ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম | সোহেল আহম্মেদ


আঞ্জুমানে তা’লীমুল কুরআন বাংলাদেশের অধীনে ২০১৯ শিক্ষাবর্ষে (১৪৪০হিজরী) দেশব্যাপী অনুষ্ঠিত কেন্দ্রীয় পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ করা হয়েছে।

আজ বৃহস্পতিবার (১১ জুলাই) বিকেল ৫ টায় সিলেট মহানগরীর গোটাটিকরস্থ আঞ্জুমান কমপ্লেক্সে কেন্দ্রীয় সভাপতি মাওলানা ক্বারী শাহ নজরুল ইসলামের সভাপতিত্বে ফলাফল প্রকাশ অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।

এসময় কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক ও পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মাওলানা ক্বারী ইমদাদুল হক পরীক্ষার বিস্তারিত ফলাফল আঞ্জুমান সভাপতি মাওলানা ক্বারী শাহ নজরুল ইসলামের নিকট হস্তান্তর করেন।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, আঞ্জুমান কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি মাওলানা ক্বারী জালাল উদ্দীন গবীনপুরী, সহ-সাধারণ সম্পাদক মাওলানা ক্বারী ইনাম বিন সিদ্দিক, দফতর সম্পাদক মাওলানা ক্বারী হারুনুর রশীদ, অর্থ সম্পাদক মাওলানা ক্বারী জুবায়ের আহমাদ আনোয়ারী, সহকারী পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মাওলানা ক্বারী মুজাহিদুল ইসলাম, সিলেট মহানগর সেক্রেটারি মাওলানা ক্বারী হিফজুর রহমান, পরীক্ষা কমিটির সদস্য মাওলানা ক্বারী ফয়জুল্লাহ মায়মুন, মাওলানা ক্বারী নিয়াজুর রহমান নিজাম, মাওলানা ক্বারী আবুল হুসাইন শরীফ, মাওলানা ক্বারী জুবায়ের আহমদ, মাওলানা ক্বারী মামুনুর রশীদ মাছুম, মাওলানা ক্বারী হাবিবুর রহমান হাবিব, মাওলানা ক্বারী নাঈমুল হাছান নাজিম প্রমুখ।

উল্লেখ্য, বিগত রমযান মাসে সারাদেশে ১৫৭৮টি ক্বিরাআত প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে ২,৩৬,৫২৩ জন ছাত্র-ছাত্রী ইলমুল ক্বিরাআত শিক্ষা গ্রহণ করে। তম্মধ্যে তিনটি ক্লাসে ১২৭৯৩ জন ছাত্র-ছাত্রী কেন্দ্রীয় পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করে ১০৩৪৩ জন উত্তীর্ণ হয়। এবারের পাসের হার ৮০.৮৪%।

সনদ জামাআতে ১৯৪৬ জন ছাত্র-ছাত্রী পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করে ১৭২৫ জন উত্তীর্ণ হয়, পাশের হার ৮৮.৬৪%। পুরুষদের মধ্যে মেধা তালিকায় প্রথম ক্বারী আল-আমীন [২০৪] (আঞ্জুমান কমপ্লেক্স, গোটাটিকর, সিলেট)। দ্বিতীয়, ক্বারী আমীরুল ইসলাম [৪৫৮] (জামিয়া ফিরুজাবাগ বালাগঞ্জ, সিলেট), তৃতীয়, ক্বারী রাকিবুল হাসান [১৪৮] (আঞ্জুমান কমপ্লেক্স, গোটাটিকর, সিলেট)।

মহিলাদের মধ্যে মেধা তালিকায় প্রথম ক্বারী ছামিনা আক্তার [৬০৭] (আঞ্জুমান কমপ্লেক্স, গোটাটিকর, সিলেট)। দ্বিতীয়, ক্বারী আবিদা ইয়াসমিন [৭৫৬] (মার্কাজুল উলূম পঞ্চগ্রাম মহিলা মাদ্রাসা, দোয়ারাবাজার, সুনামগঞ্জ), তৃতীয়, ক্বারী হাজেরা খানম [১৯২৩] (বাঘা গৌরাবাড়ী মহিলা মাদ্রাসা, গোলাপগঞ্জ, সিলেট)।

খামিছ জামাআতে ৪৬৬৯ জন ছাত্র-ছাত্রী পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করে ৩৬৬৭ জন উত্তীর্ণ হয়, পাশের হার ৭৮.৫৩%।

রাবে জামাআতে ৬১৭৮ জন ছাত্র-ছাত্রী পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করে ৪৯৫১ উত্তীর্ণ হয়, পাশের হার ৮০.১৩%।

কর্তৃপক্ষ জানান, আগামী ২০ জুলাইয়ের মধ্যে সারাদেশে পরীক্ষা সেন্টার সমূহে পাওয়া যাবে পরীক্ষায় অংশগ্রহণকারী শাখা কেন্দ্রের বিস্তারিত ফলাফলসিট। আর ফলাফল সংক্রান্ত কোন অভিযোগ থাকলে বা পুন: নিরীক্ষণ (নযরে সানী) করতে হলে পরীক্ষা সমপরিমাণ ফি দাখিল করত: সরাসরি কেন্দ্রীয় পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক বরাবরে আগামী ১৫ যিলহজ্ব এর মধ্যে লিখিত আবেদন করতে হবে।