আল-হক্ব মুসলিম ট্রাষ্টের উদ্যোগে প্রথম দফায় ফুডপ্যাক বিতরণ সম্পন্ন

আল-হক্ব মুসলিম ট্রাস্ট সিলেটের উদ্যোগে শতাধিক অসহায় পরিবার মাঝে ফুডপ্যাক সহায়তা কার্যক্রম শুরু হয়েছে৷

আজ (১ এপ্রিল) বুধবার সিলেটের ঐতিহ্যবাহী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান জামেয়া মাহমুদিয়া সোবহানীঘাট মাদরাসায় এই সহায়তা কার্যক্রমের সূচনা হয়৷

সহায়তা প্যাকেজ হস্তান্তর অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ট্রাষ্টের আহবায়ক ও সোবহানীঘাট মাদ্রাসার মুহতামীম হাফিজ মাওলানা আহমদ কবীর আমকুনী।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন শামীমাবাদ মাদরাসার মুহতামিম হাঃ মাওলানা সৈয়দ শামীম আহমদ, সোবহানীঘাট মাদ্রাসার মুহাদ্দিস মুফতী বিলাল উদ্দীন, উস্তাদ মাওলানা ইবরাহীম,আই এফ আই সি ব্যাংকের ম্যানেজার জনাব আলহাজ আব্দুল মুনিম মুন্না,সোবহানীঘাট মাদ্রাসা কমিটির সদস্য আলহাজ এজাজ উদ্দীন, বরায়া বাটুলগঞ্জ মাদ্রাসার উস্তাদ মাওলানা কায়সান মাহমুদ আকবরী।

ট্রাস্টের পরিচালক হাফিজ মাওলানা আহমদ সগীরের সার্বিক ব্যবস্হাপনায় অন্যান্যদের মাঝে উপস্তিত ছিলেন ট্রাস্টের প্রতিনিধি হাফেজ মাওলানা আব্দুল হক মওদূদ,মাওলানা জাফর ইকবাল,মাওলানা আব্দুল জব্বার শামীম, মাওলানা মাহমূদ বিন শফীক চৌধুরী মঞ্জু, হাফিজ জয়নাল আবেদীন, সাজ্জাদুর রহমান রুম্মান প্রমুখ।

মাওলানা সৈয়দ শামীম আহমদ তার বক্তব্যে বলেন, “এরকম বৈশ্বিক বিপর্যয়কর পরিস্থিতিতে দেশবরেণ্য আলেম, আমাদের শ্রদ্ধাবাজন মুরব্বী আল্লামা শফিকুল হক আমকুনী রহ. সামাজের কল্যাণমুলক বহুবিদ কর্মকাণ্ডে অংশগ্রহণ ছিলো সত্যিই প্রশংসনীয় ও অনুকরণীয়। তারই অনুকরণে তার যোগ্য অনুসারী হাফিজ মাওলানা আহমদ কবীর ও হাফিজ আহমদ সগীর সাহেবের তত্বাবধানে আল হক্ব মুসলিম ট্রাষ্ট’র এমন কার্যক্রম সত্যিই প্রশংসার দাবী রাখে। করোনার প্রভাবে পর্যদুস্ত পরিবারগুলোর প্রতি সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেয়ার জন্য সমাজের বিত্তবানদের প্রতি তিনি আহবান জানান।”

সভাপতির বক্তব্যে মাওলানা আহমদ কবীর আমকুনী বলেন, “সমাজের প্রতিটি গোষ্ঠী নিজের জ্ঞাতি ভাইদের জন্য কল্যাণমূলক কাজ করে যায়। ট্রাষ্টের সদস্যবৃন্দ তরুণ আলেম হওয়ায় সমাজের প্রয়োজন বুঝতে পেরে তাদের এই পরিশ্রম ও মেহনত মাইলফলক হিসেবে বিবেচিত হবে।”

ট্রাস্টের পরিচালক মাওলানা আহমদ সগীর বলেন, “আমাদের আহবানে সাড়া দিয়ে দেশ-বিদেশের যে সকল অনুদান প্রদানকারীদের প্রতি আমরা চির কৃতজ্ঞ। আমাদের পরবর্তী খেদমতে খালক্বের যেকোন কার্যক্রমেও আপনারা স্ব স্ব অবস্হান থেকে এগিয়ে আসবেন বলে আমি আশাবাদী।”

তিনি আরও বলেন, “আলহামদুলিল্লাহ, ফুডপ্যাক বিতরণ ছাড়াও দূরবর্তী অসহায় হত-দরিদ্র,ধার্মিক পরিবারগুলোতে নগদ অর্থ সহায়তা প্রদান করা হয়েছে। আমি আশাবাদী করোনায় বিপর্যস্ত মানুষের সহায়তার দ্বিতীয় দফা কার্যক্রম ইনশাআল্লাহ্‌ খুব শীঘ্রই শুরু হবে। পূর্বেকার মত দ্বিতীয় দফায়ও আপনারা আপনাদের সহায়তা অব্যাহত রাখবেন বলে আমি বিশ্বাস করি। পরিশেষে মাবুদের শুকরিয়া আদায় সহ ট্রাস্টের প্রতিনিধি, সেচ্ছাসেবক সহ সকল কর্মী ভাইদেরদের অক্লান্ত পরিশ্রমের শুকরিয়া আদায় করছি।”

Previous post অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়াতে বিত্তবানদের প্রতি মুফতী ফয়জুল্লাহ'র আহ্বান
Next post বাংলাদেশে করোনাভাইরাস পরীক্ষার হার বিশ্বে সর্বনিম্ন