ভারতে গরুর গোশত বিক্রির অভিযোগে পুলিশের পিটুনিতে ফের মুসলিম যুবক নিহত

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম | আন্তর্জাতিক ডেস্ক 


সেলিম কুরেশির

ভারতের বিজেপিশাসিত উত্তর প্রদেশে গরুর গোশত বিক্রির অভিযোগে পুলিশের পিটুনিতে মুহাম্মদ সেলিম কুরেশি নামে এক মুসলিম যুবক নিহত হয়েছে।

উত্তর প্রদেশের বেরেলি জেলার ওই ঘটনায় পুলিশের এক কর্মকর্তা ও দু’জন কনস্টেবলকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে।নিহত গোশত ব্যবসায়ী সেলিম কুরেশির পরিবারের পক্ষ থেকে এ ব্যাপারে পুলিশের ডিজি’র কাছে অভিযোগ জানানো হয়েছে। ডিজি’র নির্দেশে ওই ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে।

সেলিম কুরেশির স্ত্রীর অভিযোগ, গত ১৪ জুন কঙ্কারটোলা থানার কর্মকর্তার নির্দেশে হরিশ চন্দ্র ও শ্রীপাল সিং নামে দুজন কনস্টেবল সেলিম কুরেশির খোঁজে তাদের বাসায় আসে। তারা জানায় সেলিমের বিরুদ্ধে গরুর গোশত বিক্রির অভিযোগ থাকায় তাকে থানায় যেতে হবে। কিন্তু ওই অভিযোগ অস্বীকার করলে পুলিশ তাকে এক বেসরকারি বিয়ে বাড়িতে নিয়ে গিয়ে বেদম মারধর করে। এরফলে তিনি গুরুতর আহত হন। তাকে প্রথমে স্থানীয় হাসপাতাল ও পরে দিল্লির ‘অল ইন্ডিয়া ইনস্টিটিউট অব মেডিকেল সায়েন্সেস’ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। অবশেষে আট দিনের মাথায় গত বৃহস্পতিবার তিনি মারা যান।

মুহাম্মদ সামীউদ্দিন

সম্প্রতি গরু জবাইয়ের গুজব রটনা করে উত্তর প্রদেশের হাপুড়ে কথিত গো-রক্ষকদের গণপিটুনিতে মুহাম্মদ কাশিম নামে এক মুসলিম যুবক নিহত হয়েছে। ওই ঘটনায় মুহাম্মদ সামীউদ্দিন (৬০) নামে এক বৃদ্ধ গুরুতর আহত অবস্থায় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। সেই ঘটনার জের না মিটতেই ফের উত্তর প্রদেশে গরুর গোশত বিক্রির অভিযোগকে কেন্দ্র করে হত্যার ঘটনা প্রকাশ্যে এল। তবে এবার স্বঘোষিত গো-রক্ষকদের পরিবর্তে পুলিশের বিরুদ্ধেই পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ ওঠায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।