জানুয়ারি ২২, ২০১৭

পৃথিবীর একমাত্র কুরআনের হাফেজ রাষ্ট্রপ্রধান এরদোগান

পৃথিবীর একমাত্র কুরআনের হাফেজ রাষ্ট্রপ্রধান এরদোগান

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম |

Erdogan-presents-Quran01পৃথিবীতে এই সময়ের আলোচিত প্রেসিডেন্ট রজব তৈয়ব এরদোগান। বিশেষত গত শুক্রবার রাতে ঘটে যাওয়া ব্যর্থ সেনা অভ্যুথানের মধ্য দিয়ে সারা দুনিয়ায় আবারো আলোচনায় এসেছেন এরদোগান। যার ডাকে হাজার হাজার দেশ প্রেমিক জনতা রাস্তায় নেমে আসে এমনকি ট্যাঙ্কের সামনে সেনা অভ্যুত্থান রুখতে জীবন বাজি রেখেছেন।

তুরস্কের এই প্রেসিডেন্টের অনেক বিশেষণ জানা থাকলেও তিনি যে ৩০ পারা কুরআনের হাফেজ তা জানেন না অনেকেই।

শুধু তাই নয়, বর্তমানে পৃথিবীতে তিনি একমাত্র প্রেসিডেন্ট যিনি একই সঙ্গে প্রেসিডেন্ট এবং পবিত্র কুরআনে হাফেজ।

এখনো পার্লামেন্টে মাঝে মাঝেই তিনি নামাজের ইমামতি করেন এবং তুরস্কে অনেক মসজিদে তিনি ইমামতি করেছেন। প্রেসিডেন্টের উদ্যোগে প্রতি বছর কুরআন প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয় এবং এতে মুসলিম দেশের অনেক হাফেজই অংশ গ্রহণ করে থাকে।

ব্যর্থ সেনা অভ্যুত্থানের পর দেশটির জনতা দাবি জানাচ্ছে পুরোপুরি তুরস্ককে ইসলামি রাষ্ট্র বানাতে। এরদোগান জনগণের চাওয়ার প্রতি ইঙ্গিত করেছেন। এক বক্তব্যে বলেছেন, তুরস্ক আল্লাহর পক্ষ থেকে মানুষের প্রতি দান। সেনাদের অভ্যুত্থান তিনিই ব্যর্থ করে দিয়েছেন।

উল্লেখ্য, তুরস্কে ব্যর্থ অভ্যুত্থান চেষ্টার সময় প্রেসিডেন্ট রজব তৈয়ব এরদোগানকে হত্যা করার জন্য তিনটি সামরিক হেলিকপ্টার পাঠানো হয়েছিল। তিনি তখন দক্ষিণ-পশ্চিম তুরস্কের মারমারায় অবকাশ যাপন করছিলেন। সেখানেই তাকে হত্যা কিংবা বন্দি করার জন্য পাঠানো হয়েছিল হেলিকপ্টারগুলো। এ তথ্য জানিয়েছে দেশটির দৈনিক হুরিয়াত এবং আল জাজিরা।

ব্যর্থ অভ্যুত্থানের বিভিন্ন দিক বিশ্লেষণ করে হুরিয়াতের খবরে বলা হয়, ফার্স্ট আর্মির কমান্ডার উমিত দান্দার শুক্রবার দিবাগত রাতে (অভ্যুত্থানের এক ঘণ্টা আগে) এরদোগানের সাথে যোগাযোগ করে অভ্যুত্থান শুরু হওয়ার বিষয়টি জানাতে পেরেছিলেন। এই খবর পেয়েই এরদোগান হোটেল ত্যাগ করেছিলেন। বিদ্রোহী সৈন্যরা যখন সেখানে পৌঁছে, তার আগেই তিনি সরে পড়েছিলেন।


সূত্র : আল হায়াত