মুন্সিগঞ্জ সিরাজদিখানের বাঐখোলা গ্রামে ডাকাতের হামলা

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম | মুহাম্মাদ ইয়ামিন


ঢাকার অদূরে মুন্সিগঞ্জের সিরাজদিখান উপজেলা অন্তর্গত রাজানগর ইউনিয়ন নিকটস্থ বাঐখোলা গ্রামের তাবলীগ জামাতের সাথী সামাদ মাষ্টারের বাড়ীতে নৃশংসভাবে ডাকাতদল হামলা ও লুটপাট করে।

গতকাল ৩ জুন বরিবার দিবাগত রাত ০১ টার দিকে ডাকাতি ও লুটপাটের মর্মান্তিক ওই দূর্ঘটনা ঘটান পাঁচ ছয়জন দুর্বৃত্তকারী ডাকাত।

সেসময় ডাকাতদল বাড়ীর ভিতরে প্রবেশ করে ঘরের বেশ কিছু স্বর্ণালংকার ও নগদ টাকা লুটপাট করে নেয় বলে জানান স্থানীয় প্রত্যক্ষদর্শী অনেকেই।

নৃশংস ডাকাতির এ ঘটনা সরেজমিনে গিয়ে জানতে চাইলে আহত সালাম মাষ্টারের শ্যালক মুহাম্মাদ এনামুল বলেন, গতকাল তারাবীর নামাজের পরপর ডাকাত ঘরে প্রবেশ করে আত্মগোপন করে থাকে, পরে রাত যখন গভীর হয় তখন একাধিক ডাকাত একত্রিত হয়ে আমার দুলাভাই ও বোনকে হাত পা বেঁধে মেরে অজ্ঞান করে ঘরের স্বর্ণালংকার ও টাকাপয়সা লুটপাট করে পালিয়ে যায়।

এদিকে, একই এলাকার মসজিদে তাবলীগ জামাতে আসা তিন দিনের জামাতের জিম্মাদার আব্দুর রফিক জানায়, আমরা মসজিদে মুয়াজ্জিনের কাছে ডাকাতির এমন দুর্ঘটনা শুনে সালাম মাষ্টারের বাসায় তাদের উদ্ধার করতে যাই, এসময় সালাম মাষ্টারকে রক্তাক্ত অবস্থায় দেখি তখন সে আমাদের বলে “ঘুম থেকে উঠে দেখি চার পাচঁ ডাকাত আমাকে ঘিরে রেখেছে” এরপর যা হবার তাই হলো।

স্থানীয় এক প্রত্যক্ষদর্শী যুবক জানায়, আমরা সামাদ মাষ্টারের বাসায় গেলে কাজের মেয়ে আমাদের বলে, ডাকাত ঘরের ভিতরে ঢুকে আমাকে অস্ত্র দিয়ে ভয় দেখায় তাই আমি ভয় পেয়ে আর এবিষয় কাউকে জানাইনি।

শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত জানা যায়, আহত সামাদ মাষ্টার, তার স্ত্রী শিখা আক্তার ও কাজের মেয়েকে আজ সকালে চিকিৎসারর জন্য ঢাকায় নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

উল্লেখ্য, সামাদ মাষ্টারের এক ছেলে ইতালীতে থাকে অপর জন ঢাকাতে ব্যবসা করে। বাসায় শুধু সামাদ মাষ্টার, তার স্ত্রী ও কাজের মেয়ে ছিল।