করোনা পরিস্থিতিতে মসজিদ চালু রাখার ব্যাপারে একমত শীর্ষ আলেমরা

করোনা পরিস্থিতিতে সারাদেশে অঘোষিত লকডাউনের মধ্যে দেশের সকল মসজিদ চালু রাখা এবং জুমু’আর জামাতসহ সকল জামাত চালু রাখার পূর্বের মতামতে একমত রয়েছেন দেশের শীর্ষস্থানীয় আলেমরা। কোনভাবেই মসজিদ বন্ধ করা যাবেনা বলে মত দিয়েছেন তারা। তবে পরিস্থিতির আরো অনবতি হলে সেক্ষেত্রে উপস্থিতি সীমিত করে জামা’আত চালু রাখতে হবে বলে মতামত এসেছে।

রোববার (২৯ মার্চ) ইসলামিক ফাউন্ডেশনের (ইফা) আগারগাঁস্থ কার্যালয়ে কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠকে আলেমরা তাদের এই মতামত ব্যক্ত করেন।

জানা গেছে, করোনা পরিস্থিতিতে মসজিদ বন্ধের ব্যাপারে মিশরের আলআজহার বিশ্ববিদ্যালয়ের ফতোয়া এবং কয়েকটি মুসলিম রাষ্ট্রে নামাজ বন্ধ করার বিষয়কে সামনে রেখে বাংলাদেশেও মসজিদ বন্ধ রাখা বা মুসল্লিদের মসজিদে যেতে বিরত থাকতে অনুরোধ করা যায় কিনা- মতামত জানতে দ্বিতীয়বারের মতো আলেমদের ইফায় ডাকা হয়। ঢাকার বাইরে অবস্থান নেয়া কিছু আলেমেরও মতামত নেয়া হয় ফোনে।

তবে এতে আলেমরা সাড়া দেননি বলে বৈঠকে অংশ নেয়া ইফার একাধিক কর্মকর্তার সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে। নতুন কিছু না থাকায় এই বৈঠকের ব্যাপারে ইফার পক্ষ থেকে আনুষ্ঠানিক কোন বিজ্ঞপ্তি দেওয়ার প্রয়োজনীয়তা আছে বলেও মনে করছেন না কর্মকর্তারা।

বৈঠকে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, মাওলানা ফরিদ উদ্দিন মাসউদ, বায়তুল মোকাররমের পেশ ইমাম মুহিব্বুল্লাহিল বাকী নদভি, শায়েখ জাকারিয়া রহ. ইসলামিক রিসার্চ সেন্টারের মহাপরিচালক মুফতি মিজানুর রহমান সাঈদ, মুফতি দিলাওয়ার হুসাইন, মাওলানা মাহফুজুল হক, বায়তুল মোকাররমের পেশ ইমাম মুফতী মিজানুর রহমান, ড. মাওলানা কাফিলউদ্দীন সরকার সালেহি প্রমুখ। ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মহাসচিব আনিস মাহমুদসহ উর্ধতন কর্মকর্তারা বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে গত ২৪ মার্চ আলেমদের নিয়ে ইফা বৈঠকে বসে মতামত নিয়ে তাদের তিনটি আহবান প্রচার করেছিল। মসজিদেরর জামাতে মুসল্লি সীমিত করা এবং ব্যক্তিসুরক্ষা নিয়ে মসজিদে যাওয়া এবং অসুস্থ, বৃদ্ধ ও শিশুদের মসজিদে না যাওয়ার অনুরোধ জানানো হয়।

এর আগে গত ২০ মার্চ এক বিজ্ঞপ্তিতে ইফা মুসল্লিদের বাসা থেকে অজু করে নফল ও সুন্নত নামাজ পড়ে শুধু জুমু’আর ফরজ নামাজ পড়তে মসজিদে যেতে পরামর্শ দিয়েছিল। অসুস্থ ব্যক্তি, জ্বর, হাঁচি-কাশিতে আক্রান্ত এবং বিদেশ থেকে আসা ব্যক্তিদের মসজিদে না যাওয়ার অনুরোধ জানানো হয়েছিল।