করোনা পরিস্থিতি শামাল দিতে সরকার ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছে:  ড. আহমদ আবদুল কাদের

করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে সৃষ্ট পরিস্থিতি শামাল দিতে সরকার ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন খেলাফত মজলিসের মহাসচিব ড. আহমদ আবদুল কাদের।

শনিবার (০৯ মে) বিকাল ৩টায় অনুষ্ঠিত খেলাফত মজলিসের কেন্দ্রীয় নির্বাহী পরিষদের এক ভিডিও কনফারেন্সে তিনি এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে সৃষ্ট পরিস্থিতি শামাল দিতে সরকার ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছে। দেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ক্রমশই বৃদ্ধি পাচ্ছে। আক্রান্তদের চিকিৎসার ক্ষেত্রে সরকারের প্রস্তুুতির ঘাটতির কারণে একদিকে কোভিড-১৯ এর রোগীরা যেমন সুচিকিৎসা পাচ্ছেন না। অন্যদিকে পর্যাপ্ত ও মানসম্পন্ন সুরক্ষা সামগ্রীর অভাবে চিকিৎসক, নার্সসহ চিকিৎসা কর্মীরা করোনা আক্রান্ত আক্রান্ত হয়ে পড়ছেন। পরিস্থিতি এমন যে, হাসপাতালগুলোতে সাধারণ রোগীরাও সঠিকভাবে চিকিৎসা সেবা পাচ্ছেন না। করোনা মোকাবেলায় শুরু থেকে সরকার মুখে মুখে প্রস্তুতির বুলি আওড়ালেও প্রকৃতপক্ষে তেমন কোন প্রস্তুতি ছিলো না। আজকে দেশের সবগুলি জেলাতেই এ ভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে। এখন দেশে আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় ১৪ হজার। করোনায় মৃত্যুর সংখ্যা দুইশ’ ছাড়িয়ে গেছে।

তিনি  আরও বলেন, করোনা দুর্যোগে অসহায় অভাবগ্রস্থ মানুষের মধ্যে সরকারী ত্রাণ বিতরণের ক্ষেত্রে চরম অরাজকতা বিরাজ করছে। দলীয় জনপ্রতিনিধিদের মাধ্যমে ত্রাণ বিতরণের কারণে ত্রাণ চুরির রেকর্ড সৃষ্টি হয়েছে। অন্তত বায়ান্ন জন জনপ্রতিনিধি ত্রাণ চুরি-অনিয়মের কারণে সাময়িক বরখাস্ত হয়েছে। আর যতটুকু ত্রাণ বিতরণ হচ্ছে তাও শুধু দলীয় লোকদের মধ্যে বিতরণ করা হচ্ছে। সাধারণ খেটে খাওয়া অভাবী মানুষ সরকারী ত্রাণ থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। ত্রাণ চুরি ও লুটপাট বন্ধে সেনাবাহিনীর তত্ত্বাবধানে ত্রাণ বিরতণের গণ দাবীর তোয়াক্কা করছে না। করোনা সৃষ্ট দুর্যোগ মোকাবিলায় অন্যান্য রাজনৈতিক দলের কোনো পরামর্শে কর্ণপাত করছে না সরকার। আমরা সকল রাজনৈতিক দলকে সম্পৃক্ত করে করোনাভাইরাস ব্যবস্থাপনায় জাতীয় কমিটি গঠনের দাবী পুনর্ব্যক্ত করিছি।

কনফারেন্সে করোনা দুর্যোগের কারণে সারাদেশের গ্রাহকদের অন্তত ৩ মাসের বিদ্যুত, গ্যাস ও পানির বিল মওকুফের জন্য সরকারের কাছে দাবী জানানো হয়। একই সাথে সংগঠনের সকল শাখা ও সমাজের বিত্তবানদের অসহায়-অভাবগ্রস্থ মানুষের প্রতি সহযোগিতা অব্যাহত রাখার উদাত্ত আহ্বান জানানো হয়। এতে করোনা সংক্রমণ রোধে সবাইকে স্বাস্থ্য সতর্কতা মেনে চলার আহ্বান পুনর্ব্যক্ত করা হয়।

খেলাফত মজলিসের এ ভিডিও কনফারেন্সে যুক্ত ছিলেন সংগঠনের নায়েবে আমীর অধ্যাপক আবদুল্লাহ ফরিদ, যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা মুহাম্মদ শফিক উদ্দিন, এডভোকেট জাহাঙ্গীর হোসাইন, মুহাম্মাদ মুনতাসির আলী, সাংগঠনিক সম্পাদক ড. মোস্তাফিজুর রহমান ফয়সল, মাওলানা তোফাজ্জল হোসেন মিয়াজী, প্রশিক্ষণ সম্পাদক অধ্যাপক মুহাম্মাদ আবদুল হালিম, এডভোকেট মিজানুর রহমান, অধ্যাপক আবদুল জলিল, অধ্যাপক কে এম আলম, আলহাজ আবু সালেহীন, মুফতি ওযায়ের আমীন প্রমুখ।