হাটহাজারীতে বিদায়ী ছাত্রদের শেষ নসিহত করলেন আল্লামা শফী ও আল্লামা বাবুনগরী

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম |  জুনাইদ আহমদ 


হাটহাজারী আরবী বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষের বিদায়ী ছাত্রদের শেষ নসিহত করেছেন জামিয়ার মহাপরিচালক শাইখুল ইসলাম আল্লামা শাহ আহমদ শফী ও হেফাজত মহাসচিব ও জামিয়ার সহযোগী পরিচালক আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী

আজ ৮ ই মে,বাদ জোহর জামিয়ার কেন্দ্রীয় বায়তুল করীম জামে মসজিদে উপস্থিতিত হাজার হাজার ছাত্রদের বিদায়ী নসিহত পেশ করেন তাঁরা৷

শাইখুল ইসলাম আল্লামা শাহ আহমদ শফী বলেন, আমার শায়েখ সায়্যেদ হুসাইন আহমদ মাদানী রহ. দাওরায়ে হাদীস সম্পন্নকারী ছাত্রদেরকে তাখাচ্ছুছ ফী উলুমিল কুরআন বা উচ্চতর কুরাআন গবেষনা (তাফসীর)বিভাগে পড়ার পরামর্শ দিতেন ৷আমিও আপনাদেরকে এক বৎসর কুরআনের তাফসীর পড়ার পরামর্শ প্রদান করছি৷

আল্লামা শফী বলেন, শাইখুল আদব মাওলানা এজাজ আলী রহ. বলতেন যে,পড়ালেখা শেষ করার পর নিজেকে ইলমের খেদমতে নিয়োজিত রাখতে হবে৷ সুতরাং আপনারাও পড়ালেখা শেষ করছেন, এখন নিজেকে ইলমের খেদমতে নিয়োজিত রাখবেন।

ইনসাফের চতুর্থ প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষ্যে আল্লামা জুনাইদ বাবুনগরী’র ভিডিও শুভেচ্ছা বার্তা

কান্নাজড়িত কন্ঠে তিনি আরো বলেন,পরীক্ষা শেষে সকলেই নিজ গন্তব্যে ফিরে যাবেন, জানিনা আগামীতে আপনাদের সঙ্গে আর সাক্ষাৎ হয় কিনা। সকলেই মাদরাসার জন্য এবং আমাদের জন্য দুআ করবেন৷ আমরাও আপনাদের জন্য দুআ করি ৷এ সময় অন্যন্য ছাত্রদেরও কাঁদতে দেখা যায়।

বিদায়ী নসিহতে পবিত্র কুরআনের সুরা তাওবা’র ১২২ নং আয়াতের আলোকে আল্লামা বাবুনগরী বলেন, কুরআন হাদীসের ইলম অর্জন শেষ করে আপনারা আজ স্বজাতীর নিকট প্রত্যাবর্তন করছেন। আপনাদের উপর অর্পিত গুরু দায়িত্ব হলো,পরিবার পরিজনসহ এলাকার মানুষদেরকে পরকালের ভীতি প্রদর্শন করবেন। সর্বত্র দ্বীনের প্রচার প্রসার করবেন। ইসলামের জন্য নিবেদিত প্রাণ হয়ে কাজ করবেন।

তিনি আরো বলেন, ইসলাম একটি পূর্ণাঙ্গ জীবন ব্যবস্থার নাম। কুরআন হাদীসে মানবজীবনের সৃষ্ট যাবতীয় সমস্যার সমাধান রয়েছে। তাই বর্তমান সময়ের আধুনিক মাসআলা সমূহের সমাধানের জন্য কুরআন হাদীসের সরনাপন্ন হবেন। কুরআন হাদীস থেকে আধুনিক মাসআলা সমূহের সমাধান বের করে জাতীর সামনে তুলে ধরবেন৷

আল্লামা বাবুনগরী আরো বলেন, নিজেকে দ্বিনের খেদমতে নিয়োজিত রাখবেন৷ উত্তরবঙ্গে খ্রীষ্টান মিশনারী ও কাদিয়ানীরা সরলমনা সাধারণ মুসলমানদের ঈমান ছিনিয়ে নিচ্ছে। তাই বাতিল অপশক্তির বিরুদ্ধে আপোষহীন ভাবে কাজ করে যাবেন।

কওমী মাদরাসা প্রতিষ্ঠা করে বাতিল অপশক্তির বিরুদ্ধে দ্বীনের মজবুত দূর্গ গড়ে তুলবেন৷

নসিহত শেষে জামিয়ার বিভিন্ন ক্লাসের কৃতি ছাত্রদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ ও দুআ পরিচালনা করেন শাইখুল ইসলাম আল্লামা শাহমদ শফী৷

এসময় জামিয়ার উস্তাদবৃন্দের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন মুফতী জসিমুদ্দীন, মাওলানা ফুরকান আহমদ,মাওলানা আহমদ দীদার কাসেমী,মাওলনা আনাস মাদানী,মাওলানা মাহবুবুল আলম, মুফতী আব্দুল হামীদ প্রমূখ৷