জানুয়ারি ২৪, ২০১৭

বিরোধীদের সঙ্গে আলোচনা করেই মৃত্যুদণ্ডপুনর্বহালের সিদ্ধান্ত নেয়া হবে : এরদোগান

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম |

রজব তৈয়ব এরদোগান

ব্যর্থ সামরিক অভ্যুত্থানের পর তুরস্ক সর্বোচ্চ শাস্তি হিসেবে মৃত্যুদণ্ডপুনর্বহাল করতে পারে। যদি তা-ই করে তাহলে ইউরোপীয় ইউনিয়নের সদস্যপদ নিয়ে তারা জটিল এক পরিস্থিতির শিকার হতে পারে। কারণ, ২০০৪ সালে ইউরোপীয় ইউনিয়নের সদস্যপদ পাওয়ার জন্য দেশটি মৃত্যুদণ্ডকে বাতিল করেছিল। কিন্তু ব্যর্থ অভ্যুত্থানের পর ওই শাস্তি পুনর্বহাল হচ্ছে বলেই মনে হয়।

কারণ, রোববার ইস্তাম্বুলে বিপুল সংখ্যক জনতার সমাবেশে তিনি বলেছেন, গণতন্ত্রে সিদ্ধান্ত নেয়া হয় জনগণের চাওয়া পাওয়ার ওপর ভিত্তি করে। আমি মনে করি আমার সরকার এ বিষয়ে বিরোধীদের সঙ্গে কথা বলবে এবং তারপরই সিদ্ধান্ত নেবে। আমরা এ শাস্তিকে আর বিলম্বিত করতে পারি না। কারণ, যারা অভ্যুত্থান চেষ্টা করেছিল তাদেরকে চড়া মূল্য দিতে হবে। অভ্যুত্থান প্রতিরোধ করতে গিয়ে যেসব মানুষ নিহত হয়েছেন তাদের দাফন অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে তিনি এসব কথা বলেন। ওই অনুষ্ঠানে নিহতদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে গিয়ে প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোগান কেঁদে ফেলেন। অনলাইন আল জাজিরা লিখেছে, তুরস্কে যদি মৃত্যুদণ্ড পুনর্বহাল হয় তাহলে তাতে ইউরোপীয় ইউনিয়ন ও আঙ্কারার মধ্যে সঙ্কট সৃষ্টি হতে পারে। এরই মধ্যে তুরস্কের সদস্যপদের বিষয়ে আলোচনা থমকে আছে। তবে অভ্যুত্থান চেষ্টা পরবর্তী পদক্ষেপে মিত্রদের সঙ্গে সম্পর্কে তেমন কোন প্রভাব ফেলবে না বলে মনে করেন তুরস্কের সাবেক প্রধানমন্ত্রী আহমেদ দাভুতোগলু।

তিনি বলেছেন, সবার আগে আমরা সব দেশ ও সব নেতাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি তুরস্ককে সমর্থন দেয়ার জন্য। তবে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে অবশ্যই বুঝতে হবে যে, তুরস্ক আরেকটি সন্ত্রাসী সংগঠনের মোকাবিলা করছে, যারা আমাদের যুদ্ধ বিমান, আমাদের অস্ত্র আমাদের জনগণের বিরুদ্ধে ব্যবহার করেছে।