কাজী জাফরউল্লাহকে ‘রাজাকার’ বললেন বঙ্গবন্ধুর নাতি

মার্চ ১, ২০১৬

nixon-mpআওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য কাজী জাফরউল্লাহকে ‘রাজাকার’ বলে আখ্যায়িত করেছেন ফরিদপুর-৪ আসনের এমপি মজিবুর রহমান চৌধুরী নিক্সন।

মঙ্গলবার সকালে ভাঙ্গা উপজেলা চেয়ারম্যানের কক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ অভিযোগ করেন।

নিক্সন চৌধুরীর পিতা মরহুম ইলিয়াস চৌধুরী বঙ্গবন্ধুর আপন ভাগ্নে। নিক্সন চৌধুরীর বড় ভাই নুরে আলম চৌধুরী লিটন মাদারীপুর-২ (শিবচর) আসনের এমপি।

মজিবুর রহমান চৌধুরী নিক্সন বলেন, কাজী জাফরউল্লাহকে পাকবাহিনীর ‘খাদ্য সরবরাহকারী’। পাক সেনাদের এই দোসর নির্বাচনে হেরে গিয়ে আবার একাত্তরের মতো মানুষ হত্যার রাজনীতি শুরু করেছে।

তিনি আরো বলেন, নির্বাচনে হারের দায় এখন আওয়ামী লীগের ঘাড়ে চাপাতে চায় সে। আমি বঙ্গবন্ধু পরিবারের সদস্য হয়ে এটা হতে দিতে পারি না।

আসন্ন পৌর নির্বাচনে ভাঙ্গার সাবেক এমপি ও আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য কাজী জাফরউল্লাহ ভাঙ্গার বর্তমান মেয়র আবু রেজা ফয়েজকে সমর্থন দিয়েছেন।

অপর দিকে ভাঙ্গার বর্তমান এমপি নিক্সন চৌধুরী সমর্থন দিয়েছেন কাজী জাফর মুন্সিকে।

দুইজনেরই দাবি, তাদের সমর্থিত প্রার্থীই কেন্দ্র থেকে চূড়ান্ত মনোনয়ন পাবেন। এ মনোনয়নকে ঘিরেই দুইজন জড়িয়ে বাকবিতণ্ডায় পড়েছেন। এ নিয়ে ভাঙ্গায় রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের ঘটনাও ঘটেছে।

নিক্সন বলেন, ৪০ বছর পর আমি জাফরউল্লাহকে পরাজিত করে ভাঙ্গাকে রাজাকারের অভিশাপমুক্ত করেছি। এখন আবার রাজাকারের ছেলেকে বসানো হবে। এটা আমি মেনে নিতে পারি না।

তিনি আরো বলেন, আমি কিছুতেই হতে দেব না। এটা আমার চ্যালেঞ্জ। জাফরউল্লাহ যতই বলুক, ২০ মার্চ তার সমর্থিত প্রাথীকে বিজয়ী বলে ঘোষণা দেবেন। আমি এটা হতে দেব না। প্রয়োজনে জাফরউল্লাহকে গৃহবন্দী করে রাখব।

মজিবুর রহমান নিক্সন বলেন, নির্বাচনের দিন কোনো অনিয়ম হতে দেব না। জনগণের জানমালের নিরাপত্তায় সদা তৎপর থাকব। আমি নির্বাচনী বিধিমালা অনুযায়ী নির্বাচন সম্পন্ন করার লক্ষ্যে কাজ করে যাব।