ক্বারী আব্দুল গনী রহ. : তেলাওয়াতের স্বতন্ত্রধারা ও বিশুদ্ধতায় তিনি ছিলেন অনন্য

আগস্ট ২৫, ২০১৯

মাওলানা মাহমুদ মুজিব |  শিক্ষক, জামেয়া দারুল মা’আরিফ আল-ইসলামিয়া, চট্টগ্রাম


কুরআনুল ক্বারীমের পাখি, অসংখ্য মানুষ গড়ার ক্বরীগর, এদেশের হাজারো আলেম, ক্বারীর উস্তাদ, মাওলানা ক্বারী আব্দুল গনী (৭৬) গত ২২ আগষ্ট দিবাগত রাতে ইন্তেকাল করেছেন। ইন্না-লিল্লাহ ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন।

জুমাবার ২৩/০৮/১৯ বাদে আসর বখতেয়ারপাড়া মাদরাসায় বহু আলেমের উপস্থিতিতে তাঁর নামাজে জানাযা অনুষ্ঠিত হয়। জানাযায় ইমামতি করেন মাওলানা আবুল হুসাইন (কাফকো মসজিদের ইমাম) পরে তাঁকে মাদরাসার কবরস্থানে দাফন করা হয়।

মৃত্যুকালে তিনি এক ছেলে ও চার মেয়ে, স্ত্রীসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে যান।

ক্বারী আবদুল গণী সাহেব জামিয়া ইসলামিয়া পটিয়ায় দাওরাহাদীস সমাপ্ত করেন। এরপর উচ্চশিক্ষার জন্যে শায়খুল আরব ওয়াল আজম হাজি মুহাম্মদ ইউনুস রহঃ এর দিকনির্দেশনায় তিনি লাহোর যান। অত:পর দেশে ফিরে জামিয়া ইসলামিয়া পটিয়ায় উচ্চতর ইলমুল ক্বেরাত ওয়াত তাজবিদ বিভাগের প্রধান হিসেবে দীর্ঘকাল দায়িত্ব পালন করেছেন।

পরবর্তীতে ১৯৭৭ সালে চট্টগ্রামের আনোয়ারায় বখতেয়ার পাড়া “তারতিলুল কুরআন মাদরাসা” প্রতিষ্ঠাতা করেন। এ প্রতিষ্ঠানটি তিনি তিলেতিলে গড়ে তুলেছেন। তাঁর প্রতিষ্ঠিত মাদরাসায় পুরো বছরব্যাপী ক্বিরাতের প্রশিক্ষণ চলে। এতে দেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে তালিবুলইলম এবং আলিমদের সমাগম ঘটে।

তাঁর অবস্থান চট্টগ্রামে হলেও তিনি দেশজুড়ে প্রসিদ্ধ ছিলেন। ইলমে কেরাতে বিশেষ দক্ষতার কারণে তিনি আলেম সমাজে ব্যাপক সমাদৃত ছিলেন। কুরআন করীমের বিশুদ্ধ চর্চা ও স্বতন্ত্রধারায় তাঁর অর্জন ইতিহাসে বড় হরফেই লেখা থাকবে। তিনি ছাড়া বাংলাদেশের কিরাত জগতের ইতিহাস অসম্পূর্ণ হয়ে থাকবে।

প্রখ্যাত হাদীস বিশারদ আল্লামা আমীর হুসাইন (মীর সাহেব), আল্লামা ইসহাক (গাজী সাহেব), আল্লামা আহমদ (ইমাম সাহেব), আল্লামা নুরুল ইসলাম (কদীম সাহেব), ক্বারী জিয়াউল হুসাইন, পাকিস্তানের বিখ্যাত কারি শাইখুল কুররা ক্বারি শাকের ও ক্বারী আতাউল্লাহ রহিমাহুমুল্লাহ প্রমুখ তাঁর ওস্তাদদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য।

পটিয়ার মুফতি শামসুদ্দীন জিয়া, মাওলানা আবু তাহের নদভী, প্রফেসর ড. আবু রেজা মুহাম্মদ নেজামুদ্দিন নদভী এমপি, আন্তর্জাতিক ইসলামি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর শাকের আলম শওক, ড. মুহাম্মদ রশীদ জাহেদ, ক্বারী আব্দুল মাবুদ (বসুন্ধরা মাদরাসা), ক্বারী আব্দুল মালেক (ইছাপুর মাদরাসা), ক্বারী আব্দুল হক (ঢাকা), ক্বারী জহিরুল হক (হাটহাজারী মাদরাসা) সহ খ্যাতনামা আলেম ও প্রখ্যাত ক্বারীদের ওস্তাদ ছিলেন তিনি।

ক্ষণজন্মা এই ক্বারীর তিলাওয়াতের বিশুদ্ধতা ও স্বতন্ত্রধারার সুনাম ও সুরশিল্পের কথা হয়তো আমরা অনেকেই জানি। কিন্তু এর বাইরেও তিনি তাকওয়া ও ইখলাসে পূর্ণ একজন মহান ব্যক্তিও। অলীকুলে শিরোমণি হযরত মাওলানা আলী আহমদ বোয়ালভী রহঃ থেকে খেলাফত প্রাপ্ত হন তিনি।

তাঁর ইন্তেকালে বাংলাদেশ হারালো এক প্রোজ্জ্বল ব্যক্তিত্বকে আর আলেম সমাজ হারালো একজন অতি আপন অভিভাবককে। মহান আল্লাহ কুরআনের মুখলেস এই সেবককে তাঁর সুশীতল ছায়ায় আশ্রয় দিন। চিরস্হায়ী জান্নাতের বাসিন্দা বানিয়ে দিন।