করোনাভাইরাস: বাংলাদেশে শাটডাউনের ইঙ্গিত

করোনাভাইরাসের কারণে বাংলাদেশে কি ‘শাটডাউন’ (কাজ বন্ধ করে দেয়া) হবে? এমন প্রশ্ন দেখা দিয়েছে।

এবিষয়ে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, করোনাভাইরাসের কারণে বাংলাদেশে প্রয়োজনে শাটডাউন করা হবে।

বুধবার (১৮ মার্চ) বেলা ১১টায় সচিবালয়ে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের সম্মেলনকক্ষে সমসাময়িক ইস্যুতে সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন।

অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও যদি শাটডাউন করতে হয়, সে ক্ষেত্রে বাংলাদেশের প্রস্তুতি আছে কিনা জানতে চাইলে ওবায়দুল কাদের বলেন, প্রয়োজন হলে শাটডাউন করা হবে। সবার আগে মানুষকে বাঁচাতে হবে। সে জন্য যা যা করণীয় করা হবে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মহাপরিচালকের বক্তব্যের উদ্ধৃতি দিয়ে তিনি বলেন, ওয়ার্ল্ড হেলথ অর্গানাইজেশনের মহাপরিচালক গতকাল যে বক্তব্য দিয়েছেন, সেখানে কথা একটিই ছিল– টেস্ট, টেস্ট অ্যান্ড টেস্ট তিনবার এটি উচ্চারণ করেছে। তিনি বলেছেন– টেস্টের ওপর গুরুত্ব দেয়া উচিত, আমরাও সেটি অনুসরণ করে এগিয়ে যাব।

প্রসঙ্গত, চীনের উহান থেকে বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া মহামারী করোনাভাইরাসে (কোভিড-১৯) মোট আক্রান্ত হয়েছেন ১ লাখ ৮২ হাজার ৭৬৪। এর মধ্যে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৭৯ হাজার ৮৮৪ জন। আর মৃত্যু হয়েছে ৭ হাজার ৪৯৭ জনের।

মঙ্গলবার (১৭ মার্চ) পর্যন্ত আন্তর্জাতিক জরিপ সংস্থা ওয়ার্ল্ডমিটারসের হিসেবমতে, এ পর্যন্ত ৭ হাজার ৪৯৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। জটিল আক্রান্ত অবস্থায় আছে ৬ হাজার ১৬৩ জন এবং নিয়মিত চিকিৎসা নিচ্ছেন ৯৫ হাজার ৭০৬ জন।

জরিপ সংস্থাটির মতে, বিশ্বের ১৬২টি দেশ ও অঞ্চলে এ ভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে।

সবচেয়ে বেশি ৮০ হাজার ৮৮১ আক্রান্ত ও ৩ হাজার ২২৬ জনের মৃত্যু হয়েছে চীনে। যদিও চীনে করোনার প্রকোপ অনেকাংশে কমে এসেছে। নতুন করে দেশটিতে আক্রান্ত হয়েছে ২১ জন ও মারা গেছে ১৩ জন।

চীনের বাইরে ইতালিতে ভয়াবহ তাণ্ডব চালাচ্ছে করোনাভাইরাস। সেখানে এখন পর্যন্ত আক্রান্তের সংখ্যা ২৪ হাজার ৭৪৭ জন এবং মৃত্যু হয়েছে ১৮০৯ জনের। ইতালির পরেই অবস্থান করছে ইরান ও দক্ষিণ কোরিয়া। ইরানে এখন পর্যন্ত ১৩ হাজার ৯৩৮ জন এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন এবং মারা গেছেন ৭২৪ জন। দক্ষিণ কোরিয়ায় করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ৮ হাজার ২৩৬ এবং মারা গেছে ৭৫ জন।

Leave a Reply