ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম | আন্তর্জাতিক ডেস্ক


এখানে গাছের সংখ্যা খুবই কম। অনেক কষ্টে যে গাছগুলো প্রাণ নিয়ে বেঁচে আছে সেগুলোও খুব বেশি হাত-পা মেলতে পারে না। যখন বেলা ১১টা তখন তাপমাত্রা ৪৫ ডিগ্রি পেরিয়ে যায়। তাপমাত্রা কখনো কখনো উঠে ৫০ ডিগ্রি সেলসিয়াস। অসহ্য এমন তাপমাত্রায় রাস্তায় গাড়ি রাখা কঠিন হয়ে পড়ে। আর সাধারণ মানুষের চলাচল তো অসম্ভব হয়ে ওঠে প্রায়। এটাই সাগর তীরবর্তী মরুভূমির দেশ কাতার।

এই দেশেই আয়োজিত হচ্ছে আগামী ফুটবল বিশ্বকাপ। তখন বিশ্ব থেকে লাখো মানুষের আগমন ঘটবে। অনেক শীতপ্রবণ দেশের মানুষও আসবেন। আবার গাড়ির চলাচল তখন বেড়ে যাবে।

এমতাবস্থায় পর্যটকদের জন্য আরামদায়ক পরিবেশ নিশ্চিত করার দোহার জন্য বড় একটি চ্যালেঞ্জ। এমনিতে শীতকালে আয়োজন করা হচ্ছে টুর্নামেন্টটি। কিন্তু তারপরও এই সময়েও দেখা যায় কাতারের রাস্তায় চলাচল কঠিন।

তাই তাপমাত্রা কমিয়ে আনতে নানান বৈজ্ঞানিক প্রচেষ্টা চালাচ্ছে বিশ্বের শীর্ষ ধনী দেশটি। তারই অংশ হিসেবে পাকা রাস্তার কালো রঙকে আকাশি নীলে রূপান্তরের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। কালো সিমেন্টের আস্তরণ তাপমাত্র বেশি ধরে রাখে। ফলে আশপাশের এলাকায় আরও গরম হয়ে উঠে।

ইঞ্জিনিয়াররা তাই পরীক্ষামূলকভাবে দোহার একটি রাস্তা আকাশি রঙে আস্তর করেছে। যদি ইতিবাচক ফল আসে তাহলে বিশ্বকাপের আগে এই রঙে বদলে ফেলা হবে কাতারে প্রধান রাস্তাগুলো। এক মিলিমিটার পুরো এই আস্তরণ কতটা তাপ শুষে তার ওপর পরীক্ষা নিরীক্ষা চালিয়ে তারা পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেবেন।