করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করলে দাফনের জন্য প্রস্তুত ১১ স্বেচ্ছাসেবী

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে বা করোনা সন্দেহে কোনো মুসলিম পুরুষ মারা গেলে তার গোসল, জানাজা ও দাফন কাজে আগ্রহী হয়েছেন চাঁদপুরের হাজীগঞ্জ উপজেলার ১১ স্বেচ্ছাসেবী।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় নিজেদের নাম-ঠিকানা ও মোবাইল নম্বরসহ একটি তালিকা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বৈশাখী বড়ুয়ার কাছে প্রদান করেছেন তারা।

সরকারের আহ্বানে সাড়া দিয়ে একটি স্বেচ্ছামূলক দলের তালিকা প্রকাশ করেছেন বলে জানিয়েছেন ওই ১১ ব্যক্তি।

তারা জানান, আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য দলবদ্ধভাবে এ মহতী কাজ করতে আগ্রহী হয়েছেন তারা।

বৃহস্পতিবার দুপুরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বৈশাখী বড়ুয়া সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে একজন মানুষ দরকার শিরোনামে একটি স্ট্যাটাস দেন।

ওই স্ট্যাটাসে তিনি উল্লেখ করেন, কমপক্ষে ১০ জন; সর্বোচ্চ ২৫ জন স্বেচ্ছাসেবক (কমপক্ষে ৩ জন মেয়ে/মহিলাসহ) করোনাভাইরাসে মৃত মানুষের লাশ দাফন/সৎকার তাদের প্রশিক্ষণ ও সৎকারের প্রয়োজনীয় সামগ্রী দেয়া হবে। কমেন্টে- নাম (পিতা/মাতার নামসহ, ঠিকানা, ফোন নং) মেয়েদের ফোন নাম্বার ইনবক্সে দিতে পারেন।

ওই স্ট্যাটাস নজরে পড়ার পরই ১১ ব্যক্তি এ কাজে আগ্রহী বলে তালিকা প্রদান করেন।

তারা হলেন– হাজীগঞ্জ মাদ্রাসা দারুল কারিমের মুহতামিম মাওলানা জুবায়ের আহমেদ, চাঁদপুর হাসান আলী সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক শরিফুল হাসান, হাজীগঞ্জ বাজারের আল আকসা ট্রেডার্সের স্বত্বাধিকারী মোহাম্মদ রফিক, মুক্তিযোদ্ধা মমিনুল হক ফাউন্ডেশনের সদস্য মনির হোসেন ও মাকসুদুন্নবি, সিএনজিচালক ইমাম হোসেন সুমন, রামপুর আশরাফুল উলুম মাদ্রাসার মুহতামিম মাওলানা আব্দুল কাদের, মোল্লা ট্রেডার্সের স্বত্বাধিকারী মো. সুমন, হাজীগঞ্জ ডিগ্রি কলেজের ছাত্র মো. আরিফ হোসেন, হাজীগঞ্জ মাদ্রাসা দারুল করিমের শিক্ষক হাফেজ আব্দুর রহমান ও জাবেদুল ইসলাম।