ইসলামী ছাত্রসমাজের ঈদ পূনর্মিলনী ও প্রীতি সম্মেলন অনুষ্ঠিত

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম | নিজস্ব প্রতিনিধি


বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রসমাজের সাবেক কেন্দ্রীয় সভাপতি শিক্ষাবিদ ড. আ. ফ. ম খালিদ হোসেন বলেছেন, শোষনহীন, আদর্শ কল্যাণ রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠায় ইসলামী বিপ্লবের বিকল্প নেই। ঐতিহ্যবাহী ছাত্র সংগঠন বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রসমাজ প্রতিষ্ঠাকাল থেকে সেই মহান অভিপ্রায়ে ঈমানী চেতনাসমৃদ্ধ, যোগ্য, নিবেদিতপ্রাণ সৈনিক গড়ে তোলার প্রয়াস অব্যাহত রেখেছে। এর ধারাবাহিকতায় সকল বাধার প্রাচীর ডিঙ্গিয়ে অভিষ্ঠ লক্ষ্যপানে এগিয়ে যেতে হবে। হতাশ হওয়ার কোন কারণ নেই। এ সংগঠনের আদর্শিক কর্মীরাই ইসলামী বিপ্লব তরান্বিত করণে নবদিগন্ত উন্মেচন করবে ইনশাআল্লাহ।

তিনি আজ (১ জুলাই)  রাজধানীর ভোজন রেস্টুরেন্টে  বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রসমাজ আয়োজিত নবীন-প্রবীন ঈদ পূনর্মিলনী ও প্রীতি সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে একথা বলেন।

তিনি বলেন, পৃথিবীর আদর্শিক কোন আন্দোলন ব্যর্থ হয়না। ইসলামী ছাত্রসমাজ এ দেশের ছাত্রজনতার অধিকার আদায়ে যে সংগ্রাম করেছে তার সফলতাই এর জলন্ত প্রমান। কওমী মাদ্রাসা দাওরায়ে হাদীসের সনদের সরকারী স্বীকৃতি এ সংগঠনের ধারাবাহিক আন্দোলনের ফসল। এসব সাফল্যে অনুপ্রাণিত হয়ে গঠনমূলক প্রয়াস চালিয়ে যেতে হবে।

সংগঠনের কেন্দ্রীয় সভাপতি আব্দুল্লাহ আল-মাসউদ খানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান আলোচক ছিলেন সাবেক কেন্দ্রীয় সভাপতি মাওলানা আব্দুল খালেক নিজামী।

এছাড়াও আরো উপস্থিত ছিলেন, সাবেক কেন্দ্রীয় সভাপতি মাওলানা আব্দুল মাজেদ আতহারী, মাওলানা আজিজুল হক ইসলামাবাদী, ঢাকা মহানগর নেজামে ইসলাম পার্টির সভাপতি মাওলানা মুসা বিন ইজহার, ইসলামী ছাত্রসমাজের প্রাক্তন কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি মাওলানা ইলিয়াছ খান, সাবেক কেন্দ্রীয় নেতা এস. মোহাম্মদ হোসেন, মাওলানা আতিকুর রহমান ছিদ্দিকী, মুহাম্মদ আরশাদ, ইনসাফ সম্পাদক সাইয়েদ মাহফুজ খন্দকার, সবার খবর সম্পাদক মাওলানা আব্দুল গফফার।

অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন, সাবেক কেন্দ্রীয় নেতা মাওলানা মাতলুবুর রহমান, মাওলানা মুসাদ্দিকুল মওলা, মাওলানা রাশেদুল ইসলাম, ছাত্র জমিয়তের কেন্দ্রীয় সভাপতি নাসির উদ্দিন খান, ইসলামী ছাত্রসমাজের কেন্দ্রীয় মহাসচিব আতিকুর রহমান সিদ্দিকী, সহ-সভাপতি হাফেজ মুহাম্মদ আবুল মঞ্জুর, সংগঠন সচিব বিএম আমির জিহাদী, ঢাকা মহানগর সভাপতি এহতেশামুল হক সাখী, সাধারণ সম্পাদক হামিদুল হক শরীফ, চট্টগ্রাম মহানগর সভাপতি মুহাম্মদ ওয়াহিদুল্লাহ, সাধারণ সম্পাদক খান মাহমুদ ঈসা, ছাত্রনেতা ফয়েজ আহমদ, আসাদ উল্লাহ, মোস্তফা বিন হোসাইন, রফিকুল ইসলাম প্রমুখ।

শেষে বিশেষ মুনাজাত পরিচালনা করেন মুফাসসিরে কুরআন মাওলানা আব্দুল খালেক শরিয়তপুরী।