মাদরাসা উচ্ছেদ করার ষড়যন্ত্র বরদাশত করা হবে না: হেফাজত

হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ লোগোনারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে মক্কী নগর মাদরাসায় অতর্কিত সন্ত্রাসী হামলা চালিয়ে মাদরাসাটি উচ্ছেদ করে এর ভূমি দখলের ষড়যন্ত্রের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ এর মহাসচিব আল্লামা হাফেজ জুনাইদ বাবুনগরী ও সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা আজিজুল হক ইসলামাবাদী এক যুক্ত বিবৃতিতে বলেন, যখন সরকারের কতিপয় ইসলামবিদ্বেষী মন্ত্রী একের পর ইসলামি শিক্ষা ও কওমী মাদরাসার বিরুদ্ধে উস্কানিমূলক বক্তব্য দিয়ে দেশের সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা বাঁধানোর অপচেষ্টা চালাচ্ছেন ঠিক এমন সময়ে মক্কীনগর মাদরাসায় সরকারি দলের মদদপুষ্ট সন্ত্রাসীরা হামলা চালিয়ে ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানটির ভূমি দখলের ষড়যন্ত্র করছে।

এ মাদরাসা দেশের প্রখ্যাত বুজর্গ ব্যক্তিত্ব মাওলানা আলতাফ হোসাইন কর্তৃক প্রতিষ্ঠিত কুরআন-হাদিস চর্চার দীনি শিক্ষাকেন্দ্র। যারা এ মাদরাসায় হাত দেবে তারা খোদায়ী গজবে তাদের ধ্বংস অনিবার্য।

হেফাজত নেতৃদ্বয় বলেন, আমরা প্রশাসন ও সরকারের কর্তাব্যক্তিদের কাছে দ্ব্যর্থহীন ভাষায় বলছি, যুগেযুগে সমাজে কওমী মাদরাসার অবদান ও আদর্শ জাতি গঠনে ইসলামি শিক্ষা প্রসারে বহুমুখী কর্মতৎপরতা সবসময়ে দেশ ও জাতির কল্যাণে নিবেদিত ছিল; এখনও আছে এবং ভবিষ্যতেও থাকবে। আমরা বিস্ময়ের সঙ্গে লক্ষ করেছি, একদিকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও প্রশাসনের উচ্চপদস্থ দায়িত্বশীলগণ কওমী মাদরাসার অবদান স্বীকার করে কোনো ধরনের সন্ত্রাসী জঙ্গিবাদী কর্মকা-ে মাদরাসা শিক্ষিতদের সম্পৃক্ত না থাকার বিষয়ে পরিষ্কারভাবে উচ্চারণ করেছেন। অন্যদিকে বিতর্কিত ও অসৎ রাজনীতিক খাদ্যমন্ত্রী ও কমিউনিস্ট নৌ পরিবহন মন্ত্রী কওমী মাদরাসার বিরুদ্ধে অনবরত বিষোদগার করে চলেছেন।

হেফাজত নেতৃবৃন্দ বলেন, কওমী মাদরাসা ও আলিম-ওলামা এদেশে ভূঁইফোঁড় জনগোষ্ঠী নয়। মাদরাসাপড়ুয়া ও ওলামা-মাশায়েখের সঙ্গে এদেশের তৃণমূল জনগোষ্ঠীর নাড়ির সম্পর্ক বিদ্যমান রয়েছে। কওমী মাদরাসা স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্বের অতন্দ্র প্রহরী। যারা কওমী মাদরাসা ও আলিম-ওলামার বিরুদ্ধে উঠেপড়ে লেগেছে তারা নিশ্চয় বিদেশী আগ্রাসী শক্তির দালাল অথবা ইসলামবিদ্বেষী শক্তির ক্রীড়নক হিসেবে কাজ করছে। বি.বাড়িয়ার জামিয়া ইউনুছিয়ায় হামলার কারণে তাদের বিষদাঁত ভেঙে দেয়া হয়েছে। বাংলাদেশের যেখানেই মাদরাসা-মসজিদ ও ইসলামি প্রতিষ্ঠানের হাত বাড়ানো হবে সেখানেই তাদের বিরুদ্ধে সর্বস্তরের ইমানদার জনতার ব্যাপক প্রতিরোধ গড়ে তোলা হবে।

হেফাজত নেতৃদ্বয় বলেন, কওমী মাদরাসা হিমালয় পর্বততূল্য; এর সঙ্গে যারা মাথা টুকবে তাদের মাথাই চুরমার হয়ে যাবে; কওমী মাদরাসা কিয়ামত পর্যন্ত টিকে থাকবে ইনশাআল্লাহ।