কৃষিখাতে সুদ মুক্ত প্রণোদনা ও সেনা নিয়ন্ত্রিত ত্রাণ তৎপরতা চায় নেজামে ইসলাম পার্টি

কৃষি খাতে সুদ মুক্ত প্রণোদনা প্রদান ও প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক ঘোষিত ৭২ হাজার কোটি টাকার প্রণোদনা দেশের সাধারণ মানুষের মধ্যে সহায়তা হিসেবে বন্টন এবং ত্রাণ কার্যক্রম সেনাবাহিনীর নিয়ন্ত্রণে পরিচালনা ও আসন্ন রমজান মাসে মসজিদগুলোকে উন্মুক্ত করে দেয়ার দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ নেজামে ইসলাম পার্টি।

আজ (১৪ এপ্রিল) পার্টির এক সভা থেকে এ দাবি জানানো হয়।

দেশের বর্তমান পরিস্থিতি বিবেচনায় ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে সভা অনুষ্ঠিত হয়।

পার্টির মহাসচিব মাওলানা মুসা বিন ইজহারের পরিচালনায় সভায় যুক্ত হোন, পার্টির উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য মাওলানা ফজলুর রহমান, সিনিয়র নায়েবে আমীর মাওলানা আবদুল মাজেদ আতহারী, নায়েবে আমীর আব্দুর রহমান চৌধুরী, মুফতী মুহাম্মদ আলী কাসেমী, যুগ্মমহাসচিব হাফেজ মাওলানা সালামত উল্লাহ, মাওলানা মনজুরুল কাদের চৌধুরী, সহকারী মহাসচিব মাওলানা ইলিয়াস খান, দফতর সম্পাদক মুফতি দীনে আলম হারুনী, অধ্যাপক মাওলানা আজিজুল হক, মাওলানা শরিফুর রহমান, মাওলানা আরশাদ বিন জালাল, মাওলানা মাহমুদ হাসান সিরাজী, ছাত্র সমাজের সভাপতি এম আতিকুর রহমান সিদ্দিকী প্রমুখ নেতৃবৃন্দ।

সভা থেকে সারাদেশের শীর্ষ নেতৃবৃন্দ চলমান সংকট, করোনা ভাইরাসের সামগ্রিক পরিস্থিতি মুল্যায়ণ ও নিবিড় পর্যালোচনা এবং করনীয় নির্ধারণে নেতৃবৃন্দ গুরুত্বপূর্ণ মতামত ব্যাক্ত করেন।

সভায় দেশের এহেন দুর্যোগের সময়ে যারা সরকারি ত্রান লুটপাট ও আত্মসাৎ করছে তাদের দৃষ্টান্ত মুলক শাস্তির জোর দাবী জানানো হয়।

নেতৃবৃন্দ প্রান্তিক প্রর্যায়ে ত্রাণ পৌছে দিতে সেনাবাহিনীর উপর দায়িত্ব অর্পণ এর দাবী জানান।

করোনা পরবর্তী খাদ্য সংকট মোকাবেলা করতে কৃষি খাতে সরকারি প্রণোদনা সম্পুর্ন সুদ মুক্ত করার জোর দাবী জানানো হয়।

সভায় বলা হয় মহান আল্লাহর সাহায্য ছাড়া এই বিপদ থেকে উত্তরণের কোন পথ নেই। তাই তাওবা, ইস্তেগফার, নামাজ ও ইবাদত এর ব্যাপক চর্চা প্রয়োজন। সে লক্ষ্যে রহমত, মাগফেরাত ও নাজাতের মাস রমজানে সকল মসজিদ সমূহ উন্মুক্ত করে দেয়া হোক।

সভা থেকে দেশ জাতি ও মানবতার পাশে থাকার দৃঢ় প্রত্যয় নিয়ে পার্টির উদ্যোগে একটি কেন্দ্রীয় ত্রাণ তহবিল গঠনেরও সর্বসম্মত সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। এবং স্থানীয় পর্যায়ে সকল নেতাকর্মীদের মানবতার সেবায় আত্মনিয়োগ করার নির্দেশনা প্রদান করা হয়।