আলেম সমাজকে সমাজসেবায় অগ্রণী ভূমিকা রাখতে হবে:  মাওলানা রুহুল আমিন সাদী

নভেম্বর ৪, ২০১৯ নিজস্ব প্রতিনিধি

মিডিয়া ব্যাক্তিত্ব মাওলানা রুহুল আমিন সাদী বলেছেন, বর্তমানে দেশে একটি সংকটময় মুহূর্ত চলছে৷ পাশবিকতা ও নির্মমতা সমাজে প্রকট আকার ধারণ করেছে৷ এ মুহূর্তে মানবতার মশাল জ্বেলে আলেম সমাজকে সমাজসেবায় এগিয়ে আসতে হবে। সমাজের রন্ধ্রে রন্ধ্রে জেঁকে বসা অন্ধকার দূরিভুত করে আল কুরআনের আলোয় সমাজ গঠন করতে হবে৷

আজ সোমবার (৪ নভেম্বর) যোহরে সমাজসেবা মূলক অরাজনৈতিক দ্বীনি সংগঠন সাভার উপজেলা উলামা পরিষদ আয়োজিত এক প্রশিক্ষন প্রোগ্রামে তিনি এসব কথা বলেন৷ সাভার হামিউস্সুন্নাহ মাদ্রাসা মিলনায়তনে প্রোগ্রামটি অনুষ্ঠিত হয়৷

তিনি বলেন আল কুরআন একটি বিপ্লবী গ্রন্থ৷ কুরআনের শিক্ষা সমাজে চালু থাকলে বিপ্লবী জনতা তৈরি হবে৷ একান্ত বিরোধী গোষ্ঠীও কোন এক সময় কুরআনের শিক্ষার কাছে আত্মসমর্পন করবে৷

তিনি আরও বলেন উস্তাদ নোমান আলী খান এক সময় ইসলাম বিরোধী ছিলেন৷ কিন্তু কুরআনের সংস্পর্ষে এসে তিনি এখন ইসলামের প্রচারক হয়েছেন৷ তার লেকচার লক্ষ লক্ষ ভিউ হয়৷ তাই যে কোন মূল্যেই কুরআনের শিক্ষাকে চালু রাখতে হবে৷ আলেম সমাজ ও মাদ্রাসা গুলো টিকে থাকলেই কুরআনী শিক্ষা টিকে থাকবে৷

তিনি আরও বলেন বর্তমান নাজুক সময়ে আলেম সমাজকে আরো সুচিন্তিত শান্তিপূর্ন গঠনমূলক কর্মপদ্ধতি অবলম্বন করতে হবে৷ অতি জজবাতি হঠকারী কোন কর্মসূচি নেয়া থেকে বিরত থাকতে হবে৷ কেননা হঠকারী কর্মসূচি পালন করতে যেয়ে যদি কুরআনী শিক্ষাকেন্দ্র গুলো বিলুপ্ত হয়ে যায় তবে এদেশে ইসলামের আলো একসময় নিভে যাবে৷ এতে করে ইসলাম বিরোধীদের ইচ্ছাই পূরণ হবে৷ তাই সমাজসেবা মূলক কাজে বেশিমাত্রায় অংশগ্রহন করে সমাজের মানুষের কাছে যেতে হবে৷ সেতুবন্ধন তৈরি করতে হবে৷ এদেশের গণমানুষের হৃদয় জয় করতে না পারলে ভবিষ্যত অনিশ্চিত হবে৷

সাভার উপজেলা উলামা পরিষদের সকল কল্যাণকর কাজে একাত্মতা ঘোষনা করে তিনি বলেন, পরিষদ একটি চমৎকার সংগঠন৷ ঢাকা থেকে মিডিয়ায় প্রায়ই পরিষদের সেবামূলক ও সংস্কার মূলক কাজের সংবাদ পেতাম৷ আজ এর প্রোগ্রামে আসতে পেরে আমি আনন্দিত৷ আপনারা আরো গতিশীলতার সাথে এগিয়ে যান৷ এবং সমাজের সুস্থ ও অগ্রণী চিন্তার মানুষদের উচিৎ পরিষদের সাথে একযোগে কাজ করা৷

পরিষদের সভাপতি আল্লামা ইউসুফ সাদিক হক্কানীর সভাপতিত্বে ও মুফতি সুলতান মাহমুদ ও মুফতি আলী আকরামের সঞ্চালনায় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন মাওলানা আলী আযম, মুফতি কাওসার হুসাইন, মাওলানা রফিকুল ইসলাম সরদার, মাওলানা আঃআজীজ, মাওলানা মাহফুজ হায়দার, মাওলানা মাহবুব গুলজার সহ পরিষদের কেন্দ্রীয় ও তৃনমূল দায়িত্বশীলগণ।