সিরিয়ায় আসাদ বাহিনীর হামলায় চোখ হারাল ২ মাস বয়সী শিশু

| সোহেল আহম্মেদ

উত্তর-পশ্চিম সিরিয়ার ইদলিবে আসাদ বাহিনী এবং ইরান-সমর্থিত সন্ত্রাসবাদী দলগুলির হামলায় এক চোখ হারিয়েছে ২ মাস বয়সী সিরিয়ান শিশু আবদুর রহমান জাবি।

ইদলিবে নতুন করে যুদ্ধবিরতি ঘোষণার কয়েকদিন আগে গত ৫ মার্চ জাবিদের বাড়িতে বোমা হামলা চালায় আসাদ বাহিনী ও তার মিত্ররা। সে সময় মাথায় ও চোখে মারাত্মকভাবে আঘাতপ্রাপ্ত হয় শিশু জাবি। পরে চিকিৎসার জন্য জাবিকে তুর্কি সীমান্তের নিকটে বাব আল-হাওয়া হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। ডাক্তাররা শত চেষ্টা করেও জাবির চোখটি ভালো করতে পারেনি।

আব্দুর রহমান জাবির বাবা জহির জাবি গণমাধ্যমের কাছে ঘটনার বিবরণ দিতে গিয়ে কান্না জড়িত কন্ঠে বলেন, আমি চুলার জন্য কাঠ আনতে গিয়েছিলাম। তখন হঠাৎ বোমা হামলা শুরু হয়। একটি বোমা আমাদের বাড়িতে আঘাত করে। আমি দ্রুত বাড়ি পৌঁছে দেখলাম বাড়ি ধুলো এবং ধোঁয়ায় পূর্ণ হয়ে গেছে। স্ত্রীকে জিজ্ঞাসা করলাম, ‘তুমি ঠিক আছ?’ আর শিশুর মা শিশুটির বাবার প্রশ্নের জবাবে ‘আমি ভাল আছি আব্দুর রহমানের মাথায় রক্তক্ষরণ হচ্ছে’। এরপর জাবিকে নিকটস্থ মেডিকেল সেন্টারে নিয়ে গেলে তারা তাকে তুর্কি সীমান্তের বাব আল-হাওয়া হাসপাতালে স্থানান্তরিত করে। এক্সরে রিপোর্টে দেখা যায়, আমার ছেলে মাথায় মারাত্মক আঘাতের কারণে মাথার খুলিতে রক্তক্ষরণ হয়েছে ও দুই জায়গায় ফেটে গেছে। চিকিৎসকরা মাথার চিকিৎসা করলেও আমার ছেলের চোখ রক্ষা করতে পারেনি। চিকিৎসকরা আমার সন্তানের চোখ ফেলে দেওয়ার বিষয়ে আমাকে একটি কাগজে স্বাক্ষর করতে বললে আমি প্রথম দিন স্বাক্ষর করার জন্য নিজেকে সম্মত করতে পারিনি। অবশেষে আল্লাহর শুকরিয়া আদায় করেছি এই ভেবে যে তিনি আমার ছেলেকে বাঁচিয়ে রেখেছেন।

তিনি আরো বলেন, পাঁচ বছর আগে আমার ৬০ বছর বয়সী মা আর এখন আমার ২ মাসের ছেলে এই হামলার শিকার হয়েছে। তাদের কেউই কোন অপরাধ করেনি। নিরপরাধ মানুষদের উপর এ হামলা বন্ধ করতে হবে।

সূত্র: আনাদোলু এজেন্সি

Previous post ওয়াজ-মাহফিল, পূজা, রাজনৈতিক-সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান নিষিদ্ধ
Next post সড়ক দুর্ঘটনায় মাদরাসার ছাত্র নিহত হওয়ার ঘটনায় তদন্তের দাবীতে মানববন্ধন