ইনসাফ মিডিয়ার অঙ্গনে নতুন চেতনার সঞ্চার করেছে

রাশেদ আব্দুল্লাহ | শিক্ষার্থী : জামিয়া শারইয়্যাহ, মালিবাগ, ঢাকা


বাংলাদেশে প্রথম ইসলামি নিউজ পোর্টাল হিসেবে ইনসাফ-এর আবির্ভাব হয়। ইতিমধ্যে অর্ধযুগ অতিক্রম করেছে ইনসাফ। ইনিসাফ-এর আবির্ভাব অন্যকোনো নিউজ পোর্টালের ন্যায় ছিল না। ২০১৪ এর ৫মে তে ৫মে,২০১৩এর চেতনা বুকে ধারণ করেই ইনসাফের সূচনা।

যুগ যুগ ধরে এ দেশের মিডিয়া ইসলাম ও আলেমসমাজকে ঘিরে যে কোন ইস্যুতে মুসলিম সমাজকে হতাশ করেছে। বিভ্রান্ত করেছে সাধারণ মানুষকে। সেক্যুলার মিডিয়ার প্রতারণা ও প্রোপাগাণ্ডায় জর্জরিত হয়েছে নবীপ্রেমীরা।

আলহামদুলিল্লাহ, ইনসাফের আবির্ভাব সেই স্রোতের মুখে ভিন্ন চেতনার সঞ্চার করেছে। গণমানুষের ভালোবাসার ডানায় ভর করে শত প্রতিকূলতা ডিঙিয়ে ছয় বছরের মাথায় সফলতার মাইলফলকে পৌঁছেছে।

মাদরাসার ছাত্র হিসেবে ইসলাম নিয়ে হলুদ মিডিয়ার বিভ্রান্তি সবসময় ভীষণ ব্যথিত করত আমাকে। বিশেষতঃ ২০১৩ ও তার পরবর্তী ট্রাজেডি সমূহ। সে ব্যথা থেকে মিডিয়ার অঙ্গনে কাজ করার লক্ষ্য স্থির করি। স্বপ্ন লালন করি নতুন কিছু করার। পারিপার্শ্বিক প্রতিকূলতা স্বপ্নের পথে বাধা হয়ে দাঁড়ায় বারংবার। তবে সাইয়েদ মাহফুজ খন্দকারের মতন তারুণ্য আমাদের স্বপ্নের পথ সুগম ও প্রশস্ত করেছেন। ইনসাফের সাফল্য আমাদেরকে করেছে আশ্বস্ত।

ইনসাফ হয়ে এদেশে আরও বহু ইসলামি নিউজ পোর্টাল জন্ম লাভ করেছে। ভবিষ্যতে আরও করবে। প্রিন্ট ও ইলেট্রোনিকসহ সকল অঙ্গনে ছড়িয়ে পড়বে ইসলামি মিডিয়া এবং ছাড়িয়ে যাবে সবাইকে। ইন শা আল্লাহ। এ সবকিছুর কৃতিত্ব ও নেতৃত্ব একক ইনসাফেরই প্রাপ্য। আগামীদিনে ইনসাফ-এর পথচলা সুগম ও স্বার্থক হোক, এই কামনা করি আল্লাহর কাছে।

Previous post ইনসাফ চেতনার বাতিঘর
Next post ইনসাফ আমাদের চাওয়াকে পাওয়ায় পরিণত করেছে