উদ্যমী তরুণদের হাত ধরে এগিয়ে যাচ্ছে ইনসাফ

মাওলানা আতাউল করীম মাকসুদ | পরিচালক : মাদরাসাতুশ শায়খ ইউসুফ বানুরী রহ.


৫ মে ২০১৩৷ ইতিহাসের নির্মম হত্যাযজ্ঞের শিকার হন দেশের তাওহীদী জনতা৷ শাপলা চত্বরে ভয়াবহ নির্যাতনের শিকার হই আমি/আমরা৷ সেসময় আমাদের শক্তিশালী মিডিয়া ছিল না৷ যারা যেভাবে পেরেছে, আন্দোলনকে নিজস্ব ধ্যানধারণায় কভারেজ করেছে৷ এখানে মিথ্যা তথ্য তুলনায় বাস্তব চিত্র খুব কমই এসেছে।

এরপর ২০১৪ সালের ৫মে৷ কিছু তরুণ স্বপ্ন দেখেন আমাদের মিডিয়া প্রতিষ্ঠার৷ বলা যতটা সহজ, বাস্তবায়ন ততটা সহজ নয়৷ হাটহাজারি মাদরাসায় অনুষ্ঠানের মাধ্যমে আত্মপ্রকাশ করে ইনসাফ৷ পুরো কওমী অঙ্গনের প্রথম অনলাইন পত্রিকা৷ দেশের প্রথম সারির সকল আকাবির উলামায়ে কেরামের আস্থা ও ভালোবাসা অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে আমাদের ইনসাফ৷ আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী হাফিজাহুল্লাহু তাআলা তো বলেছেন, “ইনসাফ আমার স্বপ্ন পূরণ করছে”৷
আজ ইনসাফ অর্ধযুগ পূর্ণ করেছে৷ চলার পথ মসৃণ ছিল না৷ যোগ্য সম্পাদক সাইয়েদ মাহফুজ খন্দকারকে ধন্যবাদ জানাতে হয়৷ উদ্যমী এই তরুণের হাত ধরে এগিয়ে চলছে ইনসাফ৷

বিশ্বখ্যাত ইসলামিক স্কলার মাওলানা আলি মিয়া নদবি রাহিমাহুল্লাহ বলেছেন, “যে জাতির হাতে প্রেস নেই, তাদের অধিকার রক্ষিত হওয়ার কোনো নিশ্চয়তা নেই৷” তিনি তাঁর সময়ের কথা বলেছেন৷ এখন বেঁচে থাকলে বলতেন, যাদের মিডিয়া নেই, তাদের ভাগ্যে কল্যাণ নেই৷

আসুন, বিরোধীতা ও অহেতুক সমালোচনা তরক করে ইনসাফের পাশে দাঁড়াই৷ অনেক অনেক শুভ কামনা ইনসাফ পরিবারের জন্য৷