ইনসাফ সত্যকে ছড়িয়ে দিবে যুগ থেকে যুগান্তরে

রফিকুল ইসলাম | শিক্ষার্থী: জামিয়া মাদানিয়া বারিধারা


ইনসাফ মিডিয়া জগতে একটি আদর্শ, একটি চেতনার নাম। অন্যায়ের বিরুদ্ধে গর্জে উঠা তালোয়ারের নাম।

দেশ যখন হলুদ মিডিয়ার দৌরাত্ম্যে নাজেহাল, কুপোকাত। ঠিক তখন ন্যয় আর সাম্যের আত্মপ্রকাশ ইনসাফ নামে।

সাফল্যের সপ্তম বর্ষে পদার্পণ। সংবাদ মাধ্যমে ইনসাফ প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে। ইনশাআল্লাহ ইনসাফ একদিন এদেশের শক্তিশালী মিডিয়া হবে।যখন সারাবিশ্বে হলুদ মিডিয়ার ছড়াছড়ি, সত্যকে গ্রাস করে নিচ্ছে মিথ্যা,তখন সর্বপ্রথম এগিয়ে আসে ইনসাফ।

ইসলামি ঘরানার সর্বপ্রথম নিউজ পোর্টাল ইনসাফ শুরু থেকেই নিরপেক্ষ নিউজ করে আসছে। সাহসের সাথে তুলে ধরেছে সমাজের অন্যায় অবিচারের কথা। অসংগতিগুলো বিশ্লেষণ করছে সময়ের আয়নায়। প্রতিদিন তুলে ধরছে আমাদের সমৃদ্ধি ও অগ্রগতির চিত্র। তুলে ধরছে দেশ-বিদেশ, মানুষ ও মানবতার বাস্তবচিত্র। কাজ করছে দেশ,স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব ও মানুষের কল্যাণে। অটল থাকছে ইসলামী নীতি-আদর্শে।

তবে এর পিছনে রয়েছে প্রিয় সম্পাদক সাইয়্যেদ মাহফুজ খন্দকার এর অক্লান্ত পরিশ্রম। তিনি নিজে চেষ্টা করেছেন, সতীর্থদের দিয়েছেন যতেষ্ট উৎসাহ । আজ সকলের আস্থার মুর্তপ্রতিক ইনসাফ।

বর্তমানে মূলধারার মিডিয়াগুলো যেখানে অপসংস্কৃতির বিষাক্ত স্রোতে গা ভাসিয়ে চলতে অভ্যস্ত, সেই সময়ে একজন তরুণ সম্পাদকের নেতৃত্বে স্রোতের বিপরীতে দাঁড়িয়ে চ্যালেঞ্জ নিয়েই ইনসাফ ইসলামী মূল্যবোধ তুলে ধরার চেষ্টা করে যাচ্ছে।

হ্যাঁ, ইনসাফ তার নিরপেক্ষ সংবাদ পরিবেশনের মাধ্যমে টিকে থাকবে পাঠকের হৃদয়ে। সততা ও নিষ্ঠায় জয় করবে মানুষের মন। সত্যকে ছড়িয়ে দিবে যুগ থেকে যুগান্তরে কাগজের পাতা থেকে অন্তরে অন্তরে।এই অগ্রযাত্রায় রইলো ইনসাফের জন্য অনেক অনেক শুভকামনা। সকলের দোয়া, ভালোবাসা আর উৎসাহে ইনসাফ এগিয়ে যাবে দুর্বার গতিতে। হয়ে উঠবে ন্যায় ও ইনসাফের মূর্তপ্রতিক।

Previous post উল্টোস্রোতের মুখে ইনসাফের অগ্রযাত্রা
Next post করোনাকালে সেনা অভ্যুত্থানের গুঞ্জনকে পাত্তাই দিলো না এরদোগানের সরকার