড়নের খড়গ আমাদের মত বে-কুবদের উপরেই যারা ক্ষমতার তামাশা থেকে যোজন যোজন দূরে। যারা চালাকি না করে স্পষ্টবাদীতার মাশুল দিচ্ছে বছরের পর বছর।

আমরা উৎখাত আর আপোষকামিতা কোনটাতে সক্রিয় থাকিনি। আমরা অদৃশ্য হাতের টাকা নিয়ে “ইসলামে জঙ্গিবাদ নাই” – ব্যানারে কোন নাটক করিনি তাই সরকার আমাদের সন্দেহ করাটা হয়তো স্বাভাবিক। কিন্তু তাতে আমাদের কিছু করার নাই, কেননা আমাদের চেতনার দিগন্তে কোন ধু্ম্রজাল নেই।

আমাদের লড়াই কখনো রাজনৈতিক ছিলনা, আমাদের সংগ্রামের মেরুকরণটা আদর্শিক এবং সাংস্কৃতিক। আমরা যে ইসলাম বুঝি তা একটি প্রকাশ্য ও সুস্পষ্ট মিশনের নাম।

ইমান একটি আদর্শিক বিশ্বাসের নাম। এটা কোন জটিল ধারণা, সূক্ষ্ম দর্শন বা গোপন অনুশীলনের নাম নয়।
সে ইসলামের প্রসারে আপোষহীন বিশ্বাস আর চেতনা নিয়ে এগুলে সমস্যা কোথায়?
আপোষহীন দা’ওয়াত মানে তা একদিকে যেমন তাগুতের সাথে সহবস্থানের নীতি নয় তেমনিভাবে তাগুতের বিরুদ্ধে দা’ওয়াহ্-বিবর্জিত আক্রমণও নয়।

আমাদের মূলধারার একটি অংশ যারা আজ বাতিল এমনকি এন জি ও গুলোর সাথে গা মাখামাখি শুরু করে দিয়েছেন তাদের জানা থাকা চাই, এটা কোন মাসলাহত্ নয়। এটা হলো প্রথমত আপনার ইমানের দুর্বলতা দ্বিতীয়ত আপনার চিন্তাশক্তির শূন্যতা।
আপনার হাতে একটা বুলেট নেই, চাপাতি নেই, নেই বোমা বা অন্যকোন অস্ত্র সরাঞ্জাম। এরপরও কেন ভয়ে এতো কুপোকাত! আপনাকে আসলে বনের বাঘে নয় মনের বাঘে পেয়েছে। জঙ্গি জঙ্গি প্রচারণার বিকট শব্দে আপনি ভীতসন্ত্রস্ত হয়ে পড়ছেন খামোখায়।

কসম করে বলতে পারব, সস্তা আর ফরমায়েশী ব্যানার দিয়ে জঙ্গিবাদ দাফন হবেনা, হ্যাঁ আয়োজকদের ইমানটা দাফন হবে। এটা স্থুল এবং অন্তঃসারশূণ্য শ্লোগান। এটা কোন কার্যকর ও সামগ্রিক বয়ান নয় যার দ্বারা কাঙ্ক্ষিত সলিউশন হবে। এটা জাস্ট আনুকূল্য হাসিল আর অর্থ উপার্জন বৈ কিছু নয়।
“ইসলামি জঙ্গিবাদ নেই” এটি একটি আপেক্ষিক কথা। এধরনের متشابه বা Analogical বাক্যের সন্ধান ইসলাম প্রচারের মথড়ের ক্ষেত্রে কোরআন সুন্নাহ্’র বয়ানে খোঁজে পাওয়া যায়না

আপনার কাজ কি ছিল জানেন? কাজ ছিল কোরআনের তাফসীর নিয়ে, নবীর সীরাতগ্রন্থ নিয়ে এবং বিংশ শতকের সংস্কারবাদী ইসলামি পুনর্জাগরণের লিটারেচার নিয়ে নিয়ে রাষ্ট্র,প্রশাসন,সুশীল,পেশাজীবী,রাজনীতিক এবং শিক্ষিততরুণ সমাজের কাছে নববী ইনকিলাবের জাদু নিয়ে হাজির হওয়া।
বলুন তো শীর্ষস্থানে আপনার কোন দাওয়াতী যোগাযোগ আছে? শক্তির কারণে আপনি আজ কিছু লোকের পূজা করছেন, কাল যখন আরেক শক্তির দাপট শুরু হবে তখন আপনার ভোল পাল্টে যাবে। আগে ওদের সাথে চায়ের টেবিলে এদের সমালোচনা করতেন এখন এদের সাথে চায়ের টোবিলে বসে ঐ ওদের সমালোচনা করবেন এক সময় আপনি যাদের কাছে অর্থকড়ি নিয়েছিলেন, ক্রেস্ট দিয়েছিলেন, তোষামদ করেছিলেন।
জনাব! এটাতো নসীহা নয়। ইসলামের বিজয় চালাকি আর কন্সপাইরেসি দিয়ে আসেনি।
আপনার দরকার ছিল বেহায়ার মতো শক্তির দালালি না করে প্রকৃত ভালবাসা দিয়ে একমাত্র দ্বীনি দাওয়াতের সম্পর্ক গড়ে তোলা। প্রিয় নবীজি কি আবুজেহেলদের দালালি করেছেন? কিন্তু বারবার তিনি তাদের সমীপে হাজির হয়েছেন নসীহা নিয়ে। তারাতো একটা প্রস্তাব দিয়েছিলো টলারেন্সির। নবীজী তা পাত্তা দেননি। নবীর দাওয়াত কি ফলেনি? ইকরমাহ্ বিন আবু জেহেলকে চিনেন?

ভালো করে বুঝে নিন ; হাঙ্গামা বাধানোর যেমন দরকার নাই আপোষকামিতারও দরকার নাই। দরকার আছে সর্বশক্তি নিয়ে সর্বোচ্চ জায়গা থেকে শুরু করে তৃণমূল পর্যন্ত দাওয়াহ্’র অভিযান শুরু করা।
যার যতটুকু সামর্থ্য আছে তা নিয়ে প্রজ্ঞার ভাষা নিয়ে নসীহার দরদ নিয়ে তাগুতের দূর্গে দূর্গে হানা দিন। নির্লজ্জ সকল প্রকার আপোষকামিতা পরিহার করুন! যাদের তোষামদ করছেন তাদের কোন আনুকূল্য গ্রহণ না করে হাত ধরে হাত ধরে তাদেরকে আপনার দাওয়াতী কর্মী বানিয়ে ছাড়ুন। দেখবেন কেল্লাফতে হবে। তাগুতের বিরাট অংশ ইসলামের সৈনিকে পরিণত হবে। ওমর খাত্তাবকে চিনেন?
জামানার খাত্তাবের সন্তানদের পূজো না করে তাদেরকে মুসলমান বানানোর চিন্তা করুন।

একটা নতুন মেরুকরণ এবং নতুন বয়ান তৈরি করুন যেখানে কোন ব্যক্তি বা গোষ্ঠীকে নয়,বরং সেক্যুলারপন্থাকে বিলোপ এবং জুলুমপ্রথার উৎখাতই হবে আসল লক্ষ্য

সকেলের প্রতি এটা আমার উদাত্ত দাওয়াত..
দুর্বল ইমানের কাপুরুষ আপোষকামীদের প্রতি…
প্রজ্ঞহীন ইসলামি গণতন্ত্রের ধ্বজাধারীদের প্রতি……
দা’ওয়াহ্’বিবর্জিত জিহাদের স্বপ্নচারীদের প্রতি…
সকলের প্রতি।


ফেসবুক থেকে


প্রকাশিত মতামত লেখকের একান্তই নিজস্ব। ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম -এর সম্পাদকীয় নীতি/মতের সঙ্গে লেখকের মতামতের অমিল থাকতেই পারে। তাই এখানে প্রকাশিত  লেখকের মতামতের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে আইনগত বা অন্য কোনও ধরনের কোনও দায় নেবে না ইনসাফ কর্তৃপক্ষ।