পানি সম্পর্কিত কিছু জরুরি তথ্য

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম | মুহাম্মাদ জিন্নুরাইন


বাংলাদেশের অধিকাংশ মানুষের পানির উৎস টিউবওয়েলের পানি। পানিতে আর্সেনিক আছে কি না জানতে, একটি স্বীকৃত ল্যাবরেটরিতে পরীক্ষা করা বা জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর-কে জিজ্ঞাসা করতেজানা যায়। আর কিছু পানির উৎসে, যেমন বৃষ্টির পানিতে, কখনোই আর্সেনিক থাকে না।

বাংলাদেশের মানুষ ২০০০ ও ২০১৫ সালে আর্সেনিক যুক্ত পানি পান করার ঝুঁকিতে ছিল ২৭% এবং ১২% শতাংশ। ২০১৫ সালে বাংলাদেশের ১ কোটি ৯৮ লাখ মানুষ আর্সেনিক যুক্ত পানির উৎস থেকে ঝুঁকির মধ্যে ছিল। কিন্তু ২০০০ সালে এই সংখ্যাটি ৩ কোটি ৫০ লাখ ছিল! ইউনিসেফ, বাংলাদেশ সরকার এবং অন্যান্য সংস্থা, সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ মানুষদের লক্ষ্য করে এই সমস্যা সমাধানের জন্য বিনিয়োগ করে চলছে।

বাংলাদেশে, মাত্র ৫.৪% পুরুষরা পরিবারের জন্য পানি সংগ্রহ করে। ঝুঁকিপূর্ণ হওয়া সত্ত্বেও মূলত নারী ও শিশুরাই এই কাজটি করে।

রোগসমূগের মধ্যে ডেঙ্গু জ্বর পরিষ্কার পানিতে এডিস মশার থেকে ছড়ায় এবং টাইফয়েড পানি বাহিত রোগ।

খাবার পানির ৬.১ সাসটেইনেবল ডেভেলপমেন্ট গোল (এসডিজি) এর লক্ষ্য হচ্ছে, ২০৩০ সালের মধ্যে সকলের কাছে, নিরাপদ এবং সাশ্রয়ী পানি পৌঁছে দেয়া।

বিশ্ব পানি দিবস ২০১৮-এর থিম হচ্ছে- পানির জন্য প্রকৃতি (Nature for Water)

উৎস :  ইউনিসেফ