জানুয়ারি ১৮, ২০১৭

মোদিকে খোলা চিঠি দিয়েছেন কাশ্মীরি তরুণী

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম |

148911_1

ভারত অধিকৃত কাশ্মীরের বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির কাছে খোলা চিঠি লিখেছেন ১৭ বছরের এক প্রবাসী কাশ্মীরি তরুণী।

চিঠিতে তিনি বলেছেন, সবাই এ ভূখণ্ডটির দখল নিতে চায়। কিন্তু এই ভূস্বর্গের জনগণের সুখ-দুঃখ নিয়ে মাথাব্যথা নেই কারো। তা ছাড়া ভারতীয় পুলিশের গুলিতে নিহত হিজবুল মুজাহিদীন কমাণ্ডার বুরহান ওয়ানি সন্ত্রাসী না দেশপ্রেমিক সে প্রশ্ন করেছেন এই তরুণী।

ফাতেমা শাহিন নামের ওই তরুণী বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্রের জর্জিয়া অঙ্গরাজ্যে বসবাস করছেন। সেখান থেকে পাঠানো চিঠিতে ভারতের প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ করে তিনি লিখেছেন-

প্রিয় প্রধানমন্ত্রী, আমরা যদি কাশ্মীরের জনগণের ভালো চাই, তাদের নিয়ে চিন্তা করি, তাহলে আমাদের ওই উপত্যকায় সব যোগাযোগ ব্যবস্থা খুলে দেয়ার উপায় খুঁজে বের করতে হবে। কেবল তাদের স্বাধীনতা কেড়ে নিলেই চলবে না। আমাদের এমন সব উপায় খুঁজে বের করতে হবে যাতে তাদের আওয়াজ দূর দেশে বসেও শোনা যায়।

ওই পত্রলেখিকা জানান, স্বজনদের সঙ্গে দেখা করার জন্য গত ১০ জুলাই তিনি কাশ্মীর উপত্যকায় গিয়েছিলেন। কিন্তু সেখানে যে পরিস্থিতি দেখে এসেছেন, তা কখনো ভুলবার নয়। ওই দিনের ঘটনা তার মনে দাগ কেটে রেখেছে। যার কারণে প্রধানমন্ত্রী মোদির কাছে চিঠি লিখেছেন তিনি।

চিঠিতে ফাতিমা আরো জানান, জনাব প্রধানমন্ত্রী, আমি এখানে বসেই ফ্রান্সের নিস হামলা, তুরস্কের ব্যর্থ অভ্যুত্থানের খবর পাই। এমনকি জানতে পারি ভারতের দক্ষিণাঞ্চলীয় এলাকাগুলোতে মওসুমি বৃষ্টিপাতের খবরো।

কিন্তু আমার জন্মভূমি কাশ্মীরের সংবাদ কোথায়? এই কারণেই দীর্ঘদিন ধরে আমি আমার শহরে কী হচ্ছে তা কখনোই জানতে পারছি না।

ফাতিমার লিখেছেন, সবাই কাশ্মীরের দখল নিতে চাইলেও এর জনগণের ভালো-মন্দ নিয়ে কারো মাথা ব্যথা নেই।
কারণ, আমরা যদি কাশ্মীরের জনগণের মতামত নিতাম, তাদের মতামতের দাম দিতাম, তাহলে জানতে চাইতাম, বুরহান কি আসলেই একজন সন্ত্রাসী, না দেশপ্রেমিক।

আমরা বুঝতে চেষ্টা করতাম একজন শিক্ষার্থী কেন তার লেখাপড়া ও কেরিয়ার বিসর্জন দেয়, কেন সে কলম ফেলে হাতে বন্দুক তুলে নেয়।

প্রসঙ্গ, গত জুলাইয়ে বুরহানের হত্যাকাণ্ডকে কেন্দ্র করেই নতুন করে উত্তপ্ত হয়ে উঠেছিল কাশ্মীর। জনতার ব্যাপক বিক্ষোভকে সামাল দিতে না পেরে গোটা রাজ্যে বিভিন্ন এলাকায় জারি করা হয়েছিল কারফিউ। বন্ধ করে দেয়া হয়েছিল পত্র-পত্রিকা ও ইন্টারনেট ও মোবাইল সংযোগ।

এদিকে অধিকৃত জম্মু-কাশ্মীরের শিামন্ত্রী পিডিপির সিনিয়র নেতা নঈম আখতারের বাসায় বোমা হামলা চালিয়েছে অজ্ঞাত ব্যক্তিরা। সোমবার মধ্যরাতের ওই বোমা হামলায় কেউ হতাহত হয়নি। তবে মন্ত্রীর বাড়িটি সামান্য ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

হামলাকারীরা মন্ত্রীর বাড়ি লক্ষ্য করে দুটি বোমা ছুড়লে একটি বোমা তার বাড়িতে আঘাত করে এবং অন্যটি বাইরে গিয়ে পড়ে। এ সময় বাড়িটিতে কেউ না থাকায় বড় ধরনের কোনো য়তি হয়নি। হামলাকারীরা অবশ্য নিরাপদে ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যেতে সমর্থ হয়েছে।

ঘটনার সময় তিনি বাসায় ছিলেন না। পুলিশের এক কর্মকর্তা বলেন, একটি পেট্রলবোমা শিক্ষামন্ত্রীর বাড়িতে ছোড়া হয়েছে। এতে বাড়ির প্রধান দরজা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে রাজ্যে পিডিপি-বিজেপি জোট সরকার গঠন হওয়ার পর থেকে নঈম আখতার সপরিবারে গুপকররোডের উচ্চ নিরাপত্তা জোনে সরকারি বাসায় স্থানান্তরিত হন।

গত প্রায় এক বছর ধরে তিনি সেখানে রয়েছেন। পুলিশের এক সিনিয়র কর্মকর্তা অবশ্য বলছেন পারায়পোরার মতো শান্ত এবং নিরাপদ এলাকায় ওই বাড়িতে কেউ থাকুক বা না থাকুক, মন্ত্রীর বাড়িতে হামলা আসলে নিরাপত্তাজনিত ত্রুটি এবং এতে পরিস্থিতির তীব্রতা স্পষ্ট হয়েছে।