পৃথিবীর সবচেয়ে দীর্ঘ বিরতিহীন বিমান পথ

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম। ডেস্ক রিপোর্ট


কাতার এবং কোয়ান্টাসকে পিছনে ফেলে সিঙ্গাপুর এয়ারলাইন্স হবে পৃথিবীর একটানা দীর্ঘ পথ চলা বিরতিহীন এয়ারলাইন্স। আগামী অক্টোবর মাস থেকে সিঙ্গাপুর থেকে আমেরিকার নিউজার্সিতে এই ফ্লাইট চলাচল করবে। কোন বিরতি ছাড়াই একটানা ১৯ ঘণ্টা আকাশে উড়বে এ ফ্লাইট।

বর্তমানে দীর্ঘতম ফ্লাইট হচ্ছে নিউজিল্যান্ডের অকল্যান্ড থেকে কাতারের দোহা পর্যন্ত। সাড়ে ১৭ ঘণ্টার এ ফ্লাইট পরিচালনা করে কাতার এয়ারওয়েজ। এর পরেই দীর্ঘতম ফ্লাইট হচ্ছে অস্ট্রেলিয়ার পার্থ থেকে লন্ডন পর্যন্ত। ১৭ ঘণ্টার এ ফ্লাইট পরিচালনা করে অস্ট্রেলিয়ার কোয়ান্টাস এয়ারলাইন্স।

সিঙ্গাপুর এয়ারলাইন্স নতুন কিছু এয়ারবাস ক্রয় করেছে। বিরতিহীন এ ফ্লাইট পরিচালনার খরচ কমে আসবে বলে আশা করা হচ্ছে। ফলে এটি বাণিজ্যিকভাবে লাভজনক হবে। এয়ারবাসের এ৩৫০-৯০০ মডেলের বিমানে দুটো ইঞ্জিন আছে। পুরনো বোয়িং ৭৭৭ মডেলের বিমানের পরিবর্তে এ মডেল এসেছে। এতে আগের তুলনায় ২৫ শতাংশ জ্বালানী খরচ কম হবে। এ৩৫০-৯০০ মডেলের এয়ারবাস তৈরি করা হয়েছে বিরতিহীন দীর্ঘ ফ্লাইটের জন্য।

নতুন মডেলের এয়ারবাস বর্তমানে পৃথিবীর অন্য যে কোন বিমানের তুলনায় বেশি সময় ধরে একটানা উড়তে পারে। এ বিমান একটানা ৯৭০০ নটিক্যাল মাইল উড়তে পারে, যার অর্থ হচ্ছে একটানা ২০ ঘন্টার বেশি আকাশে থাকতে পারবে। কারণ নতুন মডেলের বিমানে জ্বালানী ব্যবস্থার পরিবর্তন আনা হয়েছে। ফলে এখন অতিরিক্ত ২৪ হাজার লিটার তেল বহন করা সম্ভব হয়।

পুরনো বিমানের তুলনায় নতুন মডেলের বিমানের ছাদ উঁচু, জানালাগুলো বড় এবং বিমানের ভিতরে লাইটিং ব্যবস্থা এমনভাবে তৈরি করা হয়েছে যাতে ভ্রমণে ক্লান্তি না আসে। বিমানের ভিতরে আরামদায়ক করার জন্য ভাড়াও গুনতে হবে বেশি। প্রিমিয়াম ইকনমি ক্লাসের ভাড়া ১৬৪৯ মার্কিন ডলার। সাধারণ বিজনেস ক্লাসের ভাড়ার তুলনায় এটি প্রায় দ্বিগুণ। অনেক যাত্রী আছেন যারা বিরতিহীন ভ্রমণ করতে পছন্দ করেন।

এ বিমানে কোন ইকনমি ক্লাস নেই : এখানে কোন ইকনমি ক্লাস নেই। আছে শুধু বিজনেস ক্লাস এবং প্রিমিয়াম ইকনমি ক্লাস। সিঙ্গাপুর এয়ারলাইন্সের এ বিমানে যাত্রী ধারণক্ষমতা ১৬১। এর মধ্যে ৬৭টি আসন বিজনেস ক্লাসের এবং ৯৪টি আসন প্রিমিয়াম ইকনমি ক্লাসের। যদি ইকনমি ক্লাস থাকতো তাহলে আরো বেশি যাত্রী পরিবহন করা হতো। ফলে বিমানে ওজন বেড়ে যেত,” বলেন ফ্লাইট গ্লোবাল নামে একটি অনলাইন ম্যাগাজিনের এলিস টেলর। “সিঙ্গাপুর এয়ারলাইন্স এটা পরিষ্কার করেই বলেছে যে এটা প্রিমিয়াম সার্ভিস এবং এখানকার ভাড়া স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি হবে। ভাড়া বেশি হলেও যাত্রী পেতে সমস্যা হবে না বলে মনে করেন টেলর। সিঙ্গাপুর এয়ারলাইন্স এর আগে যখন এ ধরনের ফ্লাইট পরিচালনা করেছিল তখন বোঝা যাচ্ছিল যে আমেরিকা থেকে সিঙ্গাপুরে বিরতিহীন ফ্লাইটের চাহিদা আছে। কারণ ব্যবসা-বাণিজ্য বেড়েছে এবং বাজার বিস্তৃত হয়েছে।