প্রবাসীকল্যাণমন্ত্রীর ভাগ্নে হত্যা: স্বীকারোক্তি আদায়ে অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীকে নির্যাতনের অভিযোগ

photo-1454928698_115925স্বামী খুনের সঙ্গে জড়িত থাকার স্বীকারোক্তি আদায় করতে অন্তঃসত্ত্বা অবস্থায় শারীরিক ও মানসিকভাবে নির্যাতন করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন প্রবাসীকল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী নুরুল ইসলাম বিএসসির ভাগ্নে বউ সোনিয়া।

আজ সোমবার চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে মন্ত্রীর নিহত ভাগ্নে ওবাইদুল হকের স্ত্রী তাসমিন খাদিজা সোনিয়া এসব অভিযোগ করেন। এসময় তিনি বলেন, তাকে পুলিশ গ্রেপ্তার ও রিমান্ডে নিয়ে নানাভাবে নির্যাতন করেছে। নিহত স্বামী ওবাইদুল হক সানোয়ারা গ্রুপের কর্মকর্তা ছিলেন এবং প্রবাসীকল্যাণমন্ত্রী নুরুল ইসলাম বিএসসির ভাগ্নে।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন খাদিজার বাবা নুরুল আবসার চৌধুরী, মা সালেহা বেগম। গত বছর ২৬ জুন রাতে ঢাকার কলাবাগানে খুন হন ওবাইদুল হক।

সোনিয়া বলেন, প্রায় আট মাসেও প্রকৃত হত্যাকারীদের গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ। ওবাইদুল হকের মৃত্যুর ১৬ দিন পর তাঁর ভাই (ভাসুর) শেখ আহমদ ও তাঁর ফুফাতো ভাই নেছার আহমদ তাঁকে গর্ভপাত করানোর প্রস্তাব দেন। এ সময় তিন মাসের অন্তঃসত্ত্বা ছিলেন তিনি। এর আগে ওবাইদুল হকের ব্যাংকের চেকসহ যাবতীয় সম্পত্তির কাগজ ভাসুর শেখ আহমদ নিয়ে যান বলে অভিযোগ করেন সোনিয়া। গর্ভপাতে সোনিয়া রাজি না হওয়ায় চট্টগ্রামের লাভ লেন থেকে গোয়েন্দা পুলিশ দিয়ে তাঁকে গ্রেপ্তার করে ঢাকায় নেওয়া হয়।

তাসমিন খাদিজা সোনিয়া আরো অভিযোগ করেন, পুলিশের গোয়েন্দা শাখা (ডিবি) স্বামী হত্যায় জড়িয়ে তাঁর স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি আদায়ে শারীরিক ও মানসিকভাবে নির্যাতন করেছে। পাশাপাশি মিথ্যা কল্পকাহিনী তৈরি করে সামাজিকভাবে তাদের পরিবারকে হেয় করা হয়েছে। মিথ্যা মামলায় দীর্ঘ দুই মাস কারাভোগ করে উচ্চ আদালতের জামিনে বের হয়ে আসেন তিনি। গত ২৯ ডিসেম্বর সোনিয়া ছেলেসন্তানের মা হন। সংবাদ সম্মেলনে স্বামী ওবাইদুল হকের হত্যাকারীদের গ্রেপ্তার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি ও প্রকৃত উদঘাটনের দাবি জানান তিনি।