মার্কিন সেনাঘাঁটির দুটি যুদ্ধবিমান এরদোগানকে হত্যার চেষ্টা করেছিলো

এরদোগানগত ১৫ জুলাই তুরস্কের স্বল্পসংখ্যক বিপদগামী সেনাদের ব্যর্থ অভ্যুত্থানের সাথে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের হাত ছিল; এমন অভিযোগ আএও জোরদার হচ্ছে। জানা গেছে, অভ্যুত্থানে ব্যবহৃত দুটি এফ-১৬ যুদ্ধবিমান তুরস্কের মার্কিন সেনাঘাঁটি থেকেই উড়েছিল। এছাড়া আকাশে তাদের জ্বালানি সরবরাহ করেছিল ওই ঘাঁটিরই আরো দুটি বিমান।

প্রেসিডেন্ট রজব তৈয়ব এরদোগান যখন কৃষ্ণসাগরীয় অবকাশ কেন্দ্র থেকে ইস্তাম্বুল ফিরছিলেন, তখন এসব বিমান তাকে তাক করেছিল।

এছাড়া আঙ্কারায় আকাশে উড়ে এরদোগানের সমর্থকদের মধ্যে ভীতির সৃষ্টি করছিল।

শুধু তা-ই নয়, এফ-১৬ দুটির একটি চালাচ্ছিলেন রুশ বিমান ভূপাতিত করা সেই পাইলট। তুরস্কের অভিযোগ, মার্কিন ওই সামরিক ঘাঁটির উচ্চ প্রযুক্তির যোগাযোগব্যবস্থা দিয়েই অভ্যুত্থানকারীরা নিজেদের মধ্যে যোগাযোগ করতেন।

প্রতিক্রিয়ায় তুরস্ক ওই বিদ্রোহী পাইলটকে আটক করে এবং মার্কিন সেনাঘাঁটির বিদ্যুৎ–সংযোগ ও গোয়েন্দা যোগাযোগব্যবস্থা বন্ধ করে দেয়।

অভ্যুত্থানের পরিকল্পনাকারী হিসেবে ফেতুল্লাহ গুলেনকে তুরস্কের হাতে তুলে দেয়া অথবা যুক্তরাষ্ট্র থেকে বহিষ্কারের দাবি তোলা মানে সম্পর্কের মাঝে লাল দাগ টেনে দেয়া।