ঝুঁকি নিয়ে অতিরিক্ত যাত্রী বোঝাই করে ছাড়ছে লঞ্চ

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম | ডেস্ক রিপোর্ট


এবার শুরু হয়েছে কর্মস্থলে ফিরতি মানুষদের দুর্ভোগের পালা। ঢাকাগামী লঞ্চগুলোতে তিল ধারণের ঠাঁই নেই। তবুও জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কর্মস্থলে ছুটছে লাখ লাখ মানুষ। পরিবার-পরিজনদের সঙ্গে ঈদের আনন্দ উপভোগ শেষে কর্মস্থলে ফিরতে গিয়ে এ ভোগান্তিতে পরতে হচ্ছে এসব মানুষদের।

এদিকে অতিরিক্ত যাত্রী বহনের অভিযোগে পটুয়াখালী-ঢাকাগামী এমভি কুয়াকাটা-১ লঞ্চকে ২৮ হাজার টাকা ও এমভি কাজল-৭ লঞ্চকে ২২ হাজার ৫০০ টাকা জরিমানা করেছে ভ্রাম্যমাণ আদালত। আজ শুক্রবার দুপুর পৌনে ১টার দিকে ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারক নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট অনুপ কুমার দাস এসব জরিমানা করেন।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট অনুপ কুমার দাস জানান, এ লঞ্চ দুটিতে অতিরিক্ত যাত্রীবহন করায় এ জরিমানা করা হয়েছে এবং এ অভিযান অব্যাহত থাকবে।

পটুয়াখালী নদীবন্দর সূত্রে জানা যায়, পটুয়াখালী থেকে আজ শুক্রবার ৮টি লঞ্চ ঢাকার উদ্দেশ্যে ছেড়ে গেছে। এসব লঞ্চগুলো হলো এমভি কাজল-৭, এমভি কুয়াকাটা-১, এমভি প্রিন্স অর আওলাদ-৭, এমভি সুন্দরবন-৭, এমভি এ আর খান-১, এমভি জামাল-৫, এমভি সত্তার খান-১ ও এমভি রাসেল-১। ঈদ শেষে কর্মস্থলে ফিরতি মানুষের চাপ থাকায় নির্ধারিত সময়ের ৪-৫ ঘণ্টা আগেই দুপুর ১২টার পর থেকেই লঞ্চগুলো ঢাকার উদ্দেশ্যে ছেড়ে গেছে। নির্ধারিত সময়ের ৪-৫ ঘণ্টা আগেই লঞ্চগুলো ছেড়ে যাওয়ায় ভোগান্তিতে পড়েন দূর-দূরান্ত থেকে আসা যাত্রীরা। এদের বেশিরভাগ লোকজনই ঘাটে লঞ্চ না পেয়ে চরম দুর্ভোগে পড়েন।

অনেক প্রতিকূলতার মধ্যেও নাড়ির টানে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে হাজার হাজার মানুষ পরিবারের সঙ্গে ঈদ করতে এসেছিল পটুয়াখালীসহ উপকূলীয় অঞ্চলে। ছুটির কদিন পরিবারের সঙ্গে আনন্দেই কেটেছে তাদের। কিন্তু কর্মস্থলে ফিরতে গিয়ে পরতে হয় চরম দুর্ভোগে। অতিরিক্ত লঞ্চ দেয়া সত্বেও কর্মস্থলে ফিরতি মানুষদের পড়তে হয় সীমাহীন দুর্ভোগে। এদিকে স্থানীয় প্রশাসন ও নদীবন্দর কর্তৃপক্ষ লঞ্চে অতিরিক্ত যাত্রী না ওঠার অনুরোধ করলেও কেউ মানছে না সে কথা। যে যেভাবে পারছে লঞ্চে উঠে যাচ্ছে। এসব লঞ্চগুলোতে অতিরিক্ত যাত্রী হওয়ার পর স্থানীয় প্রশাসন ঘাটে আর অবস্থান করতে দেয়নি এসব লঞ্চগুলোকে।

পটুয়াখালী নদীবন্দর কর্মকর্তা ও বিআইডব্লিউটিএর সহকারী পরিচালক খাজা সাদিকুর রহমান জানান, যাত্রীরা সুন্দরভাবে গন্তব্যের উদ্দেশ্যে যাত্রা করেছেন। কোন ধরনের সমস্যা হয়নি। যাত্রীদের চাপ থাকায় নির্ধারিত সময়ের আগেই লঞ্চগুলো ঢাকার উদ্দেশ্যে ছেড়ে গেছে এবং দুটি লঞ্চকে জরিমানা হিসেবে অর্থদণ্ড করা হয়েছে।


-আরটিভি অনলাইন