মাদরাসা ছাত্র হত্যাকারীদের গ্রেফতার ও ফাঁসির দাবীতে মানববন্ধন 

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম |  আরিফ সবুজ (নোয়াখালী ) প্রতিনিধি


জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে হাতিয়ায় নিহত নিরব হত্যাকারীদের গ্রেফতার ও ফাঁসির দাবীতে মানব বন্ধন করেছে হাতিয়া সচেতন নাগরিক সমাজ।

আজ বৃহস্পতিবার সকাল ১১টায় হাতিয়ার সচেতন নাগরিক সমাজ, রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দসহ সকলে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে এ মানব বন্ধন কর্মসূচী পালন করে। এ সময় ঢাকাস্থ হাতিয়ার শত শত লোকজন মানব বন্ধনে উপস্থিত ছিলেন।

এ সময় তারা স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বরাবর একটি স্বারকলিপি প্রদান করে। নিহত মেশকাতুর রহমান নিরব হাতিয়া রহমানিয়া মাদরাসা ৪র্থ শ্রেণীর ছাত্র ছিলো। নিহত নিরব উদ্দিন (১০) হাতিয়া পৌরসভার ৪নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা মোঃ মিরাজ উদ্দিনের ছেলে।

এ সময় নেতৃবৃন্দরা বক্তব্যে বলেন, হাতিয়ায় নোংরা রাজনীতির বলি হয়ে নিরবের মতো আর কতো মায়ের বুক খালি হবে। আমাদের মেধাবী ছাত্র নিরব এ দ্বীপের চলমান অপরাজনীতির কারণে  মৃত্যু বরণ করলো।

আমরা স্থানীয় প্রশাসনের কাছে নিহত নিরবসহ সকল হত্যাকান্ডের সুষ্ঠু বিচারের দাবী জানাচ্ছি। অনতিবিলম্বে সকল হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত অপরাধীদের গ্রেফতার করে আইনে আওয়তায় এনে শাস্তির দাবী করছি। আমরা এসকল অপরাধীাদের যেন ফাঁসি হয় সে আশা করছি।

উল্লেখ্য, গত রবিবার রাত ৮ টার সময় নোয়াখালীর হাতিয়া পৌরসভার ৪ নং উত্তন বেজুগুলিয়া গ্রামে স্থানীয় খবির মিয়া বাজার এলাকায় ওয়ার্ড আ’লীগ নেতা রাশেদুল ইসলাম নান্টুর বাড়ীতে এ হত্যাকান্ড ঘটে। নিহতের গুলিবিদ্ধ বাবা মিরাজ উদ্দিন মোবাইল ফোনে জানায়, স্থানীয় এমপি আয়েশা ফেরদৌসের সমর্থিত সন্ত্রাসী ও একাধিক হত্যা মামলার আসামী মহিউদ্দিন মুহিন ডাকাত, গুল আজাদ বাহিনী, আবু তাহের ডাকাত, আতিকুল ইসলাম জিন্নুর ডাকাত, জুয়েল ডাকাত, বেচু ডাকাত, গালিব ডাকাত, শাহাদাত ডাকাত, জাহাঙ্গীর ডাকাত ও অপরাপর ৪০/৫০ জন সন্ত্রাসীরা এ হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত। আমার পরিবারের উপর এ বর্বরতার মূলক হামলাকারী ও আমার ছেলের হত্যাকারীদের গ্রেফতার করে দ্রুত বিচারের আওয়তায় আনা হোক। আমি তাদের ফাঁসি চাই।

এদিকে হাতিয়া থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ কামরুজ্জামান শিকদার জানান, এ ঘটনায় একটি হত্যা মামলা হয়েছে। মামলায় আতিকুল ইসলাম জিন্নুরকে প্রধান করে মোট ৩৫ জনকে আসামী করা হয়। তার মধ্যে আসামী ২ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। আমরা বাকি আসামীদের গ্রেফতার করতে অভিযান অব্যাহত রেখেছি।