মার্চ ২৬, ২০১৭

খুতবায় নজরদারী না করে পাঠ্যসূচি সংশোধন করুন : আল্লামা কাসেমী

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম |

138042_16ইসলাম ধর্মে জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসবাদের কোনো জায়গা নেই বলে মন্তব্য করেছেন জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের মহাসচিব ও হেফাজতে ইসলাম ঢাকা মহানগরীর আহবায়ক আল্লামা নূর হোসাইন কাসেমী।

তিনি বলেন, সার্বজনীন ও চিরন্তন এ ধর্মে এমন কোনো বিষয় নেই যেখানে কেউ প্রশ্ন তুলতে পারে। আমরা অতীতেও নাশকতামূলক ও সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের বিরুদ্ধে সোচ্চার ছিলাম, এখনো আছি এবং ভবিষ্যতেও থাকবো। ইসলাম সম্পর্কে সম্যক ধারণা না থাকার ফলেই কিছুসংখ্যক যুবক বিপদগামী হচ্ছে এবং চিন্তা-চেতনা সঠিক না হওয়ায় এ সমস্যার তৈরি হয়েছে। আর চিন্তা-চেতনা সঠিক হওয়ার উৎসই হচ্ছে কোরআন সুন্নাহর শিক্ষা। সে জন্য জুমার খুতবায় অপ্রয়োজনীয় নজরদারী না করে সবার আগে বর্তমান পাঠ্যসূচি সংশোধন করুন।

আজ শুক্রবার বাদ জুমা বায়তুল মোকাররমের উত্তর গেটে জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ ঢাকা মহানগর আয়োজিত সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ বিরোধী বিক্ষোভ মিছিল পূর্ব প্রতিবাদ সমাবেশে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যে তিনি একথা বলেন।

আল্লামা কাসেমী আরো বলেন, প্রধানমন্ত্রী সন্তানদেরকে ধর্মীয় শিক্ষা দেয়ার আহবান জানিয়েছেন। আমরা তার এই আহবানকে স্বাগত জানাই। কিন্তু বর্তমান পাঠ্যপুস্তক দিয়ে সময়োপযোগী এই আহবানে সাড়া দেয়া সম্ভব নয়। সঙ্গত কারণে শিক্ষার সর্বস্তরে আমরা ইসলামী শিক্ষাকে বাধ্যতামূলক করার আহবান জানাচ্ছি এবং এটা সময়েরও দাবি।

jomiotজমিয়তের কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব ও ঢাকা মহানগর সভাপতি মাওলানা মঞ্জুরুল ইসলাম আফেন্দীর সভাপতিত্বে প্রতিবাদ সমাবেশে আরো বক্তব্য রাখেন, কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি মাওলানা জহিরুল হক ভূঁইয়া, সহ-সভাপতি মাওলানা আব্দুর রব ইউসুফী, যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা বাহাউদ্দীন জাকারিয়া, মাওলানা তাফাজ্জল হক আজীজ, মাওলানা ফজলুল করীম কাসেমী, মাওলানা মোহাম্মাদুল্লাহ জামী, ঢাকা মহানগর জমিয়তের সহ-সভাপতি মাওলানা আব্দুল কুদ্দুস, মাওলানা শরীফ মুহাম্মাদ ইয়াহইয়া, মাওলানা হামেদ জহিরী, মহানগর জমিয়তের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মুফতী বশীরুল হাসান, মুফতী মাহবুবুল আলম, মাওলানা হেদায়েতুল ইসলাম, মাওলানা নূর মোহাম্মাদ, মাওলানা ওমর আলী, যুব জমিয়ত সভাপতি মাওলানা শরফুদ্দীন ইয়াহইয়া কাসেমী, ছাত্র জমিয়ত সভাপতি মুফতী নাসির উদ্দীন, সেক্রেটারী ওমর ফারুক, যুব জমিয়ত ঢাকা মহানগর সভাপতি মুফতী জাবের কাসেমী, সেক্রেটারী তোফায়েল গাজালী, ছাত্র নেতা বুরহানুদ্দীন ও সুহাইল প্রমুখ।

সভাপতির বক্তব্যে মাওলানা মঞ্জুরুল ইসলাম আফেন্দী বলেন, ইসলামের ইমেজ ক্ষুণ্ণ করে সারা দুনিয়ায় ইসলামের অগ্রযাত্রাকে প্রতিহত করতে গুলশান ও শোলাকিয়ায় হামলা চালানো হয়েছে। এসব সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে যারাই জড়িত তারাই ইসলাম ও মানবতার শত্রু। এদেশের সব শিক্ষার্থী যদি ইসলামের মর্মবাণী ভালোভাবে অনুধাবন করতে পারে তাহলে তাদেরকে কেউ আর মিস গাইড করতে পারবে না। সে জন্য সর্ব প্রথম শিক্ষাব্যবস্থাকে ঢেলে সাজাতে হবে।

তিনি বলেন, এত দিন যারা কওমি মাদরাসার দিকে আঙ্গুল তুলছিলেন তাদের উদ্দেশ্যটা আজ মানুষ জেনে গেছে। কোনো প্রকার অপপ্রচারে কান না দিয়ে নীতি-আদর্শের ভিত্তিতে জাতি গঠনে সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে।