নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে নতুন গ্যাস জোনের সন্ধান

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম | অারিফ সবুজ (নোয়াখালী) প্রতিনিধি


নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ উপজেলার কুতুবপুর ইউনিয়নের কাজিরহাটে বেগমগঞ্জ গ্যাস ক্ষেত্রের নতুন তিন নম্বর তেল-গ্যাস অনুসন্ধান জোনে গ্যাসের সন্ধান পাওয়া গেছে।

সোমবার সকাল ৯টার দিকে পরীক্ষামূলকভাবে গ্যাস উত্তোলন শুরু করা হয়। ঈদের পরই এটিকে জাতীয় গ্রিডে সংযোগ করা যাবে বলে জানিয়েছে বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশন অ্যান্ড প্রোডাকশন কোম্পানি লিমিটেড (বাপেক্স)।

এ প্রকল্পের খনন অনুসন্ধান কর্মকর্তারা জানান, কূপটির তৃতীয় জোনে সকাল ৯টার দিকে গ্যাসের প্রবাহ দেখে সেখানে আগুণ দেয়া হয়। তবে আগামী দুইদিন কূপে গ্যাসের প্রবাহ রেকর্ড করে এখানে কী পরিমাণ গ্যাস রয়েছে এবং তা উত্তোলন কতটা লাভজনক হবে সেটা নিশ্চিত হওয়া যাবে। প্রাথমিক পর্যবেক্ষণের পর কূপটিতে গ্যাস মজুদ রয়েছে বলে পেট্রোবাংলাকে রিপোর্ট করা হয়। ওই রিপোর্টের প্রেক্ষিতে বাপেক্সের পরিচালনা পর্ষদ প্রকল্পটি খননের উদ্যোগ নেয়।

প্রকল্পের আওতায় কেয়ার্ন কর্তৃক চিহ্নিত এলাকায় ২-ডি সাইসমিক সার্ভে পরিচালনার মাধ্যমে আহরিত উপাত্ত ও নমুনা বিশ্লেষণ করে কূপ খননের স্থান চিহ্নিত করার পর প্রায় ৩ হাজার ৫০০ মিটার (সাড়ে তিন কিলোমিটার) গভীর অনুসন্ধান কূপ খনন এবং কূপ পরীক্ষণ কার্যক্রম সম্পন্ন করা হয়।

বাপেক্স আরও জানায়, প্রকল্পটি সফলভাবে সমাপ্ত হলে আগামী ঈদুল ফিতরের পর জাতীয় গ্রিডে গ্যাস সরবরাহ করা সম্ভব হবে। নোয়াখালীসহ দেশের শিল্প ও বাণিজ্যিক বিকাশে এ গ্যাস গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। পাশাপাশি নোয়াখালী, ফেনী, লক্ষ্মীপুরে বিরাজমান তীব্র গ্যাস সঙ্কট নিরসনে সহায়তা করবে বলেও আশা করা হচ্ছে।

বাপেক্সের ডিরেক্টর (অপারেশন) তোফায়েল আহম্মেদ জানান, এ মুহূর্তে কূপ থেকে গ্যাসের উৎপাদনের ফ্লো হচ্ছে ১৩.৫ মিলিয়ন। আস্তে আস্তে ১০ মিলিয়ন দিয়ে এর ফ্লো বাড়ানো হবে এবং এখান থেকে উত্তোলিত গ্যাস নোয়াখালী ও ফেনী লাইনে সরবরাহ করা হবে।

বাপেক্স প্রকল্প পরিচালক তোফায়েল উদ্দিন সিকদার জানান, ঈদের আগেই টেস্টিং কার্যক্রম শেষ করে তারপর স্থানীয় বাখরাবাদ গ্যাস লাইনে তা দেয়া হবে।

প্রসঙ্গত, ১৯৬৯ সালে নোয়াখালী বেগমগঞ্জে গ্যাস ও তেল প্রাপ্তির সম্ভাবনা দেখা দিলে কুতুবপুর ইউনিয়নের এনায়েতপুরে ২টি এবং কাশীপুরে ১টি কূপ খননের সিদ্ধান্ত হয়। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের হাত ধরে ১৯৭৪ সালে বেগমগঞ্জের এনায়েতপুরে গ্যাস ফিল্ডের কূপ খননের কাজ শুরু করে। পরে তা পরিত্যাক্ত ঘোষণা করা হয়।

পরিত্যক্ত ঘোষণার ৩৫ বছর পর ২০১৩ সালের ১১ নভেম্বর বর্তমান সরকার আবার এ গ্যাস ক্ষেত্র থেকে গ্যাস উত্তোলনের সিদ্ধান্ত নেয়। নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ গ্যাস ফিল্ডের ৩নং কূপ থেকে পরীক্ষামূলকভাবে গ্যাস উত্তোলন শুরু করে বাপেক্স । পরে তা জাতীয় গ্রিডে সরবরাহ করা হয়। কিন্তু টেকনিক্যাল সমস্যার কারণে গত বছর থেকে গ্যাস উত্তোলন বন্ধ রয়েছে।