ফের পশ্চিম তীরে অবৈধ বসতি স্থাপনের ঘোষণা দিল ইহুদিবাদি ইসরাইল

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম | ডেস্ক রিপোর্ট


ফিলিস্তিনি ভূমিতে এভাবেই গড়ে উঠছে অবৈধ ইহুদি বসতি

অবরুদ্ধ পশ্চিমতীরে আরও ২ হাজারেরও বেশি বসতি নির্মাণের ঘোষণা দিয়েছে ইসরায়েল। স্থানীয় সংবাদমাধ্যমে বরাত দিয়ে একথা জানিয়েছে কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল-জাজিরা। সংবাদমাধ্যমটি জানায়, আরও ২ হাজার ৭০টি বসতি স্থাপনের কথা রয়েছে। ইসরায়েলি সিভিল প্রশাসনের পক্ষ থেকে জানানো হয় ইতোমধ্যে ৬৯৬টি বসতি নির্মাণের অনুমোদন হয়ে গেছে। অপেক্ষায় আছে আরও ১২৬২টি স্থাপনা।

আন্তর্জাতিক আইন অনুসারে ইসরায়েলের এমন বসতি স্থাপন অবৈধ। তারপরও আন্তর্জাতিক চাপ উপেক্ষা করে বসতি স্থাপন করেই যাচ্ছে তারা। ইসরায়েল ২০১৫ সালে ১ হাজার ৯৮২ টি বাড়ি নির্মাণের অনুমতি দিয়েছিল। ২০১৬ সালে এই সংখ্যা ছিল ২ হাজার ৬২৯ এবং ২০১৭ সালে এই সংখ্যা দাঁড়ায় সাড়ে ছয় হাজার। ২০১৭ সালে ইসরায়েল দুই হাজার পাঁচশ একর ফিলিস্তিনি ভূমি দখল করেছে। এই সময়ে দখলদার ইসরায়েলি বাহিনীফিলিস্তিনিদের ৫০০ বাড়ি ভেঙে দিয়ে নতুন আটটি ইহুদি বসতি স্থাপন করেছে।

ইসরায়েলি সংগঠন পিস এর মতে, ডোনাল্ড ট্রাম্প যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব নেওয়ার পর পশ্চিমতীরে ১৪ হাজার ৪৫৪টি বসতি স্থাপন করেছে। দেড় বছর আগের চেয়ে যা তিনগুণ বেশি।

ট্রাম্প প্রশাসনের এমন অবস্থানের সুযোগ নেওয়ার জন্য নেতানিয়াহুর সমালোচনা করেছে পিস। সংস্থাটি জানায়, ‘এটা স্পষ্ট যে দ্বি-রাষ্ট্র সমাধান প্রয়োজন। পশ্চিমতীর থেকে ইসরায়েলের দখল তুলে নিতে হবে।’

বুধবার এক বিবৃতিতে হোয়াইট হাউস জানায়, যুক্তরাষ্ট্র যেন শান্তি আলোচনা তরান্বিত করতে পারে তাই ইসরায়েলকে তাদের বসতির ভবিষ্যত পরিকল্পনা থেকে সরে আসতে হবে। এক মুখপাত্র জানান, ‘প্রেসিডেন্ট তার অবস্থান সম্পর্কে সবাইকে পরিষ্কার করেছেন। তিনি শান্তি আলোচনায় সব পক্ষের কার্যকরী অংশগ্রহণ চান।’