জানুয়ারি ২০, ২০১৭

সব জরিপেই এগিয়ে হিলারি, ব্যবধান ৪ থেকে ১৫ পয়েন্ট

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম |

Hilary-new-bg20160807164033

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচন সামনে রেখে ডজন ডজন জরিপ চলছে। এর মধ্যে অন্তত ১০টি প্রধান সারির জরিপের ফলে দেখা গেছে এর সবগুলোতেই এগিয়ে রয়েছেন ডেমোক্র্যাট দলের প্রার্থী হিলারি ক্লিনটন। জরিপগুলোর জাতীয় গড় হিসাবে হিলারি ক্লিনটন বর্তমানে ৪৫ পয়েন্ট নিয়ে এগিয়ে রয়েছেন, আর রিপাবলিকান প্রার্থী ডনাল্ড ট্রাম্পের জাতীয় গড় ৪০ পয়েন্ট। তবে জরিপগুলোর ফলে সর্বনিম্ন ৪ পয়েন্ট আর সর্বোচ্চ ১৫ পয়েন্ট পর্যন্ত ব্যবধানে এগিয়ে থাকছেন হিলারি ক্লিনটন।

সবশেষ প্রকাশিত জরিপগুলোতে দেখা গেছে সরাসরি ফোন করে মতামত নেয় এমন জরিপ আইবিডি’র হিসাবে হিলারির পয়েন্ট ৪৬ আর ট্রাম্পের পয়েন্ট ৩৯। নতুন শুরু করা এই জরিপটি ৮৫১ জনের মধ্যে পরিচালিত হয়। এতে হিলারি এগিয়ে ৭ পয়েন্টে।

ইউপিআই কিংবা সিভোটারও একটি নতুন জরিপ উদ্যোগ। অনলাইনভিত্তিক এই জরিপে ১০৬০ জনকে সম্পৃক্ত করা হয়। যাতে ৫০ শতাংশ ভোট পড়েছে হিলারির পক্ষে আর ৪৪ শতাংশ পেয়েছেন ডনাল্ড ট্রাম্প। যাতে তিনি পিছিয়ে ৬ পয়েন্ট।

ম্যাকক্ল্যাচি ও ম্যারিস্ট জরিপ চালিয়েছে ৯৮৩ জনের ওপর। এরাও সরাসরি ফোনে কথা বলেছেন। এক্ষেত্রে ৪৮ পয়েন্ট পেয়েছেন হিলারি আর ৩৩ পয়েন্ট গেছে ডনাল্ড ট্রাম্পের দিকে।

এনবিসি নিউজ ও ওয়ালস্ট্রিট জার্নাল যৌথভাবে তাদের জরিপে অনলাইনে মত নিয়েছে ১০৭২ জনের। এদের মধ্যে ৪৩ শতাংশ ভোট গেছে ক্লিনটনের ঝোলায়। ৩৮ শতাংশ নিয়ে ৯ পয়েন্টে পিছিয়ে ডনাল্ড ট্রাম্প।

আইপোস ও রয়টার্সের জরিপে ব্যবধানটা ৪ পয়েন্টের। এদের হিসাবে ক্লিনটনের জয়ের সম্ভাবনা ৪৩ শতাংশ যেখানে ট্রাম্পের সম্ভাবনা ৩৯ শতাংশ। অনলাইনভিত্তিক এই জরিপের অংশ হয়েছে ১০৭২ জন।

রাসমুসেনের জরিপেও ব্যবধান ৪ পয়েন্টে। তবে তারা দেখাচ্ছে হিলারির জয়ের সম্ভাবনা ৪৪ শতাংশ আর ট্রাম্পের ৪০ শতাংশ। এরা আইভিআর এবং অনলাইন উভয় পদ্ধতিতে ১০০০ জনের সঙ্গে কথা বলেছে।

ফক্স নিউজের হিসাবে ট্রাম্প পিছিয়ে ১০ পয়েন্টে। সরাসরি ফোনের ভিত্তিকে পরিচালিত এই জরিপে হিলারির পয়েন্ট ৪৯ আর ট্রাম্পের ৩৯। যার আওতাভূক্ত করা হয়েছে ১০২২ জন ভোটারকে।

ইউগভ ও ইকোনমিস্ট মিলে অনলাইন জরিপ চালিয়েছে ১০০০ জনের ওপর। তাদের মতে হিলারির জয়ের সম্ভাবনা ৪১ শতাংশ আর ডনাল্ড ট্রাম্পের ৩৬ শতাংশ।

পেন স্কোয়েন বারল্যান্ডও ১০০ জনের ওপর অনলাইন জরিপ করে দেখেছে হিলারি পাচ্ছেন ৪৫ পয়েন্ট আর ট্রাম্প ৪০ পয়েন্ট।

আর সিবিএস নিউজের জরিপের আওতাভুক্ত ছিলেন ১১৩১ জন। যাদের মধ্যে ৪৭ শতাংশের মত হিলারির জয়ের পক্ষে আর ৪১ শতাংশ মত দিয়েছেন ট্রাম্পের পক্ষে।

অঙ্গরাজ্যভিত্তিক যেসব জরিপ হচ্ছে তাতে সুইং স্টেটগুলোর মধ্যে জর্জিয়া ও মিসৌরিতে ট্রাম্পের জয়ের সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছে। জর্জিয়ায় ৫৫% সম্ভাবনা থাকলেও মিসৌরিতে ট্রাম্পের জয়ের সম্ভাবনা ৮৬ শতাংশ। এছাড়া ওহাইও, আইওয়া, ফ্লোরিডা, নর্থ ক্যারোলিনা, নিউ হ্যাম্পশায়ার, ভার্জিনিয়া, পেনসিলভানিয়া, মিশিগান, উইসকনসিনের সবগুলোতেই হিলারি এগিয়ে। এর মধ্যে সর্বোচ্চ ৯০ শতাংশ সম্ভাবনা নিয়ে মিশিগানে, আর সর্বনিম্ন ৫৩ শতাংশ সম্ভাবনা নিয়ে নর্থ ক্যারোলিনায় লড়ে যাচ্ছেন হিলারি ক্লিনটন। ফ্লোরিডা ও আইওয়াতে তার সম্ভাবনা যথাক্রমে ৬৪ ও ৬৩ শতাংশ বেশি। তবে সুইং স্টেটগুলোর মধ্যে ট্রাম্পের জন্য মিসৌরি যেমন নিশ্চিত জয়ের বলে ধরা হচ্ছে তেমনি হিলারির নিশ্চিত জয় ধরা হচ্ছে আইওয়া, নিউ হ্যাম্পশায়ার, ভার্জিনিয়া, পেনসিলভানিয়া, মিশিগান ও উইসকনসিনে।

জরিপগুলোর মধ্যে সরাসরি ল্যান্ডলাইন কিংবা মোবাইল টেলিফোনে রেসপন্ডেন্টদের কাছে প্রশ্ন করা হয়। তবে সাম্প্রতিক এক গবেষণায় দেখানো হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের অর্ধেক ঘরেই এখন আর ল্যান্ডলাইনের কোনও ব্যবহার নেই। সুতরাং এই জরিপের ক্ষেত্রে মোবাইল ফোনের ওপরই বেশি নির্ভর করা হয়।

অনলাইন জরিপে অনলাইনের কোনও প্যানেলে উত্তরদাতারা তাদের মতামত দেন। তবে যুক্তরাষ্ট্রে আর্থ-সামাজিক ও ডেমোগ্রাফিক গ্রুপের অনেকের কাছে এখনো ইন্টারনেট পৌঁছায়নি।

ইন্টারঅ্যাকটিভ ভয়েস রেসপন্স বা আইভিআর জরিপকে রোবো-পোল নামেও ডাকা হয়। এতে একটি অটোমেটেড রেকর্ডেড ভয়েস বেজে উঠলে তাতে উত্তরদাতারা রেসপন্স করেন। তখন তারা টেলিফোনের কোনও একটি নির্ধারিত কি প্রেস করে উত্তর দেন। আইভিআর জরিপগুলোর অধিকাংশ ক্ষেত্রে ল্যান্ড লাইনেরও ব্যবহার চলে।