করোনাকে উপেক্ষা করে, রোজা অবস্থাতেই পুরোহিতের লাশ নিয়ে শ্মশানে মুসলিমরা, এগিয়ে আসেনি হিন্দুরা

ভারতে চলছে লকডাউন। আর এরইমধ্যে ৮৬ বছরের পুরোহিত রমেশ মাথুর মৃত্যু হয়েছে। তার মরদেহ শ্মশানে নিয়ে যাওয়ার জন্য চারজন লোকের প্রয়োজন ছিল। শেষমেশ রোজার মধ্যে করোনার ভয়-ডরকে উপেক্ষা করে তার মরদেহ নিয়ে শশ্মানে রওনা হন মুসলিমরা। এগিয়ে এলনা হিন্দুরা।

গাঁদা ফুলের মালায় জড়ানো দেহটি কাঁধে তুলে নিয়েছেন সাদা টুপি পরা অনেকে। সেই দৃশ্য জানালা দিয়ে দেখল অনেক কৌতুহলী চোখ। অনেকে আবার ছবি ও ভিডিও করেছেন। এরই মধ্যে জয় হলো মানবতার। সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়ল এই সম্প্রীতির ছবি।

মেরঠের শাহপীর গেটে স্ত্রী ও এক ছেলেকে নিয়ে থাকতেন রমেশ। তার ছেলে চন্দ্র মৌলি মাথুর জানিয়েছেন, বাবার খাদ্যনালীতে একটা টিউমার ছিল। অনেকদিন ধরে চিকিত্‍‌সা চলছিল। মঙ্গলবার (২৮ এপ্রিল) হঠাত্‍‌ তিনি মারা যান। এই সময় প্রতিবেশীরাই (মুসলিম) আমাদের সাহায্যে এগিয়ে আসেন, বাবার দেহ নিয়ে যান শ্মশানে।

তিনি আরও বলেন, আমাদের এলাকার সব মুসলিমরা আমাদের ভাইয়ের মতো।

শাহপীর গেটের কাউন্সিলর মহম্মদ মোবিন জানিয়েছেন, এখন এমন একটা সময়, যখন আমাদের সবার পাশে দাঁড়ানো উচিত। মানবতার পরিচয় দেওয়া উচিত। মুসলিমরা রোজার উপোষ সত্ত্বেও করোনাভাইরাসের ভয়কে দূরে সরিয়ে পুরোহিতের পরিবারের পাশে দাঁড়ানোয় আমি খুব খুশি।