আমার দুঃখ একটাই জিয়ার বিচার করতে পারলাম না : প্রধানমন্ত্রী (ভিডিও)

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম | নিজস্ব প্রতিনিধি


বঙ্গবন্ধুকে হত্যায় সাবেক রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানকে দায়ী করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, জিয়ার যে পরিণতি হয়েছিল তা তার অবধারিত। তবে, আমার দুঃখ একটাই তার বিচারটা আমি করতে পারলাম না। তার আগেই সে মরে গেলো।বঙ্গবন্ধুর সব খুনিদের বিচার এবং অনেককে শাস্তি প্রদান করা হলেও জিয়া আগেই ঘটনাচক্রে নিহত হওয়ায় তাকে এই হত্যার বিচারের মুখোমুখি করা যায়নি।

আজ ১ আগস্ট বুধবার ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে আগস্ট উপলক্ষে বাংলাদেশ কৃষক লীগ আয়োজিত রক্তদান কর্মসূচির উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী এ কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, জিয়াউর রহমান এই হত্যার সঙ্গে সম্পূর্ণ জড়িত ছিল বলেই বঙ্গবন্ধুর খুনিদের দূতাবাসে চাকুরি দিয়ে পুরষ্কৃত করে। আমাকে আর রেহানাকে দেশে আসতে দেয়নি। রেহানার পাসপোর্ট আটকে দেওয়া হয়েছিল। বাংলাদেশের ইতিহাস থেকে জাতির পিতার নাম মুছে ফেলা হয়েছিল। বিকৃত ইতিহাস এদেশের মানুষকে শোনানো হয়েছিল। কিন্তু ইতিহাস মুছে ফেলা যায় না। সত্যকে চাপিয়ে রাখা যায় না।

শেখ হাসিনা বলেন, আগস্ট শোকের মাস। এ মাসে আমি হারিয়েছি আমার বাবা মাসহ পরিবারের সব সদস্যদের। কিন্তু জাতি হারিয়েছে দেশের অভিভাবককে। শেখ মুজিব আজ বেঁচে থাকলে অনেক আগেই বাংলাদেশ উন্নত দেশে পরিণত হত। জাতির পিতাকে হত্যা করা হলো তার অপরাধ কি ছিল? যারা স্বাধীনতা মেনে নিতে পারেনি, যারা ঘটনা চক্রে মুক্তিযুদ্ধে গিয়েছিলেন কিন্তু মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বিশ্বাস করতেন না সে সব কুলাঙ্গাররা বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করেছে। তারা ভেবেছিল মুজিব না থাকলে এ দেশ আবার পাকিস্তানিদের করায়ত্ত হবে।

জনগণের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে তিনি বলেন, ভোট দিয়ে সরকার গঠনের সুযোগ দিয়েছিল বলেই বঙ্গবন্ধুর খুনিদের বিচার করেছি। হত্যার বিচার করে দেশকে কলঙ্কমুক্ত করেছি। বিচার করতে গিয়ে অনেক হুমকি, অনেক ধমকি, অনেক কিছুই আমাকে মোকাবিলা করতে হয়েছে। কিন্তু অন্যায়কে কখনও প্রশ্রয় দেওয়া যায় না। এখনও কিছু খুনি লুকিয়ে রয়েছে বিদেশে। আমরা চেষ্টা করছি তাদের ফিরিয়ে আনতে।

বঙ্গবন্ধু কন্যা বলেন, আমার ওপর বার বার আঘাত এসেছে। আবারও হয়তো আসবে, কিন্তু সেগুলো আমি পরোয়া করি না। মৃত্যুকে আমি কখনও পরোয়া করি না। এটুকু শুধু মনে করি আমি বেঁচে তো আছি, বাবার অধরা কাজগুলো সম্পন্ন করতে। মানুষের মুখে হাসি ফোটাতে। দেশের মানুষের ভাগ্য পরিবর্তন করতে। দেশকে বিশ্বের মর্যাদার আসনে অধিষ্ঠিত করতে। অন্তত বলতে পারি আজকে বাংলাদেশ বিশ্বে মর্যাদার আসন পেয়েছে। আজকে যখন দেশের জন্য একটি অর্জন করি, শুধু এটুকু মনে হয় যে, আমার বাবা-মা বেহেস্ত থেকে নিশ্চয় দেখতে পান, তাঁর দেশ আজকে এগিয়ে যাচ্ছে। মর্যাদা ফিরে পেয়েছে। এটা দেখে নিশ্চয়ই আমার আব্বা-মার আত্মা শান্তি পায়। আমার বিশ্বাস এই দেশকে আমরা এগিয়ে নিতে পারবো।

আমার দুঃখ একটাই জিয়ার বিচার করতে পারলাম না : প্রধানমন্ত্রী

আমার দুঃখ একটাই জিয়ার বিচার করতে পারলাম না : প্রধানমন্ত্রী ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম | নিজস্ব প্রতিনিধিবঙ্গবন্ধুকে হত্যায় জিয়াউর রহমানকে দায়ী করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, জিয়ার যে পরিণতি হয়েছিল তা তার অবধারিত। তবে, আমার দুঃখ একটাই তার বিচারটা আমি করতে পারলাম না। তার আগেই সে মরে গেলো।বঙ্গবন্ধুর সব খুনিদের বিচার এবং অনেককে শাস্তি প্রদান করা হলেও জিয়া আগেই ঘটনাচক্রে নিহত হওয়ায় তাকে এই হত্যার বিচারের মুখোমুখি করা যায়নি।আজ ১ আগস্ট বুধবার ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে আগস্ট উপলক্ষে বাংলাদেশ কৃষক লীগ আয়োজিত রক্তদান কর্মসূচির উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী এ কথা বলেন।প্রধানমন্ত্রী বলেন, জিয়াউর রহমান এই হত্যার সঙ্গে সম্পূর্ণ জড়িত ছিল বলেই বঙ্গবন্ধুর খুনিদের দূতাবাসে চাকুরি দিয়ে পুরষ্কৃত করে। আমাকে আর রেহানাকে দেশে আসতে দেয়নি। রেহানার পাসপোর্ট আটকে দেওয়া হয়েছিল। বাংলাদেশের ইতিহাস থেকে জাতির পিতার নাম মুছে ফেলা হয়েছিল। বিকৃত ইতিহাস এদেশের মানুষকে শোনানো হয়েছিল। কিন্তু ইতিহাস মুছে ফেলা যায় না। সত্যকে চাপিয়ে রাখা যায় না।শেখ হাসিনা বলেন, আগস্ট শোকের মাস। এ মাসে আমি হারিয়েছি আমার বাবা মাসহ পরিবারের সব সদস্যদের। কিন্তু জাতি হারিয়েছে দেশের অভিভাবককে। শেখ মুজিব আজ বেঁচে থাকলে অনেক আগেই বাংলাদেশ উন্নত দেশে পরিণত হত। জাতির পিতাকে হত্যা করা হলো তার অপরাধ কি ছিল? যারা স্বাধীনতা মেনে নিতে পারেনি, যারা ঘটনা চক্রে মুক্তিযুদ্ধে গিয়েছিলেন কিন্তু মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বিশ্বাস করতেন না সে সব কুলাঙ্গাররা বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করেছে। তারা ভেবেছিল মুজিব না থাকলে এ দেশ আবার পাকিস্তানিদের করায়ত্ত হবে।জনগণের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে তিনি বলেন, ভোট দিয়ে সরকার গঠনের সুযোগ দিয়েছিল বলেই বঙ্গবন্ধুর খুনিদের বিচার করেছি। হত্যার বিচার করে দেশকে কলঙ্কমুক্ত করেছি। বিচার করতে গিয়ে অনেক হুমকি, অনেক ধমকি, অনেক কিছুই আমাকে মোকাবিলা করতে হয়েছে। কিন্তু অন্যায়কে কখনও প্রশ্রয় দেওয়া যায় না। এখনও কিছু খুনি লুকিয়ে রয়েছে বিদেশে। আমরা চেষ্টা করছি তাদের ফিরিয়ে আনতে।বঙ্গবন্ধু কন্যা বলেন, আমার ওপর বার বার আঘাত এসেছে। আবারও হয়তো আসবে, কিন্তু সেগুলো আমি পরোয়া করি না। মৃত্যুকে আমি কখনও পরোয়া করি না। এটুকু শুধু মনে করি আমি বেঁচে তো আছি, বাবার অধরা কাজগুলো সম্পন্ন করতে। মানুষের মুখে হাসি ফোটাতে। দেশের মানুষের ভাগ্য পরিবর্তন করতে। দেশকে বিশ্বের মর্যাদার আসনে অধিষ্ঠিত করতে। অন্তত বলতে পারি আজকে বাংলাদেশ বিশ্বে মর্যাদার আসন পেয়েছে। আজকে যখন দেশের জন্য একটি অর্জন করি, শুধু এটুকু মনে হয় যে, আমার বাবা-মা বেহেস্ত থেকে নিশ্চয় দেখতে পান, তাঁর দেশ আজকে এগিয়ে যাচ্ছে। মর্যাদা ফিরে পেয়েছে। এটা দেখে নিশ্চয়ই আমার আব্বা-মার আত্মা শান্তি পায়। আমার বিশ্বাস এই দেশকে আমরা এগিয়ে নিতে পারবো।

Posted by Insaf Tv on Wednesday, August 1, 2018