আফগানিস্তানে শতাধিক হাফেজে কুরআন হত্যা: ঢাকায় বিশাল প্রতিবাদ বিক্ষোভ (ভিডিও)

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম | বেলায়েত হুসাইন, মুহাম্মাদপুর থেকে



আফগানিস্তানে শতাধিক শিশুকিশোর-হাফেজে-কোরআন ও আলেমকে কে হত্যার প্রতিবাদে রাজধানীর মোহাম্মদপুরস্থ কওমি মাদরসা সমূহের ঐক্যবদ্ধ প্লাটফর্ম ইত্তেফাকুল মাদারিসিল কওমিয়ার উদ্যোগে  বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বেলা এগারোটায় পূর্ব ঘোষিত বিক্ষোভ মিছিলটি নির্দিষ্ট সময়ে মোহাম্মদপুর টাউনহল মসজিদের সামনে শুরু হয় এবং বেলা সোয়া বারোটা নাগাদ ঐতিহাসিক সাতমসজিদ-ঘনিষ্ঠ ময়ূরী-ভিলায় গিয়ে শেষ হয়।

বিক্ষোভ মিছিলে ইত্তেফাকের আওতাভুক্ত সকল মাদরাসার শিক্ষার্থী ছাড়াও মোহাম্মদপুর-সহ রাজধানীর বিভিন্ন এলাকা থেকে হাজার হাজার ইসলাম ও কোরআনপ্রেমী তৌহিদী জনতা অংশগ্রহণ করে।

এ সময় তাদের হাতে দেখা যায় এই ঘটনার নিন্দাজ্ঞাপক অসংখ্য বিক্ষুব্ধ শ্লোগান অংকিত নানারকম প্লেকার্ড ও ফেস্টুন ।সময় বাড়ার সাথেসাথে তৌহিদী-জনতার শ্লোগানে-শ্লোগানে জনসমুদ্রে পরিণত হয় মসজিদ চত্বরটি।

শ্লোগানমুখর এই বিক্ষোভ মিছিল সূচনা পূর্বক আলোচনায় বক্তব্য রাখেন ইত্তেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়ার কেন্দ্রীয় নেতা ও  জামিয়া রাহমানিয়া আরাবিয়ার প্রিন্সিপাল মাওলানা মাহফুজুল হক।

তিনি তার বক্তৃতায় এই মর্মান্তিক হত্যাযজ্ঞের তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, বর্বরোচিতভাবে শতাধিক হাফেজে কোরআনের শাহাদাতের ঘটনায় সমস্ত মুসলিম জনতার হৃদয়ে ক্ষোভের আগুন জ্বলে উঠেছে।

তিনি বলেন, এখানে আমাদের নিন্দা জানানোর কোন ভাষা নেই, এক্ষেত্রে শুধু নিন্দা নয় আমাদের প্রতিশোধ গ্রহণের প্রস্তুতি নিতে হবে।

তিনি আরো বলেন, নব্বই ভাগ মুসলমানের দেশ হিসেবে বাংলাদেশের সরকারকে আমি আহবান জানাবো-এক্ষেত্রে আপনি অগ্রণী ভূমিকা পালন করুন। আজকের জাতীয় সংসদ অধিবেশনে নিন্দা-প্রস্তাব গ্রহণ করুন। তৌহিদী জনতা এক্ষেত্রে আপনার পাশে থাকবে।
এছাড়া তিনি বিশ্ব আন্তর্জাতিক সংস্থা (ওয়াইসি এবং জাতিসংঘ)এর প্রতি ইশারা করে বলেন, তারা এই নির্মম ঘটনায় নিশ্চুপ রয়েছে, তাদের অবস্থান বিশ্ববাসীর সামনে স্পষ্ট করতে হবে, যদি না করে তাহলে এইগুলো আমাদের কোন প্রয়োজন নেই।

বিক্ষোভ মিছিলে এছাড়াও বক্তব্য রাখেন, জামিয়া বাইতুল ফালাহর শিক্ষাসচিব মাওলানা জালালুদ্দিন আহমাদ, জামিয়া ওয়াহিদিয়ার প্রিন্সিপাল মাওলানা জুবাইর, মাওলানা আতাউল আমিন, জামিয়া মোহাম্মদিয়ার সহকারী পরিচালক মাওলানা ফয়সাল আহমদ, জামিয়া বাইতুল আমানের প্রিন্সিপাল মুফতি মাহমুদুর রহমান,  মাওলানা ওমর ফারুক ও মাওলানা সাইফুল ইসলাম প্রমুখ।

মাওলানা শাহাদাৎ হুসাইনের উপস্থাপনায় সবশেষে সভাপতির বক্তৃতা করেন জামিয়া মুহাম্মদিয়ার  প্রিন্সিপাল মাওলানা আবুল কালাম।