ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম | এম মাহিরজান


গতকাল রাতে ইন্তেকাল করেছেন হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ-এর মহাসচিব ও দারুল উলুম মুঈনুল ইসলাম হাটহাজারী মাদরাসার সহযোগী মহাপরিচালক আল্লামা জুনাইদ বাবুনগরীর মা ফাতেমা বেগম। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৮৩ বছর। তিনি দীর্ঘদিন ধরে বার্ধক্যজনিত নানান রোগে ভুগছিলেন।

মরহুমা ফাতেমা বেগম রহ. ছিলেন মহা সৌভাগ্যবতী এক নারী। এধরণের সৌভাগ্যবতী নারী এই যুগে খুব কমই আছে।

তিনি জন্মগ্রহণ করে দারুল উলুম মুঈনুল ইসলাম হাটহাজারী মাদরাসার প্রতিষ্ঠাতাদের একজন আল্লামা শাহ সুফি আজিজুর রহমান রহ. -এর পরিবারে।  শাহ সুফি আজিজুর রহমান রহ.-এর পুত্র প্রখ্যাত বুজুর্গ আলেম জামিয়া বাবুনগর মাদরাসার প্রতিষ্ঠাতা আল্লামা শাহ হারুন বাবুনগরী রহ.-এর কন্যা ছিলেন মরহুমা ফাতেমা বেগম রহ.।

মরহুমার বড় ভাই হেফাজতে ইসলামের একমাত্র সিনিয়র নায়েবে আমীর ও জামিয়া বাবুনগর মাদরাসার বর্তমান মহাপরিচালক মাওলানা শাহ মুহিব্বুল্লাহ বাবুনগরীও বর্তমান সময়ে দেশের সর্বজন শ্রদ্ধেয় আলেমদের একজন।

মরহুমা ফাতেমা বেগম রহ. শুধু দাদা, বাবা ও ভাইদের দিক থেকে সৌভাগ্যবতী তা নয়, বরং তিনি স্বামীর দিক থেকেও সৌভাগ্যের অধিকারিণী ছিলেন। মরহুমার স্বামী ছিলেন দারুল উলুম মুঈনুল ইসলাম হাটহাজারীর সিনিয়র শিক্ষক মিশকাত শরীফের বিখ্যাত ব্যাখ্যা গ্রন্থ তানজিমুল আশতাত-এর লেখক আল্লামা আবুল হাসান রহ.

সন্তানদের দিক থেকে দেখলে তিনি ছিলেন সত্যিকারের রত্নগর্ভা। তাঁর গর্ভেই জন্ম নিয়েছেন বর্তমান বাংলাদেশের অন্যতম প্রধান আলেম আল্লামা হাফেজ জুনাইদ বাবুনগরী

আল্লামা বাবুনগরী আল্লামা আবুল হাসান রহ. ও ফাতেমা বেগম রহ. এর প্রথম সন্তান। আল্লামা জুনাইদ বাবুনগরী ছাড়াও আরো দুই ছেলে রয়েছে এই দম্পতীর। তারা হলেন, মাওলাবা শুয়াইব বাবুনগরী ও মাওলানা জোবায়ের বাবুনগরী। মাওলানা শুয়াইব আজিজুল উলুম বাবুনগর মাদরাসায় হাদীসের উস্তাদ। আর মাওলানা জোবায়ের রাউজান এমদাদুল উলুম মাদরাসায় হাদীসের উস্তাদ।

এছাড়াও আল্লামা আবুল হাসান রহ. ও ফাতেমা বেগম রহ. এর রাশেদা বেগম ও মাহমুদা বেগম নামে দুই কন্যা রয়েছে। রাশেদা বেগমের বিয়ে হয় লেখক আলেম মাওলানা জাফর সাদেক রহ. এর সাথে। আর মাহমুদা বেগমের বিয়ে হয় মাওলানা জাকারিয়ার সাথে।