আফগান হাফেজদের উপর হামলাকারীদের পৃথিবীর মানুষ ক্ষমা করবেনা : মাওলানা নদভী

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম | আলাউদ্দীন বিন সিদ্দিক


মাওলানা উবায়দুর রহমান খান নদভী – ছবি : ইনসাফ

অশান্ত আফগানে আবারো বর্বর হামলার ঘটনা ঘটলো। দেশটির কুন্দুস প্রদেশের দাশ্তে আর্চি জেলার মাদরাসায়ে উমরিয়্যাহ এর হাফেজ ছাত্রদের সনদ প্রদান ও দস্তারবন্দী অনুষ্ঠান চলাকালে আমেরিকা ও তাদের দোসর আফগানী বাহিনীর বিমান হামলায় শতাধিক নিরীহ শিশু-কিশোর কুরআনের হাফেজকে হত্যা করা হয়েছে।

এতো বড় একটি হত্যাকাণ্ড ঘটে গেলেও বিশ্ব মিডিয়া মুখে কুপুল দিয়ে বসে আছে। এতোজন হাফেজকে এক সাথে হত্যার ঘটনায় মুসলমানদের মাঝে বইছে ক্ষোভের ঝড়।

এই হামলার পর আফগানিস্তানের প্রতিরক্ষামন্ত্রী মুহাম্মদ রাদমানিশ বলেন দাশ্তে আর্চি জেলার ওই হামলা তালেবানদের প্রশিক্ষণ শিবিরে করা হয়েছে মাদরাসার শিশুদের উপরে নয় । আফগান প্রতিরক্ষামন্ত্রীর এবক্তব্যের তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে আলেম সাংবাদিক,  দৈনিক ইনকিলাবের সিনিয়র সহকারী সম্পাদক ও ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকমের সম্পাদকীয় উপদেষ্টা মাওলানা উবায়দুর রহমান খান নদভী বলেন, এটা সম্পূর্ণ ইচ্ছাকৃত হামলা। যারা হামলা করেছে তারা যেনেশুনে হাফেজে কুরআনদেরকে হত্যা করেছে। হামলাটা একটা হেফজখানায় হয়েছে। সেখানে হাফেজদের পাগড়ী দেয়া হচ্ছিল। আমরাও আমাদের পাগড়ী অনুষ্ঠান করি, আমাদের উপরেও যে হামলা হবেনা এর নিশ্চয়তা কোথায়? এটা চিন্তার দাবি রাখে। আমদের এখনই সতর্কতার সাথে এর প্রতিরোধ করতে হবে। সারা পৃথিবীর মানুষকে প্রতিবাদ মুখর হতে হবে। মাদরাসার হাফেজদের পাগড়ী প্রদান অনুষ্ঠানে এভাবে নির্বিচারে হামলা করে কচি কচি হাফেজ বাচ্চাদের হত্যা কোনো সভ্য জাতি করতে পারেনা। এরকম হামলা একবার দুবার নয়, বারবার করা হচ্ছে। এটা কোনো ভাবে ক্ষমার যোগ্য নয়। পৃথিবীর মানুষ ক্ষমা করবেনা। যাদের মাঝে মানবতা আছে তারা ক্ষমা করবেনা।

আজ সন্ধ্যায় ইনসাফের সাথে আলাপকালে তিনি এসব কথা বলেন।

মাওলানা নদভী আরও বলেন, পশ্চিমা মানবাধিকার সংস্থা গুলো আজ নিরব কেন? কারন এখানে মুসলিম শিশু হাফেজরা শহিদ হয়েছেন। সন্ত্রাসবিরোধী হামলা বলে বলে মুসলমানদের উপর সংগঠিত সকল হামলা বারবার এড়িয়ে যাওয়া হচ্ছে। আফগানের এই শিশু গুলো কি সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড করত ? এই হাফেজ গুলো কী সন্ত্রাসী? নাকি যারা এই হাফেজ গুলোকে নির্মমভাবে হত্যা করেছে তারা সন্ত্রাসী? এটাতো কোনো যুদ্ধাস্থানও ছিলনা। এটা একটা বেসামরিক যায়গা ছিলো। এখানে হাফেজদের পাগড়ী প্রদান করা হচ্ছিলো। এদের উপর হামলা হলো কেন?

মাওলানা নদভী বলেন, মালালার উপর হামলার পর পৃথিবীর পরাশক্তি গুলো প্রতিবাদ মুখর হলো! আফগানের এই হামলায় তারা চুপ কেন?
মালালা একজন ছাত্রী আফগানের এই শিশু গুলো কি ছাত্র না? এতো জুলুম মানবজাতি সইবেনা। এর পরিবর্তন ঘটবে।