গাইবান্ধায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত দুই রোগী শনাক্ত

গাইবান্ধার সাদুল্লাপুরে দুইজনের মধ্যে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ধরা পড়েছে। তাদের একজন নারী এবং একজন পুরুষ।

শনাক্ত করার পর রোববার সকালে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে উপজেলা করোনা প্রতিরোধ কমিটির জরুরী সভায় সাদুল্লাপুর লকডাউন করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। উক্ত সিদ্ধান্ত অনুমোদনের জন্য গাইবান্ধা জেলা করোনাভাইরাস প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণ কমিটির নিকট পাঠানো হয়। কিন্তু জেলা করোনাভাইরাস প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণ কমিটি এই সিদ্ধান্ত অনুমোদন দেয়নি।

উপজেলা করোনা প্রতিরোধ কমিটির সদস্য সচিব উপজেলা স্বাস্থ্য পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ শাহিনুর ইসলাম জানান, সাদুল্লাপুর উপজেলার হবিবুল্লাপুর গ্রামের কাজল চন্দ্র মন্ডলের বোনের বিবাহোত্তর অনুষ্ঠানের নিমন্ত্রণে তার বাড়ীতে আমেরিকা প্রবাসী দুইজন আত্মীয় গত ১১ মার্চ আসেন। তারা দুইজন কাজল চন্দ্র মন্ডলের বাড়ীতে ১১ ও ১২ মার্চ অবস্থান করে ১৩ মার্চ বিবাহোত্তর অনুষ্ঠানের নিমন্ত্রণ খেয়ে গাইবান্ধা শহরের খাঁ পাড়ায় নিজ বাড়ীতে চলে যান। পরবর্তী বিষয়টি জেলা স্বাস্থ্য বিভাগের নজরে এলে তাদের দুইজনকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়।

তিনি আরও জানান, পরে তাদের দুইজনের নমুনা ঢাকায় রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটে (আইইডিসিআর) পাঠানো হয়। রবিবার (২২ মার্চ ) সকালে ঢাকা আইইডিসিআর থেকে জানানো হয় তাদের নভেল করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ধরা পড়েছে। এদিকে গত ১৩ মার্চ ওই বিবাহোত্তর অনুষ্ঠানে কমপক্ষে ৫ শতাধিক আত্মীয়স্বজন ও প্রতিবেশিদের সমাগম ঘটে। পরর্তীতে এই বিয়ে অনুষ্ঠানে দাওয়াতপ্রাপ্তরা গত ২১ মার্চ গাইবান্ধা-৩ (সাদুল্লাপুর-পলাশবাড়ী) আসনের অনুষ্ঠিত উপ-নির্বাচনে ভোটও দেন। এছাড়া তারা (এই বিয়ে অনুষ্ঠানে দাওয়াতপ্রাপ্তরা) হাট-বাজারসহ বিভিন্ন সামাজিক কর্মকাণ্ডে অংশ নিয়েছেন। এই অবস্থায় ভাইরাসটি দ্রুত সংক্রমণ ঘটতে পারে বলে রবিবার সকালে উপজেলা করোনা প্রতিরোধ কমিটির জরুরী সভায় সাদুল্লাপুর উপজেলা লকডাউন করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

তিনি বলেন, কাজল চন্দ্র মন্ডলের স্ত্রী এখন অসুস্থ। তকে নিজ বাড়ীতে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ নবীনেওয়াজ জানান, উপজেলা কমিটির সিদ্ধান্ত অনুমোদনের জন্য গাইবান্ধা জেলা করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণ কমিটির সভাপতি গাইবান্ধা জেলা প্রশাসকের নিকট পাঠানো হয়েছে।

গাইবান্ধা জেলা করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণ কমিটির সদস্য সচিব গাইবান্ধা সিভিল সার্জন এসএম আবু হানিফ বলেন, বিষয়টি নিয়ে অলোচনা চলমান আছে।

জেলা করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণ কমিটির সভাপতি জেলা প্রশাসক মোঃ মতিন জানান, লকডাউন করার মত পরিস্থিতি সৃষ্টি না হওয়ায় ওই সিদ্ধান্ত অনুমোদন দেওয়া হয়নি।

Previous post করোনাভাইরাস ইস্যুতে ২৫ মার্চ জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেবেন প্রধানমন্ত্রী
Next post আমেরিকায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ১২ বছর বয়সী এক শিশুর অবস্থা আশঙ্কাজনক