ঘুন ধরলো কি লক্ষিন্দরের বাসর ঘরে!

সৈয়দ অাশরাফ। অাওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক। কম কথা বলেন। অাওয়ামী লীগের হানিফ, হাসান মাহমুদরা যেখানে প্রতিদিন কথার তুবড়ি ছোটান। সেই তুলনায় সৈয়দ অাশরাফ সল্পভাষি। তবে মাঝে মাঝে তিনি যা বলেন, তার ওজন কিন্তু কোন নিক্তিতেই মাপা যায়না। অাজ যেমন তিনি এক প্রস্থ নিলেন তারই মন্ত্রীসভার কলিগ ইনুদের। বললেন, বৈজ্ঞানিক সমাজতন্ত্র হচ্ছে একশ ভাগ ভন্ডের দল। ইনুরা এখন অাওয়ামীলীগের লেজুড়বৃত্তি করছে তাও বললেন। অারো বললেন, জাসদ মুক্তিচেতনাকে ধ্বংস করে শেখ মুজিবুর রহমানের হত্যাকে তরাব্নিত করেছিল।

হঠাৎ। জাসদ উবাচ! অাশরাফের! কেন? তার দল তার নেত্রী তো জেনে শুনেই জাসদকে স্থান দিয়েছেন তার চরনযুগলে! তাহলে সৈয়দ অাশরাফের হঠাৎ কেন এই উচাটন! কেন এই বিবেকের ক্ষেদোক্তি! সে কি কেবলি অাত্মপীড়ন থেকে! নাকি এর পেছনে কোন মাজেজা অাছে। নাকি সরকারের শরীকদের সঙ্গে তার লয় সুরটা কাটতে শুরু করলো! অাম জনতার সেটাকি বাইরে থেকে বোঝা সম্ভব?

কেন সৈয়দ অাশরাফ তাহলে বললেন,ইনুকে মন্ত্রী করায় তার দলকে প্রায়শ্চিত্ত করতে হবে! ঘুন ধরলো কি লক্ষিন্দরের বাসর ঘরে!
সৈয়দ অাশরাফ বলেছেন, শেখ সাহেবকে হত্যার পথ সুগম করেছিলো দাদা ভাই গং..! এটাই কি পুরো সত্য? না। এটা অাংশিক সত্যি! পুরো সত্যটা হলো বাকশাল গঠন, স্বাধীনতার পরপরই সব কিছু বিএলএফ কিম্বা মুজিব বাহিনী করেছে…বাকিরা সব কিছুনা।

অারো অাছে, বাহাত্তর সালে শেখ সাহেব দেশে ফিরলে তার মুজিব বাহিনী পক্ষ্য গ্রহন, সত্তরেরর নির্বাচনের এমএলে দিয়ে সংসদ অধিবেশন ডাকা, সর্বদলীয় সরকার গঠন না করে শুধুমাত্র অাওয়ামী লীগার দিয়ে সরকার গঠন করা ইত্যাকার সব খন্ড খন্ড ঘটনা কি কোন অনুঘটকের কাজ করেনি…. পরবর্তী করুন পরিনতির জন্য! সুতরাং বৈজ্ঞানিক সমাজতন্ত্রীরাই যে সব, সেটা পুরো সত্য নয়…

তবুও সৈয়দ বংশের অাশরাফকে ধন্যবাদ। অাত্মদহনে কিছু সত্য কথন ছাত্রলীগের অনুষ্ঠানে তরুন প্রজন্মের কাছে উপস্থাপনের জন্য! কারন ছাত্রলীগের এরকমই এক বর্ধিত সভায় সিরাজুল অালম খান দাদা ভাইরা বৈজ্ঞানিক সমাজতন্ত্রীর সপ্ন দেখিয়েছিলেন তরুনদের!

সৈয়দ অাশরাফের এসব খেদোক্তি সেসব তরুনদের কেবলি জিঘাংসা উস্কে দেয়! তাদের স্বপন দ্রষ্টাদের প্রতি জিঘাংসা কি অাশরাফের দলের কারো মনে জাগেনা? নাকি ক্ষমতার মোহ তাদের জিঘাংসাকে হরণ করেছে!


 ফেসিবুক থেকে