কবে শেষ হবে লগি-বৈঠার রাজনীতি? আর কত মরবে মানুষ? : আল্লামা আতাউল্লাহ

অক্টোবর ১০, ২০১৯ ডেস্ক রিপোর্ট

বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলন প্রধান আমীরে শরীয়ত আল্লামা আতাউল্লাহ হাফেজ্জী বুয়েটের মেধাবী ছাত্র আবরার ফাহাদ এর হত্যাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক বিচার দাবিব করে বলেছেন, দেশে গুম, খুন, নির্যাতন ও রাজনৈতিক প্রতিহিংসার বলি হচ্ছে সাধারন জনগণ। মানুষের জান-মালের কোন নিরাপত্তা নেই। মানুষ গড়ার কারখানা শিক্ষাঙ্গনে চলে অস্ত্রের মহড়া। সাধারণ শিক্ষার্থীদের নিরাপদ শিক্ষার পরিবেশ নেই, নেই মত প্রকাশের স্বাধীনতা। সরকার দলীয় ক্যাডারদের হাতে শিক্ষাঙ্গনসহ প্রতিটি নাগরিক আজ জিম্মী। দেশের প্রতিটি সেক্টরে চলছে দুর্নীতির মহোৎসব। একদিকে যুবলীগ নেতা-কর্মীরা ক্যাসিনোর মাধ্যমে যুব সমাজকে ধ্বংসের দিকে ঠেলে দিচ্ছে অন্যদিকে ঈমানদার নামাজী ছাত্রদেরকে পিটিয়ে মারছে ছাত্রলীগ। কবে শেষ হবে ১/১১ এর লগি-বৈঠার রাজনীতি? আর কত মরবে মানুষ? এ অরাজকতা আর বরদাশত করা যায় না। জামাত-শিবিরের নাম দিয়ে সাধারন নিরাপরাধ মানুষ হত্যার রাজনীতি বন্ধ করতে হবে। অবিলম্বে আবরারের খুনিদের দ্রুত বিচার কার্যকর করতে হবে।

আজ সকালে মারকাজুল খেলাফত কামরাঙ্গীরচর মাদরাসায় বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলনের কেন্দ্রীয় মজলিসে আ’মেলার মাসিক বৈঠকে সভাপতির ভাষণে তিনি এসব কথা বলেন। এসময় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন দলের মহাসচিব মাওলানা হাবিবুল্লাহ মিয়াজী, নায়েবে আমীর মাওলানা মুজিবুর রহমান হামিদী, মাওলানা ফিরোজ আশরাফী, সাংগঠনিক সম্পাদক মুফতি সুলতান মহিউদ্দীন, মাওলানা আনোয়ারুল্লাহ ভূইয়া, মাওলানা ইউসুফ সাদেক হক্কানী, মাওলানা সাজেদুর রহমান ফয়েজী, মাওলানা সাইফুল ইসলাম সুনামগঞ্জী, মৌলভী আব্দুর রকিব, মুফতি ইলয়াস মাদারীপুরী, মুফতি আফম আকরাম হুসাইন, মাওলানা মামুনুর রশীদ, মাওলানা রুহুল আমিন ও জনাব আনসার উদ্দিন প্রমূখ।

সভায় ভারতের সাথে ফেনী নদীর পানি চুক্তিসহ দেশ বিরোধী সকল চুক্তি বাতিলের দাবি জানানো হয়। আগামী ২৯ নভেম্বর শুক্রবার কেন্দ্রীয় মজলিসে শুরা এবং পরের দিন ৩০ নভেম্বর শনিবার দলের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষ্যে প্রতিনিধি সম্মেলন মারকাজুল খেলাফত কামরাঙ্গীরচর মাদরাসায় কারার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।