ইনকিলাব সম্পাদকের বিরুদ্ধে মামলা, গণমাধ্যমের কণ্ঠরোধের নামান্তর: ইশা ছাত্র আন্দোলন

দৈনিক ইনকিলাব পত্রিকার সম্পাদক এ এম এম বাহাউদ্দীনের বিরুদ্ধে মামলা করে গণমাধ্যমের কণ্ঠরোধ করার অপচেষ্টা চলছে বলে দাবী করেছে ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলন বাংলাদেশ।

মঙ্গলবার (৩০ জুন) পল্টনস্থ কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে মজলিসে আমেলার বৈঠকে এসব কথা বলেন দলটির কেন্দ্রীয় সভাপতি এম. হাছিবুল ইসলাম।

তিনি বলেন, মানবপাচারে কুয়েতে আটক হওয়া লক্ষীপুর-২ আসনের এমপি কাজী শহিদ ইসলাম পাপুলের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা এইচ টি ইমামের সম্পর্কের কথা ইতিপূর্বে প্রথম আলোসহ দেশের গুরুত্বপূর্ণ সবগুলো গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে। এ কারণে তার ব্যাপারে প্রতিবেদন প্রকাশ করায় পত্রিকা সম্পাদকের বিরুদ্ধে দায়ের করা ডিজিটাল আইনে করা মামলা গণমাধ্যমের কণ্ঠরোধেরই নামান্তর।

তিনি আরও বলেন, গণমাধ্যম সূত্রে জানা গেছে ‘এইচ টি ইমামকে সরিয়ে দিন’ শিরোনামে নিউজ করায় তার ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন হয়েছে এবং দেশ ও সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন হয়েছে মর্মে মামলায় উল্লেখ করা হয়েছে। প্রকৃতপক্ষে এমপি পাপুলের মতো একজন অসৎ ব্যক্তিকে নৌকা প্রতীক দিয়ে এমপি নির্বাচিত করেই দেশের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করা হয়েছে।

হাছিবুল ইসলাম বলেন, পাপুলকে এমপি পদে নির্বাচিত করতে যারা সহায়তা করে বিশ্বের দরবারে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করেছে তাদেরকে জবাবদিহি ও শাস্তির আওতায় আনা হলে দেশের ভাবমূর্তি রক্ষা পাবে। আমরা ইনকিলাব সম্পাদকের বিরুদ্ধে করা ডিজিটাল আইনে দায়ের করা প্রহসনমূলক মামলা প্রত্যাহার চাই এবং সরকারের উচিত গণমাধ্যমের স্বাধীনতা নিশ্চিত করা। এটা তাদের সাংবিধানিক অধিকারও বটে।