জানুয়ারি ১৯, ২০১৭

নাম পাল্টে অনুমোদনহীন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান চালানো যাবে না

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম |

নুরুল ইসলাম নাহিদঅনুমোদনহীন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানেই জঙ্গিবাদের কার্যক্রম পরিচালিত হয় বলে উল্লেখ করে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেছেন, নাম পাল্টে অনুমোদনহীন কোনো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান চালানো যাবে না। এ বিষয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে জানানো হয়েছে। শিক্ষক-অভিভাবকদের আমরা অনুরোধ জানিয়েছি, সন্তানদের প্রতি নজর রাখুন। সন্দেহভাজন কিছু হলে কর্তৃপক্ষকে জানান। আমাদের সন্তানদেরকে আমাদেরই রক্ষা করতে হবে।

শনিবার রাজধানীর নায়েম মিলনায়তনে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক অধিদফতর আয়োজিত একাদশ শ্রেণিতে অনলাইন ভর্তি পদ্ধতি বিষয়ক এক কর্মশালায় সাংবাদিকদের প্রশ্নে জবাবে মন্ত্রী এসব কথা বলেন। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে শিক্ষামন্ত্রী নাহিদ বলেন, দেশে নানা কারণে উচ্চ মাধ্যমিকে ৭ লাখ আসন শূন্য রয়েছে। সবাই চায়, ঢাকার কলেজে ভর্তি হতে। ঢাকা শহরেও ৪৩ হাজার আসন শূন্য রয়েছে। শিক্ষার মান না থাকার কারণে এমনটা হচ্ছে। ৪৮টি কলেজে ভর্তির জন্য কেউ আবেদনই করেনি। আমরা ভর্তির বিষয়ে ঢাকার কলেজগুলোর কাছে তথ্য চেয়েছিলাম। কিন্তু ৮৫টি কলেজ কোনো উত্তরই দেয়নি।

তিনি বলেন, শিক্ষাক্ষেত্রে অর্জিত সাফল্যকে এগিয়ে নিতে শিক্ষা ব্যবস্থাপনায় তথ্যপ্রযুক্তির সর্বোচ্চ ব্যবহার নিশ্চিত করতে উদ্যোগ নেয়া হবে। নতুন প্রজন্মকে বিশ্বমানের শিক্ষায় শিক্ষিত করতে চাই আমরা। দক্ষতা অর্জনের মূল নিয়ামক হলেন শিক্ষকরা। শিক্ষক নামের কলঙ্ক যারা তাদের চিহ্নিত করতে হবে। গত কয়েক বছরে শিক্ষায় উল্লেখযোগ্য উন্নতি করেছে।

একই অনুষ্ঠানে ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক মো. মাহাবুবুর রহমান জানান, এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার ফলাফলে জিপিএর পাশাপাশি বিষয়ভিত্তিক প্রাপ্ত নম্বর দেয়া হবে এবার থেকে। এ বছরের এইচএসসির ফলাফল থেকে এ প্রক্রিয়া শুরু হবে। ফলাফলে জিপিএর পাশাপাশি নৈর্ব্যক্তিক, ব্যবহারিক এবং রচনামূলকের নম্বর আলাদাভাবে দেয়া থাকবে। ১৮ আগস্ট প্রকাশের অপেক্ষায় থাকা এইচএসসির ফলাফলে নম্বরসহ দেয়া হবে। এর জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা ইতিমধ্যে নেয়া হয়েছে। বর্তমানে ফলাফলে শুধু জিপিএর পাশাপাশি বিষয়ভিত্তিক গ্রেড প্রকাশ করা হয়। তবে নম্বর শিট পেতে হলে আলাদা করে শিক্ষাবোর্ডে আবেদন করতে হয়।

একাদশ শ্রেণীতে অনলাইন ভর্তি পদ্ধতির উপর কর্মশালায় মাউশি মহাপরিচালক অধ্যাপক ড.এসএম ওয়াহিদুজ্জামানের সভাপতিত্বে আরো বক্তব্য রাখেন শিক্ষা সচিব মো. সোহরাহ হোসাইন। এছাড়া ঢাকা মহানগরীর সরকারি বেসরকারি কলেজের অধ্যক্ষ এবং শিক্ষা প্রশাসনের ব্যাক্তিরা অনলাইনে কলেজ ভর্তি কার্যক্রমের উপর তাদের মতামত তুলে ধরেন। বক্তারা জানান, কলেজে ভর্তি ও ফলাফল এখন অনলাইনে প্রকাশিত হচ্ছে। কিন্তু তথ্যপ্রযুক্তি বিষয়ে অপর্যাপ্ত প্রশিক্ষণ থাকায় জটিলতা তৈরি হচ্ছে। এসব বিষয়ে শিক্ষকদের দক্ষতা বাড়াতে হবে। তাহলে জটিলতা কমে আসবে।