করোনা ঠেকাতে প্রচলিত পদ্ধতি বাদ দিয়ে হাদীসের ফর্মুলা গ্রহনের আহবান

আরিফুল ইসলাম শিকদার | আহ্বায়ক : এম জে পি


আমরা এম জে পি র পক্ষ থেকে সরকারের প্রতি দাবি করছি ইউরোপ – আমেরিকার কপি পেস্ট বাদ দিয়ে হাদীসের ভাষ্য গ্রহন করে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহন করুন। পুরো দেশ একলক্ষ ভাগে ভাগ করে প্রতিটি ভাগের সীমানা লকডাউন করুন। এরিয়ার ভেতর জনগনের স্বাভাবিক কর্মকান্ড যথা সম্ভব পরিচালিত হওয়ার সুযোগ দিন। কারন আপনারা তাদের খাবারের দায়িত্ব নেওয়ার যোগ্য নন। ইউরোপ-আমেরিকা তাদের জনগনের খাবারের দায়িত্ব নিতে সক্ষম। সকল ডাক্তার এবং যেসব নিরাপত্তা সদস্যরা রাস্তায় বের হয়ে কাজ করছে তাদের পিপিই নিশ্চিত করুন।

আর আমরা এটাও লক্ষ্য করছি যে টেস্টের নামে চলছে এক প্রহসন । করোনা ভাইরাস যেখানে ছড়াচ্ছে প্রায় জ্যামিতিক হারে সেখানে আপনাদের টেস্ট গানিতিক হারেও নয়। আর টেস্ট করে যেসব রোগীকে সুস্থ পাওয়া যাচ্ছে তাদের জন্য নেই কোন সেইফ জোন। এম জে পি সেইফ জোন গঠনের জোর দাবি জানাচ্ছে। এবং এটা কিভাবে সম্ভব তা এম জে পি-র তরফ থেকে বারবার বুঝানো হয়েছে। আমরা আবারো বলছি দেশকে এক লক্ষ ভাগে ভাগ করুন। এক ভাগের লোক আরেক ভাগে যাবে না। ১৫ দিন পর আমরা নিশ্চিত হয়ে যাবে কোনটি সেইফ জোন এবং কোনটি ডেঞ্জার জোন। এবং এই ক্ষেত্রে ডেঞ্জার জোনগুলোর দিকে অধিক মনোনিবেশ করা যাবে।

এখনকার প্রসেস এম জে পি প্রত্যাখ্যান করছে। আমরা দেখছি কোন এরিয়ায় করোনা ভাইরাসের রোগী পাওয়া গেলে তখনই কেবল সেই এরিয়া লকডাউন করা হচ্ছে। বাকি এরিয়াগুলোতে করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়া পর্যন্ত অপেক্ষা করা হচ্ছে। কেন এই অপেক্ষা ?

আমরা সম্পূর্ন নিশ্চয়তার সাথে দাবি করছি যে ফর্মূলায় করোনা ভাইরাস ঠেকানোর চিন্তা করা হচ্ছে সেই ফর্মূলা ইতিমধ্যে ব্যার্থ ফর্মূলা। এই ফর্মূলা মূলত রচিত হয়েছে ধনী শ্রেনীর ব্যবসা টিকানোর জন্য । গরীব, নিম্ন মধ্যবিত্ত বা মধ্যবিত্তদের বাচানোর ফর্মূলা এটি নয়। এই ভুল ফর্মূলা কোন সরকার বা প্রশাসনই করোনার মত ভাইরাস প্রতিরোধ করতে পারবে না।

তাই আমরা আবারো বলছি হাদীসে বর্নিত ফর্মূলাই কেবল বর্তমানে জাতিকে মুক্তি দিতে পারে। আর তা হল সকল এরিয়া এক যোগে বিচ্ছিন্ন করে দেওয়া। সেইফ জোন এবং ডেঞ্জার জোন ১৫ দিনের মধ্যে পৃথক করে ফেলা। এবং স্বাভাবিক কাজকর্মে ফিরে যাওয়া। যাতে অসহায় জনগন ক্ষুধার জ্বালায় মৃত্যুবরন করতে না হয়।

এবং সরকার চাইলে আমরা পুরো বিষয়টি নিয়ে তাদের সাথে আলাপ আলোচনা করতে পারি। কারন সরকার বিরোধীতা আমাদের উদ্দেশ্য নয় বরং জনগনকে বাচাইনো আমাদের উদ্দেশ্য।

একই সাথে আমরা জনগনের প্রতি আহবান জানাই :
১. সদকা করুন। সদকা বিপদ আপদ দূর করে। আপনার যাকাতের টাকাও এখনই হিসাব করে দিয়ে দিন। গরীব অসহায়দের পাশে দাড়ান।

২. আপনার গ্রাম, পাড়া মহল্লা বা এরিয়াকে লকডাউন করুন। এরপর স্বাভাবিক কাজ কর্মে ফিরে আসুন। তবে অবশ্যই আপনার এরিয়ার বাইরে যাবেন না বা কাউকে আপনার এরিয়ায় প্রবেশ করতে দিবেন না। বের বা প্রবেশের খুব বেশী প্রয়োজন হলে পর্যাপ্ত ব্যবস্থা গ্রহনের মাধ্যমে হতে হবে।

৩. করোনা আক্রান্ত হওয়ার কোন উপসর্গ থাকলে অবশ্যই নিজেকে ঘরের মধ্যে আটকে ফেলুন। পরিবার পরিজন থেকেও নিরাপদ দূরত্ব রাখুন। তাদেরও ঘরেই রাখুন। টেস্টের জন্য ঘরের বাইরে গিয়ে আরো মানুষকে করোনা আক্রন্ত না করার কারনে আপনি হাদীসের ভাষ্য মতে শহীদের সওয়াব পাবেন। কারন আপনি মানুষের জীবন রক্ষা করছেন।

৪. যারা ত্রান বিতরন করছেন তারাও নিজ এরিয়ার ভিতর করুন। এবং শহরের বাইরে হলে ত্রানের সাথে কিছু শাক সবজির বীজ দিয়ে দিন।

৫. ঘরের বাহিরে সকলের কাছ থেকে নিরাপদ দূরত্ব বজায় রাখুন। ঘরে প্রবেশের ক্ষেত্রে পূর্ন সতর্কতা অবলম্বন করুন।
আমরা প্রত্যেকে আপন প্রতিপালকের নিকট অধিক দোআর মাধ্যমে এই বিপদ থেকে মুক্তির দরখাস্ত করি। তিনি যেন আমাদের ক্ষমা করেন এবং এই বিপদ থেকে আমাদের পরিত্রান দান করেন।

 সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম  ফেসবুক  থেকে নেয়া