ইরাকের নতুন প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানিয়েছে তুরস্ক

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম | নাহিয়ান হাসান


ইরাকে আস্থাভাজন ভোটে নতুন সরকার নির্বাচন করায় স্বাগত জানিয়েছে তুরস্ক। একই সাথে নতুন সরকারকে পূর্ণ সহায়তা দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে রজব তাইয়েব এরদোগানের নেতৃত্বাধীন তুরস্ক।

বৃহস্পতিবার (৭ই মে) ইরাকি সংসদের মন্ত্রী পরিষদ ‘মোস্তাফা আল কাজেমিকে’ প্রধানমন্ত্রী মনোনীত করার অনুমোদন দেয়।

তুরস্কের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক লিখিত বিবৃতিতে জানায়, “আমরা নতুন সরকারের কাছে ইরাকের প্রতিনিধি পরিষদ কর্তৃক প্রদত্ত ‘আস্থাভাজন ভোটকে’ স্বাগত জানাই এবং আমরা প্রধানমন্ত্রী মোস্তফা আল-কাজেমির সাফল্য কামনা করি। তিনি এমন এক সময়ে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব গ্রহণ করেছেন যখন পুরো বিশ্ব সংকটময় সময় পার করছে।”

ইরাকের সংসদ আস্থাভাজন ভোটের ক্ষেত্রে ২২ টি আসনের সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে মন্ত্রিসভা থেকে ১৫ জন মন্ত্রীকে অনুমোদন দিয়েছিল। দু’জন মন্ত্রীর পক্ষে ভোটগ্রহণ স্থগিত হওয়ার পাশাপাশি পাঁচজনের মন্ত্রীত্বের প্রার্থীতা বাতিল করে দেওয়া হয়েছে। ফলে তেল ও বিদেশ বিষয়ক কার্যালয় সহ সাতটি আসন এখনও শূন্য রয়েছে।

তুর্কী পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় আরো জানায়, তারা বিশ্বাস করে যে ইরাকের নতুন সরকার ভ্রাতৃপ্রতিম ইরাকি জনগণের সমস্ত মৌলিক চাহিদাকে প্রাধান্য দিয়ে তাদের বৈধ প্রত্যাশা পূরণে এবং আমাদের অঞ্চলের স্থিতিশীলতায় অবদান রাখার দৃঢ় পদক্ষেপ নেবে।

এছাড়াও বিবৃতিতে আরো উল্লেখ করা হয়েছে যে, আমরা নতুন সরকারের সাথে সম্ভাব্য সকল ক্ষেত্রে সহযোগিতা করার উদ্দীপনা নিয়ে কাজ করার জন্য প্রস্তুত। আমরা প্রথম বরং সর্বাগ্রে নিরাপত্তা তারপর বাণিজ্য, বিনিয়োগ এবং পারস্পরিক স্বার্থের ভিত্তিতে পুনর্নির্মাণের বিষয়ে সহযোগিতা মূলক কর্মকাণ্ডে আগ্রহী, যেমনটি পূর্ববর্তী ইরাকি সরকারগুলির ক্ষেত্রেও ছিল।

নির্ধারিত কোনো প্রার্থী না থাকায় যখন ‘তেল ও পররাষ্ট্র মন্ত্রী পদের ভোটগ্রহণ’ স্থগিত করা হয়েছিল তখন বিচার, শরনার্থী ও অভিবাসন, কৃষি, বাণিজ্য, এবং সংস্কৃতি ও পর্যটন মন্ত্রনালয়ের প্রার্থীদের প্রার্থীতাও ইরাকি সংসদ কর্তৃক বাতিল হয়ে গিয়েছিল।

ভোট পরবর্তী সময়ে আল-কাজেমি এবং ১৫ জন অনুমোদিত মন্ত্রী মহোদয় সংসদে শপথ গ্রহণ করেছেন।

রাষ্ট্রপতি বারহাম সালিহ ইরাকি জাতীয় গোয়েন্দা সংস্থার প্রাক্তন পরিচালক আল-কাজেমিকে ৯ এপ্রিল প্রধানমন্ত্রী পদের জন্য মনোনয়ন দিয়েছিলেন।

অক্টোবরের শেষের দিকে দরিদ্র জীবনযাত্রা ও দুর্নীতির কারণে ‘ইরাক সরকার’ ব্যাপক বিক্ষোভের মুখে পড়েছিল। এই বিক্ষোভ প্রধানমন্ত্রী আদিল আবদুল-মাহদীকে পদত্যাগ করতে বাধ্য করেছে।

ইরাকের মানবাধিকার বিষয়ক হাই কমিশনের রিপোর্ট অনুসারে ১ই অক্টোবর থেকে বিক্ষোভ শুরু হওয়ার পর থেকে কমপক্ষে ৪৯৬ ইরাকি নিহত এবং প্রায় ১৭,০০০জন ইরাকি নাগরিক আহত হয়েছেন।