মুসলিমদের উপর নির্যাতন কোনোভাবেই বরদাশত করা যায় না: কামরুজ্জামান

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম | আন্তর্জাতিক ডেস্ক 


মুহাম্মদ কামরুজামান (ফাইল ফটো)

‘সারা বাংলা সংখ্যালঘু যুব ফেডারেশন’-এর সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মদ কামরুজ্জামান আজ (শনিবার) সংবাদ মাধ্যমে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে বলেছেন, “উত্তর প্রদেশের বেরেলিতে মুহাম্মদ সেলিম নামে এক ব্যক্তিকে গরুর গোশত বিক্রির অভিযোগে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে যাওয়ার পরে পুলিশি হেফাজতে থাকা অবস্থায় তাকে যেভাবে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে, তা অত্যন্ত লজ্জাজনক। মোদি ও যোগির শাসনে মুসলিমদের উপরে এই নির্যাতন কোনোভাবেই বরদাশত করা যায় না। আমরা দোষী পুলিশ সদস্যদের বিরুদ্ধে অবিলম্বে আইনানুগ পদক্ষেপ নেয়ার দাবি জানাচ্ছি। তাদের চাকরি থেকে বরখাস্ত এবং দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে হবে যাতে আগামীদিনে পুলিশ যারা রক্ষক, সেই আইনের রক্ষকরা যাতে ভক্ষকের ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়ে সাধারণ মানুষকে নিরাপত্তা দেয়ার পরিবর্তে এ ধরণের নির্যাতনের ঘটনা দ্বিতীয়বার না ঘটাতে পারে।”

তিনি বলেন, “আমরা আশা করছি ভারতীয় দণ্ডবিধি অনুসারে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা রুজু হয়ে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।”

উল্লেখ্য, ভারতের বিজেপিশাসিত উত্তর প্রদেশে গরুর গোশত বিক্রির অভিযোগে পুলিশের পিটুনিতে মুহাম্মদ সেলিম কুরেশি নামে এক মুসলিম যুবক নিহত হয়েছে।

সেলিম কুরেশির স্ত্রীর অভিযোগ, গত ১৪ জুন কঙ্কারটোলা থানার কর্মকর্তার নির্দেশে হরিশ চন্দ্র ও শ্রীপাল সিং নামে দুজন কনস্টেবল সেলিম কুরেশির খোঁজে তাদের বাসায় আসে। তারা জানায় সেলিমের বিরুদ্ধে গরুর গোশত বিক্রির অভিযোগ থাকায় তাকে থানায় যেতে হবে। কিন্তু ওই অভিযোগ অস্বীকার করলে পুলিশ তাকে এক বেসরকারি বিয়ে বাড়িতে নিয়ে গিয়ে বেদম মারধর করে। এরফলে তিনি গুরুতর আহত হন। তাকে প্রথমে স্থানীয় হাসপাতাল ও পরে দিল্লির ‘অল ইন্ডিয়া ইনস্টিটিউট অব মেডিকেল সায়েন্সেস’ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। অবশেষে আট দিনের মাথায় গত বৃহস্পতিবার তিনি মারা যান।


উৎস, পার্সটুডে