যে দেশে ইসলামের আলোচনা করতেও পুলিশের প্রয়োজন হয়, সে দেশে বেঁচে থাকতে চাই না: শাহ মোয়াজ্জেম

শাহ মোয়াজ্জেম হোসেনবিএনপির ভাইস-চেয়ারম্যান শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন বলেছেন, ‘দেশের গণতন্ত্র যখন ইনসেনটিভ কেয়ারে মৃত্যুশয্যায় রয়েছে তখন এমন দেশে আমি আর বেঁচে থাকতে চাই না। এখানে ইসলাম ধর্মের আলোচনা করতেও এখন পুলিশের প্রয়োজন হয়।’

তবে যেভাবেই হোক, যেখানেই হোক, যত কষ্ট করেই হোক বিএনপির কাউন্সিল হবেই, এ কথাও জানিয়েছেন তিনি।

রোববার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবে বিএনপির কাউন্সিল উপলক্ষে আশির দশকের ১০১ জন ছাত্রনেতা আয়োজিত এক গোলটেবিল বৈঠকে তিনি এসব কথা বলেন।

শাহ মোয়াজ্জেম বলেন, ‘বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে নয়, রাষ্ট্রদোহ মামলা হওয়া উচিত ছিল বিডিআর (বর্তমান বিজিবি) হত্যাকাণ্ডের মতো জঘন্য ঘটনার সঙ্গে যারা সরাসরি জড়িত ছিল তাদের বিরুদ্ধে। আর কারা সে ঘটনায়জড়িত ছিল সবই আমার জানা আছে।’

যে আইনজীবী বেগম জিয়ার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহের মামলা করেছে সে সঠিকভাবে ‘রাষ্ট্রদ্রোহ’ লিখতেও পারবে না বলে মন্তব্য করেন তিনি।

নির্বাচন কমিশনের কঠোর সমালোচনা করে বিএনপির এই ভাইস-চেয়ারম্যান বলেন, ‘এই কমিশনের দ্বারা সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব না। কার নির্দেশে এরা দলীয় প্রতীকে স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের সিদ্ধান্ত নেয়। এতে দেশে গৃহযু্দ্ধ, হানাহানি লেগে যেতে পারে।’

সংগঠনের সমন্বয়কারী সরওয়ার আজম খানের সভাপতিত্বে গোলটেবিল বৈঠকে আরো বক্তব্য রাখেন, আশির দশকের কেন্দ্রীয় নেতা অ্যাডভোকেট নজরুল হক নান্নু, আবু তাহের তালুকদার, সাইফুদ্দিন খাঁন, অল কমিউনিটি ফোরামের উপদেষ্টা আশরাফ উদ্দীন বকুল, দেশ বাঁচও মানুষ বাঁচাও আন্দোলনের সভাপতি কাজী রকিবুল ইসলাম রিপন প্রমুখ।