চীনে মসজিদ ভাঙা রুখে দিতে আন্দোলনে নেমেছে মুসলিমরা (ভিডিও)

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম | সামীউর রহমান শামীম


চীনে মসজিদ ভাঙা রুখে দিতে আন্দোলনে নেমেছে মুসলিমরা (ভিডিও)

চীনে মসজিদ ভাঙা রুখে দিতে আন্দোলনে নেমেছে মুসলিমরা (ভিডিও)ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম | সামীউর রহমান শামীমচীনে সদ্যনির্মিত একটি মসজিদ ভেঙে ফেলার ঘোষণার প্রতবাদে দেশটির উত্তরপশ্চিম অঞ্চলের ওয়েজউ শহরে অবস্থিত সুউচ্চ কেন্দ্রীয় মসজিদে হাজার হাজার মুসলিম সমবেত হয়েছেন। মসজিদটি রক্ষা করতে সেখনে মুসলমানরা বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করেছে।ওয়েজউর বাসিন্দারা সরকার মসজিদ উচ্ছেদের পরিকল্পনা করছে এমন সংবাদ পেয়ে সতর্ক অবস্থান নিয়েছে।মসজিদটির নির্মাণকাজ গত বছরই সমাপ্ত হয়েছে। মসজিদটিতে একত্রে প্রায় ৩০ হাজার মুসল্লি নামায আদায় করতে পারে এবং এটি সাধারণ মুসল্লিদের অর্থে নির্মিত।”ইন্টারনেটে প্রাপ্ত ছবিতে দেখা যায়, মসজিদটি সাদা, প্রাসাদের মতো উঁচু স্তম্ভ, লম্বাকৃতির জানালা এবং সামনে চীনের জাতীয় পতাকা।দেশটি দাপ্তরিকভাবে কিংবা শহরের সরকারি কর্মকর্তারা এই ব্যাপারে কোনো প্রকার মন্তব্য করতে রাজি হননি।৭২ বছর বয়সী বৃদ্ধ মা সেংমিং বৃহস্পতিবার সকাল থেকে শুক্রবার বিকেল পর্যন্ত এই প্রতিবাদ কর্মসূচিতে অংশ নেন। তিনি বলেন, “সমবেত লোকেরা অন্তরে ব্যথা নিয়ে এখানে অবস্থান করেছে। অনেকে চোখের পানি আটকে রাখতে পারছে না। আমরা বুঝতে পারছি না, এমন চক্রান্ত কেন হচ্ছে।”মা সেংমিং জানান, আন্দোলনকারীরা বৃহস্পতিবার রাত থেকে শুক্রবার পর্যন্ত অবস্থান করেন। দু-দফায় স্থানীয় সরকারি কর্মকর্তা এসে তাদের বাড়ি ফিরতে উৎসাহ দেন। শতাধিক পুলিশ মসজিদ ঘিরে রাখলেও আন্দোলনকারীদের ঠেকানোর কোনো চেষ্টা করেনি।চীনের রাষ্ট্রপতি শি জিনপিং-এর আমলে, কমিউনিস্ট পার্টি কঠোর অবস্থান নিয়ে ধর্মীয় কাজে নানাবিধ বাধার সৃষ্টি করে। দেশটির ২ কোটি (২০ মিলিয়ন) মুসলিম সংখ্যালঘুর মৌলিক বিশ্বাস ও কর্মকাণ্ডে দমনীয় আচরণ করে।দেশটির উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের শিনচিয়াং শত শত উইঘুর ও কাজাখ মুসলিম সংখ্যালঘুদের নির্বিচারে আটক করা হয়। তাদের জোরপূর্বক ইসলামের বিরুদ্ধে বলতে এবং কমিউনিস্ট পার্টির পক্ষে স্লোগান দিতে বাধ্য করা হয়।হুই মুসলিম সম্প্রদায় সাংস্কৃতিকভাবে সংখ্যাগুরু হ্যান সম্প্রদায়ের নিকটবর্তী। ভাষাগত দিক দিয়েও তারা মান্দারিন ভাষার মূল ধারায় কথা বলে।কিন্তু সাম্প্রতিক প্রতিবেদনে দেখা গেছে, কর্তৃপক্ষ হুই সম্প্রদায় এবং আরবি গোত্রগুলোর ওপর দমন-পীড়ন চালাচ্ছে। মুসলিম শিশুদের ধর্মীয় কাজে অংশগ্রহণ করানোর ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করছে।উৎস, আলজাজিরা, দ্যা ইন্ডিপেন্ডেন্ট

Posted by Insaf Tv on Friday, August 10, 2018

চীনে সদ্যনির্মিত একটি মসজিদ ভেঙে ফেলার ঘোষণার প্রতবাদে দেশটির উত্তরপশ্চিম অঞ্চলের ওয়েইজু শহরে অবস্থিত সুউচ্চ কেন্দ্রীয় মসজিদে হাজার হাজার মুসলিম সমবেত হয়েছেন। মসজিদটি রক্ষা করতে সেখানে মুসলমানরা বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করেছে।

ওয়েইজুর বাসিন্দারা সরকার মসজিদ উচ্ছেদের পরিকল্পনা করছে এমন সংবাদ পেয়ে সতর্ক অবস্থান নিয়েছে।

মসজিদটির নির্মাণকাজ গত বছরই সমাপ্ত হয়েছে। মসজিদটিতে একত্রে প্রায় ৩০ হাজার মুসল্লি নামায আদায় করতে পারে এবং এটি সাধারণ মুসল্লিদের অর্থে নির্মিত।”

ইন্টারনেটে প্রাপ্ত ভিডিওতে দেখা যায়, মসজিদটি সাদা, প্রাসাদের মতো উঁচু স্তম্ভ, লম্বাকৃতির জানালা এবং সামনে চীনের জাতীয় পতাকা।

দেশটি দাপ্তরিকভাবে কিংবা শহরের সরকারি কর্মকর্তারা এই ব্যাপারে কোনো প্রকার মন্তব্য করতে রাজি হননি।

৭২ বছর বয়সী বৃদ্ধ মা সেংমিং বৃহস্পতিবার সকাল থেকে শুক্রবার বিকেল পর্যন্ত এই প্রতিবাদ কর্মসূচিতে অংশ নেন। তিনি বলেন, “সমবেত লোকেরা অন্তরে ব্যথা নিয়ে এখানে অবস্থান করেছে। অনেকে চোখের পানি আটকে রাখতে পারছে না। আমরা বুঝতে পারছি না, এমন চক্রান্ত কেন হচ্ছে।”

মা সেংমিং জানান, আন্দোলনকারীরা বৃহস্পতিবার রাত থেকে শুক্রবার পর্যন্ত অবস্থান করেন। দু-দফায় স্থানীয় সরকারি কর্মকর্তা এসে তাদের বাড়ি ফিরতে উৎসাহ দেন। শতাধিক পুলিশ মসজিদ ঘিরে রাখলেও আন্দোলনকারীদের ঠেকানোর কোনো চেষ্টা করেনি।

চীনের রাষ্ট্রপতি শি জিনপিং-এর আমলে, কমিউনিস্ট পার্টি কঠোর অবস্থান নিয়ে ধর্মীয় কাজে নানাবিধ বাধার সৃষ্টি করে। দেশটির ২ কোটি (২০ মিলিয়ন) মুসলিম সংখ্যালঘুর মৌলিক বিশ্বাস ও কর্মকাণ্ডে দমনীয় আচরণ করে।

দেশটির উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের শিনচিয়াং শত শত উইঘুর ও কাজাখ মুসলিম সংখ্যালঘুদের নির্বিচারে আটক করা হয়। তাদের জোরপূর্বক ইসলামের বিরুদ্ধে বলতে এবং কমিউনিস্ট পার্টির পক্ষে স্লোগান দিতে বাধ্য করা হয়।

হুই মুসলিম সম্প্রদায় সাংস্কৃতিকভাবে সংখ্যাগুরু হ্যান সম্প্রদায়ের নিকটবর্তী। ভাষাগত দিক দিয়েও তারা মান্দারিন ভাষার মূল ধারায় কথা বলে।

কিন্তু সাম্প্রতিক প্রতিবেদনে দেখা গেছে, কর্তৃপক্ষ হুই সম্প্রদায় এবং আরবি গোত্রগুলোর ওপর দমন-পীড়ন চালাচ্ছে। মুসলিম শিশুদের ধর্মীয় কাজে অংশগ্রহণ করানোর ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করছে।

ওয়েইজু গ্র্যান্ড মসজিদ

উৎস, আলজাজিরা, দ্যা ইন্ডিপেন্ডেন্ট