নতুন বেতন স্কেলে শ্রমিকদের সর্বনিম্ন বেতন ৮৩০০ এবং সর্বোচ্চ ১১২০০ টাকা নির্ধারণ

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম | নিজস্ব প্রতিনিধি


প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত মন্ত্রিসভা।

রাষ্ট্রীয় শিল্প প্রতিষ্ঠানে কর্মরত শ্রমিকদের বেতন-ভাতা দ্বিগুণ করার প্রস্তাব অনুমোদন করেছে মন্ত্রিসভা। আজ সোমবার ২ জুলাই দুপুরে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত মন্ত্রিসভায় এ আইনের খসড়াটি নীতিগতভাবে অনুমোদন করা হয়।

নতুন অনুমোদিত বেতন স্কেল অনুযায়ী শ্রমিকদের সর্বনিম্ন বেতন ৮ হাজার ৩০০ টাকা এবং সর্বোচ্চ বেতন নির্ধারণ করা হয়েছে ১১ হাজার ২০০ টাকা।

সভা শেষে সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ সভাকক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে মন্ত্রিপরিষদের সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম এসব কথা জানান।

সচিব বলেন, শ্রমিকদের বেতন বাড়ানোর জন্য, জাতীয় মজুরি ও উৎপাদনশীলতা কমিশন গঠন করা হয় ২০১৫ সালে।  মন্ত্রিসভার বৈঠকে রাষ্ট্রায়ত্ত শিল্প প্রতিষ্ঠানে কর্মরত শ্রমিকদের মজুরি-স্কেল ও ভাতা অনুমোদন এবং পণ্য উৎপাদনশীল রাষ্ট্রায়ত্ত শিল্প প্রতিষ্ঠান শ্রমিক আইন ২০১৮-এর খসড়ার নীতিগত অনুমোদন হয়েছে।

তিনি বলেন, এই আইনে কমিশন মজুরি-স্কেল ২০১০-এর তুলনায় ১০০ শতাংশ বৃদ্ধি এবং বার্ষিক ইনক্রিমেন্ট ৫ শতাংশ হারে বাড়ানোর প্রস্তাবটি উপস্থাপন করে শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়।  সুপারিশ অনুযায়ী, সর্বনিম্ন বেতন স্কেল ৪ হাজার ১৫০ টাকা থেকে বাড়িয়ে ৮ হাজার ৩০০ টাকা এবং সর্বোচ্চ বেতন স্কেল ৫ হাজার ৬০০ টাকা থেকে বাড়িয়ে ১১ হাজার ২০০ টাকার প্রস্তাব করা হয়েছিল। মজুরি কাঠামোর ২০১০ সালের মতো ২০১৫ সালে করা সুপারিশেও মূল মজুরির ৫০ শতাংশ হারে বাড়ি ভাড়া, চিকিৎসা ভাতা ১ হাজার ৫০০ টাকা, যাতায়াত ভাতা ২০০ টাকা, ধোলাই ভাতা ১০০ টাকা, উৎসব ভাতা দুই মাসের মূল বেতনের সমপরিমাণ, ছুটি নগদায়নে বাৎসরিক অর্জিত ছুটির ৫০ শতাংশ, ফান্ড মূল বেতনের ১০ শতাংশ, টিফিন ভাতা ২০০ টাকা, ২০ শতাংশ হারে নববর্ষ ভাতা, ঝুঁকি ভাতা ৪০০ টাকা, শিক্ষা সহায়তা ভাতা ৫০০ টাকা রাখা হয়েছে। আর নারী শ্রমিকদের মাতৃত্বকালীন ছুটি ৬ মাস করা হয়েছে।

সচিব জানান, এই আইনটি কার্যকর হলে শ্রমিকরা ২০১৫ সালের ১ জুলাই থেকে হিসাব করে তাদের বর্ধিত বেতন পাবেন। এ ছাড়া বকেয়া ভাতাগুলো পাবেন ২০১৬ সালের ১ জুলাই থেকে হিসাব করে। বৈঠকে শ্রমিকদের পদ অনুযায়ী ১৬ ক্যাটাগরিতে এই বেতন-ভাতা বৃদ্ধির প্রস্তাব করা হয়েছে।